পাতা:বিভূতি রচনাবলী (সপ্তম খণ্ড).djvu/৪২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8X8 বিভূতি-রচনাবলী ঠিক যেন চন্দ্রনাথ পাহাড়ের মত। একটা স্থানে এসে পাহাড়ের ওপর উঠতে আরম্ভ করলুম। খড়ি উঠেচে, অতি দুরারোহ শৈলগাত্র, নিবিড় বনের মধ্যে সোজা হয়ে উঠে চলেচে । একটা বনমোরগ আমাদের পায়ের শব্দ পেয়ে বনের মধ্যে পালালো। বড় বড় মোটা মোটা শাল, ধ, করম, আসান, লুদাস, পানজন, আন্দী, বন্য কাঞ্চন, টীহড় লতা আরও শ' দুশো রকমের গাছ ও লতাপাতা। ৬০।৭• বছরের পুরোনো টীহড় লতা ( bohinia wallai ) গাছের মাথার কাছে ঠেলে উঠেচে । এক এক জায়গায় পাহাড়ের ও বনের ফাকে দূরের ছোট বড় পাহাড় চোখে পড়ে। চাড ডা গাঢ় নামক পাৰ্ব্বত্য ঝর্ণার কলকল জলপতন ধ্বনি বনে বনে, স্তরে স্তরে যেন নেমে চলেচে নীচের দিকে — উপত্যকার নিবিড় অরণ্যে এ গম্ভীর শব্দ একটি উদাত্ত সঙ্গীতের স্বষ্টি করেচে। বড় ক্লান্তি হচ্চে। এত দুরারোহ পাহাড়—শেষের দিক যেন আরও বেশি। পা যদি সামান্য একটু পাথরেও আটকে যায়—তাও যেন তুলে ফেলতে কষ্ট হচ্চে। ঘন ঘন ইাপাচ্চি—মাঝে মাঝে বুকের মধ্যে এক রকম যন্ত্রণ হচ্চে। ধূমপান করবার জন্যে সেই খাড়া পথের এক জায়গায় বসলুম। সামনের দৃপ্ত আরও স্পষ্ট করবার জন্যে সঙ্গের বনবিভাগের গার্ড কুড়ুল দিয়ে bohinia valIai-A GÆöI cxf5i æIREl cTFCö ffCA I Forest Officer e cYa xfFzIfF ঐরাসবিহারী গুপ্তকে একটি গল্প শোনালুম। দুজনেই শুনে খুব খুশি । যেখানে চাড়া ঝর্ণা পড়চে—সেখানে নালা পার হবার সময়ে মিঃ সিনহা বললেন—Take courage in both hands, দাদা। আমি ববলুম—একটা হাত আটকানে—লাঠি ধরে আছি যে ! প্রকাও আম গাছ বনের মধ্যে এই স্থানে দেখলুম। আজ গোপালনগরের হাট, এতক্ষণ হাটে চলেচে লোকে । ওপরে উঠে প্রায় দুই মাইল দীর্ঘ তৃণক্ষেত্রের ওপর দিয়ে চলে গিয়ে একটা জলাশয়ের ধারে এলুম। সেখানে নরম কাদায় কত রকম পশুর পদচিহ্ন। হো ফরেস্ট গার্ডকে আমরা ডেকে বললুম—কি কি জঙ্গলের জানোয়ারের পায়ের দাগ আছে দেখ। সে দেখে বল্লে—হজুর হাতী, বাইসন, সম্বর বুনো শূওর বেশি। আমি বললুম—বাঘের পায়ের দাগ ? —নেই হুজুর। বাঘ এখন এখানে জল খেতে আসবে না। একটা গাছের ছায়ায় গাছের ডাল-পালা বিছিয়ে আমরা শুয়ে পড়লুম। চা পান করে বেলা ৪টার সময় রাসবিহারীবাবু বরেন—চলুন, বড় হাতীর ভয় বেলা পড়লে । তারপর এখানে কি ভাবে একটা বাঘের গর্জন শুনেছিলেন, সে গল্প করলেন। হে কুলী বললে–বাৰু রাৎ আনা—উনি বুঝতে পারেন না। শেষে দেখলেন কুলী পিছিয়ে পড়চে । তখন শুনলেন বাঘ ডাকচে বনের মধ্যে। আর একবার একটা হাতীর হাতে পড়েছিলেন, কুলী ছিল সঙ্গে । সে ওঁকে পাহাড়ের ওপর থেকে ঢালুর দিকে জোর করে নামিয়ে নিয়ে গেল। আসবার সময় আরও অদ্ভুত দৃপ্ত। হলুদে রোজ দূর পাহাড়ের মাথায়, অরণ্যবনস্পতি শীর্ষে। নামচি, নামচি—সেই দুরারোহ পথে হড়কে পড়ে যাওয়ার ভয় প্রতি মুহূর্বে। রোদ কমে এল। বনের ছায়া নিবিড়তর হচ্চে । এক জায়গায় barking deer ডাকচে, ঠিক কুকুরের মত ঘেউঘেউ আওয়াজ করে। বনের