পাতা:বিভূতি রচনাবলী (সপ্তম খণ্ড).djvu/৪৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


cङ् अब्रव्T कधी कe 84ר দেখছিলুম মেয়েদের লিখিতে লিঙ্গুর, পরনে শাড়ী—এখানে দেখলুম মেয়েদের মোটা হাতবোন কাপড় দ্বাদুকরো জড়ানো-হে বা সাওতালদের ধরনে। অনেক টোমটাে ক্ষেত পথের পাশে । 尊 একটি বৃদ্ধ মহিষ চরাচ্চে, তাকে বল্লাম—দুবলাবেড়া কতদূর ? সে বল্লে—সামনে মাগুরু আর নেংগাম লাগালাগি, নেংগাম আর দুবলাবেড়া ভিড়ভিড়ি । নতুন ভাষা শিখলাম। ভিড়াভিড়ি মানে কাছাকাছি, কিন্তু এখানেই গোলমাল । ১৪ মাইল পথ তখন ইটো হয়ে গিয়েচে, ক্ষুধাৰ্ত্ত ও তৃষ্ণাৰ্ত্তও বটে—সে অবস্থায় এ দেশের লোকের মুখে ভিড়াভিড়ি শুনে খুব আশ্বস্ত হলুম না। এরা তিন মাইলকেও কাছাকাছি বলতে পারে। একটা পাহাড় দেখিয়ে বল্লে—ঐ পাহাড়টা দেখচিল, ঐ পাহাড়টা ঘুরে যেতে হবেক । এ জায়গাটি চেয়ে দেখি বড় চমৎকার। তিনদিকে শৈলমালা ও নিৰিড় বন আমাদের পথকে ঘিরেচে অৰ্দ্ধচন্দ্রাকারে, অবিপ্তি দূরে দূরে। জোঙ্গুড়ি শিখরদেশ আর দেখা যায় না, নারদ peak ডাইনে বহু পিছনে অস্পষ্ট দেখা যাচ্চে, রোদ ফুটেচে পশ্চিম গগনে, অথচ বাদিকের ছাতনা ও আটকুশী শৈলমাল সাদা কুয়াশার মত মেঘে ঢাকা । যেন দার্জিলিংয়ের কুয়াশা। ঠাও। হাওয়া বইচে সেদিক থেকে । একদিকে শাল কেঁদবন পথের পাশেই। বড় বড় শিলাখণ্ড সৰ্ব্বত্র। পাহাড়টা খুব উচু, ঘরে যাবার সময় বা পাশে পৰ্ব্বতসামুতে বনশোভা বেশ দেখালো পড়ন্ত রোদে । পাকা কুল খেতে খেতে যাচ্চে একদল বন্ত মেয়ে। দুবলাবেড়া তাঁবুতে পৌঁছলাম বেলা পাঁচটাতে। পাহাড়ের নিম্নসামুর বন যেখানে শেষ হয়েচে, সেইখানেই তাৰু পাতা । মিঃ বারোজ, র্তাবুতে বলে মি: সিন্‌হার সঙ্গে গল্প করচে। বল্পে—পথে বৃষ্টির জন্যে মোটর পাঠাতে পারিনি, এখন পাঠাচ্ছিলাম। চা ও খাবার খেয়ে ধড়ে প্রাণ এল । রাত্রে একটু জ্যোৎস্ব উঠলো। কি শোভাই হোল তাবুর পেছনের পর্বতসামুর বনের । শালগাছ নেই এ বনে। কেঁদ, পড়াশি, শিবগাছ, কুল, কমপ্রিটাম লতা, বড় বড় বিরাটকায় শিলাখণ্ডের ওপর টেরি লতা ও মোটা মোটা চীহড় লতার ঘন ঝোপ, আমলকী, নিম ইত্যাদি নিয়ে জঙ্গলট । বৈচিত্র্য আছে এ বনে, একঘেয়ে শালবন বড় খারাপ । মিঠাই ঝর্ণার ওপারে লখাইডি গ্রামে খাড়িয়া জাতির বাস । তাদের মাদল বাজচে জ্যোৎস্না রাত্রে । এ একেবারে বন্ত জায়গা, বারোজ বল্পে, বড় বুনো হাতীর উপদ্রব। গত বৎসর বস্ত হস্তীতে নিকটের কেরু-কোচা গ্রামের একটা লোককে মেরে ফেলেছিল।" কি স্বন্দর বনশোভা । জ্যোংঙ্গা পড়েচে উপত্যকার ওপারের আটকুলী শৈলশ্রেণীর একদিকের ঢালুতে–এ যেন বনপরীর দেশটি। শিউলি গাছের জঙ্গল তাবুর পেছনে শৈলসাহতে । শরৎকাল হলে প্রস্ফুটিত শেফালীর সৌরভ ভেসে আসতে শীতল নৈশ বাতাসে। এই যে লিখচি, সামনে পাহাড়ের মাথায় বর্ষার সাদা মেঘপুঞ্জ জমেচে । জৰুর জোর থেকে বড় চমৎকার দেখাচ্চে গাছগুলোকে । গ্রীক ঐতিহাসিক হেরোডোটাসের একটি কথা AG, oy co, "A nation's history has three stages. Success, then as a