পাতা:বিশ্বকোষ ঊনবিংশ খণ্ড.djvu/২০৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


व्लप्ले [ २०७ ] লাট ২ বস্ত্র । ( মেদিনা ) ৩ জার্ণভূষণাদি । ( শব্দরত্নাথ ) লাট (ইংরাজী Lord শদের অপভ্রংশ)। বাঙ্গালায় লাট সাহেব অর্থে গবর্ণর-জেনারল এবং ছোট লাট সাহেব অর্থে লেফটেনাণ্ট গবর্ণরকেই বুঝায়। কখন কখন সামরিক ও রাজকীয় বিভাগের প্রতিনিধিদ্বয়কে জঙ্গীলাট সাহেব ও মুলুকী লাটসাহেব বলা হয়। হিন্দুস্থানীরা চিফ জাষ্টিসকে লাট এষ্টি সাহেব এবং লর্ড বিশপ কে লাটু পাদ্রি সাহেব বলেন । ১৮২৪ খৃষ্টাব্দে বিশপ হেবার লাট সাহেব ও লাট পাদ্রি শব্দের উল্লেখ द{द्रघ्नीं (?:ॉ८ट्र# { দেশীয় ভাষায় লাট শব্দে লর্ডের স্তায় সন্মানসূচক অর্থ ও প্রকাশ করে, যেমন, বাবু যেন লাট । কখন কথন লাট শব্দ শ্লেষাত্মক অর্থে ব্যবথত হইয়া থাকে ; যেমন, মেরে লার্ট কেরে দিব । 娜 লাট (ইংরাজী L০ শব্দস ) । বিক্রয়ার্থ দ্রব্যসমূহের বিভাগ । লাট (হিন্দী ও সংস্কৃত) স্তম্ভ। উত্তরপশ্চিমভারতে বহু প্রাচীন কাল হইতে কতক গুলি প্রস্তর স্তম্ভ বিরাজিত রহিয়াছে । প্রাচীন কীৰ্ত্তর আদর্শ বলিয়া ঐ গুলি বিশেষ বিখ্যাত ও সাধারণের আদরের জনস। ইহা ভিন্ন এই সকল স্তম্ভের উপর অতি প্রাচীন অক্ষরে যে সকল ইতি{ষ্ট উৎকীর্ণ রহিয়াছে, তাহ প্রত্নতহবিগণের বড়ই চিন্তাকর্ষক, তাহারা বহুপরিশনে ও আলোচনা দ্বারা ঐ সকল লিপমাল পাঠ করিয়া উহার প্রকৃতত স্ত্র নির্ণয় করয়া গিয়াছেন। মহামাত জেমস প্রিসেন্স প্রথমে এই বর্ণমালা আবিষ্কার করেন। উং এখন লাট বর্ণমালা ( Lat Char.w to ) বলিয়া পরিচিত । ভারতবর্ষের বিভিন্ন জনপদে এইরূপ লাট-স্তম্ভ উন্নতমস্তকে দণ্ডায়মান আছে, তন্মধ্যে আলাহাবাদের লাটই সুপ্রসিদ্ধ। ঐ প্তম্ভের একপার্থে গুপ্ত রাজবংশের সাময়িক অক্ষরে এবং অপর পাশ্বে বে। সার্টু অশোকের প্রশস্তির অনুরূপ অক্ষরে খোদিত লিপি উৎকীর্ণ হইয়াছে। দিল্লীর লাটের লিপির সহিত কটকের ধৌলালিপির ও গির্ণরের পাৰ্ব্বত্যলিপির বর্ণমালার অনেক সাদৃশু লক্ষিত হয়। এতদ্ভিন্ন তাহাতে কপদগিরির সেমিতিক অক্ষরমালার অনুরূপ লিপিও দৃষ্ট হইয়া থাকে। ঐ লাটে ২৬টা মাত্র শোক উৎকীর্ণ আছে। তাহাতে ভারতবর্যস্থিত জনপদাদির বিভাগ ও তাহার নাম, তৎকালীন রাজবংশের বিবরণ এবং পারস্য ও শকজাতির বিবরণ লিপিত হইয়াছে। হস্তিনাপুরে চন্দ্রবংশীয় রাজগণের রাজধানী প্রতিষ্ঠিত হইলে ও এবং মনুসংহিতা বা মহাভারতে শূরসেন (জেলার ) বিশেষ কোনরূপ উল্লেখ না থাকিলেও আমরা এই পাট হইতে জানিতে পারি যে, খৃষ্টপূৰ্ব্ব নিলামের সময় উচ্চ মূল্যে ৩য় শতাদে