পাতা:বিভূতি রচনাবলী (সপ্তম খণ্ড).djvu/৪২৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


হে অরণ্য কথা কও 8XX

আজ দিনটি বেশ পরিষ্কার। পরশু রাত্রে সারারাত্রি হৈ হৈ-এর পরে খুব আরামের ঘুম হয়েচে । স্ববোধ ও অবিনাশবাবু এসে চা খাওয়ার সময়ে গল্প করলেন—চালের দর, ট্রেনে ভীষণ ভিড় । প্রেমটাদের গল্প "বেটি কী ধন’ ও ‘মুহাগ কী শাড়ী’ দুটি হিন্দীতে পাঠ করা হোল চায়ের টেবিলে। এখানে বেশ সাহিত্যিক আবহাওয়া। মনে পড়চে কাল এ সময় সৌন্দর্য্যময় বনভূমির মধ্যে বসে ছিলাম। এখনও যেন চোখের সামনে দেখতে পাচ্ছি সেই উত্তর শৈলগাত্র, রাঙা মাটি ও চুণা পাথরের ধ্বস নামা খাড়া দেওয়াল, সেই অজস্র Lantana পুষ্প । আজ আকাশ খুব নীল, হেসডি ডাকবাংলোতে কাটানোর উপযুক্ত দিন যেন এগুলি । 翻 সন্ধ্যায় স্ববোধবাবুর বাড়ীতে চায়ের আসরে আমার গল্প দুটি পড়া হোল—গ্রীক যুবক হেলিওডোরাস কি করে বাস্বদেবের ভক্ত হোল ও ‘ভিড় । রাত্রে ফিরে এসে খেয়ে শুয়ে পড়ি । কোলহান স্বপারিন্টেণ্ডেণ্ট মিঃ কে মিত্র, আরও কয়েকটি উকীল উপস্থিত ছিলেন । ভোরে উঠে আমি ও মিঃ সিনহা চ খেয়ে হিন্দি সাহিত্যিক প্রেমচাঁদের বই পড়ি । জগৎ সিং এসে ভাণ্ডে ভাণ্ডে অর্থাৎ “আমি বার বার বলচি গল্পটি করেন । এই গল্পটি ওঁর মুখে কতবার শুনেচি—যতবার শুনি, নতুন লাগে প্রতিবার। স্থবোধবাবু এসে বল্পে—সে ডেপুটি কমিশনার মিঃ কেম্পের গাড়ীতে টাটা চলে চাচ্ছে । একটু পরে ঘাটশিলা থেকে মুকুল চক্কত্তি এল। তারপর আমরা মোটরে বার হয়ে ভবানী সিংয়ের বাড়ী যাই । গত ৩০শে চৈত্র এর বাড়ীতে কম্পাউণ্ডে বসে আমরা চ খেয়েছিলাম-চাইবাসার বাইরে অপূৰ্ব্ব মুক্ত space-এর বাহার, একদিকে নীল শৈলমালা—বরকেলা ও সেরাইকেল । আমার মনে হল সেরাইকেল শৈলমালাই বরাবর গিয়ে বুরুডি ও বাসাডেরার পাহাড়ে শেষ হয়েচে, বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন নাম। মস্ত বড় হাট বসেচে চাইবাসায়—বাসমতী চাল বিক্রি হচ্ছে ৩২ টাকা মন । কিন্তু অতি স্বন্দর চাল । সেই সন্ধ্যায় ট্রেনে এসে টাটানগর পৌঁছে গেলুম ও বাদাম পাহাড়ের যে গাড়ীখানা প্ল্যাটফর্মে দাড়িয়ে, তাতেই শুয়ে রইলুম। ছোটনাগপুরের অধিবাসী হয়ে গিয়েচি আজকাল । বরকাকানা ও মুী থেকে রাচি এক্সপ্রেস আসবে তারই সন্ধানে বার বার গাড়ী থেকে নামচি কিন্তু গাড়ী পেলুম না। ভোরে বম্বে মেল ধরে ঘাটশিলা পোঁছুই । আসানবনী ছাড়িয়ে দূর থেকে আমাদের অতি পরিচিত সিদ্ধেশ্বর ডুরির মোচাকৃতি শিখরদেশ দেখু মনে কি আনন্দ ! বাড়ী এসেচি মনে হোল বহুদিন প্রবাস যাপনের পর । ওই সেই মিলিটারি ক্যাম্প রাখা মাইনস্-এর—শনিবার রাত্রে যেখানে লেফটেনাণ্ট জহুরী ও বোসের অতিথি হয়ে রাত কাটিয়েছিলাম। গালুডির বিষ্ণু প্রধান যাচ্চে এ গাড়িতে, সে নমস্কার করে বল্লে, কোথায় নামবেন ? আমি বল্লাম, ঘাটশিলায়। রেডিও বক্তৃতা দিয়ে বারাকপুর গিয়েছিলুম একদিনের জন্মে। শিউলি ফুল ফুটচে দেখে