বৌদ্ধসম্রাটু অশোকের রাজত্বকালে এই আলাহাবাদ ভূভাগ একটা প্রসিদ্ধ স্থান বলিয়া গণ্য হইয়াছিল। ২ ভিতর লাট--গাজিপুর জেলার অন্তর্গত একটী স্তম্ভ । উহাতে আলাহাবাদ লাটের অনুরূপ রাজবংশের পরিচয় ও বংশতালিকা বিদ্যমান আহে । ৩ দিল্লীলাট—ফিরোজস্তম্ভ নামে পরিচিত। পাঠানরাঞ্জ ফিরোজ তোগলক ( ১৩৫১-১৩৮৮ ) ইহার শিরোভাগে স্বর্ণময় একটী কলস লাগাইয়া দেন । তদবধি উল্লাহ! স্বর্ণলটি বলিয়া থ্যাতি লাভ করিয়াছে। পূৰ্ব্বকালের সুপ্রসিদ্ধ ভারতীয় রাজধানী সমগ্র দিল্লী বিভাগে ইহাপেক্ষা আর কোন প্রাচীন নিদর্শন নাই । ইহাই কেটল্য বিষয়ের অন্তভূক্ত একটা অদ্ভুত কীৰ্ত্তিস্তম্ভ । পুৰ্ব্বকাল হইতে এই স্তম্ভ সম্বন্ধে নানা কিংবদন্তী প্রচলিত ছিল,— হুি দুগণ উহাকে ভীমসেনের গদা, মুসলমানের সম্রাটু ফিরোজের ভ্রমণযষ্টি এবং কেহ কেহ উহাকে মহাত্মা আলেকসান্দারের পুরুবিজয়স্কৃতিস্তম্ভ এবং টম কোরিয়েটু প্রভৃতি প্রাচীন ইংরাজ ভ্রমণকারিগণ উহাকে অশোকস্তস্ত বলিয়াই জানিতেন । পরবৰ্ত্তিকালে যুরোপীর প্রত্নতত্ববিদগণের চেষ্টার উহার প্রকৃত পাঠ উদ্ধৃত হওয়ায় সাধারণের ভ্রম অপনোদিত হইয়ছে। ঐ স্তম্ভ পূৰ্ব্বে যমুনার অপর পারে সালোরা জেলার শিবালিক পদমূলস্থ থিঞ্জিরাবাদের সন্নিকটে ছিল । পরে উহা দিল্লীদ্বারের বহির্ভাগে আনিয়া স্থাপিত করা হইয়াছে। ডাঃ কানিংহাম বলেন যে, ঐ স্তম্ভ প্রাচীন শ্রীঃ রাজধানীর কোন স্থানে ছিল, চীনপরিব্রাজক হিউএনসিয়াং উহার পাশ্ববত্ত্ব খোঁদ্ধবিহার ও বুদ্ধস্মৃতি সংযুক্ত সম্রাট অশোকের সমকালীন সুবৃহৎ স্ত,পের উল্লেখ করিয়া গিয়ছেন। স্থানীয় প্রবাদ, ডক্ত প্রাটীন ও পদ হইতে এই স্তম্ভ শকটসাহায্যে খিজিরাবাদে আনীত হত, পরে তথা হইতে নদীবক্ষে নৌকার উপরি স্থাপিত করিয়া নুতন দিল্লী রাজধানী ফিরোজাবাদে সমানীত হইয়াছিল। অমুনানিক ১৩৫৬ খৃষ্টাব্দে ফিরোজশাহ হিন্দুর মুখে উহার নিশ্চলত অবগত হইয়া বহু অর্থব্যয়ে উছাকে দিল্লীতে আনয়ন করেন । তিমি উহার শিরো: দেশ শ্বত ও কৃষ্ণবর্ণ প্রস্তরে সুশোভিত করিয়া স্বর্ণকলস স্থাপন করিয়াছিলেন । তৎকালে উহা মিনার জরিন নামে প্রসিদ্ধ ছিল। ১৬১১ খৃষ্টাব্দে উইলিয়ম ফিঞ্চ দিল্লী নগরে আসিয়া ইহার স্বর্ণময় কলস ও অৰ্দ্ধচন্দ্রাকৃতি চুড়ার উল্লেখ করিয়া গিয়াছেন । তাহার মতে উহার নিম্ন কএকতলের উপর ভাগ ভীমসার প্রস্তরস্তম্ভ বলিয়া কথিত । ইহ অন্তান্ত অশোকস্তম্ভের স্থায় গাঢ় লালবর্ণ প্রস্তরে গঠিত । উচ্চ ৪২ ফিটু ৭ ইঞ্চ । উহার উপরিভাগ ৩৫ ফিটু উৎকৃষ্ট পালিশযুক্ত ও মসৃণ,নিম্নভাগ খসখসে। উহার পরিমাণ প্রায় ৮শত মণ।