পাতা:বিশ্বকোষ ঊনবিংশ খণ্ড.djvu/৪২০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বঙ্গদেশ (বৰ্ম্মবংশ ) [ 8२० I বঙ্গদেশ (বৰ্ম্মবংশ ) দান করিয়া অশেষ পুণ্য সঞ্চয় করিয়াছিলেন, সেই রাজাধিরাজ নৃপকুলশিরোমণি রাজাধিরাজ হরিবর্মদেবের জয় হউক ॥৬ কবিশেখর প্রাচীন প্রমাণ বলে তিন শত বর্ষ পূৰ্ব্বে যে সকল কথা লিখিয়া গিয়াছিলেন, তাহার একটও অত্যুক্তি নহে। একান্ত্রকানন বা ভুবনেশ্বরের অনন্ত বামুদেবের মন্দিরে ভবদেবভট্টের যে কুলপ্রশস্তি উৎকীর্ণ আছে, তাহা হইতেও আমরা জানিতে পারি, রাঢ়ী শ্রেণী সিন্ধল গ্রামীণ অদ্বিতীয় পণ্ডিত ভবদেব ভট্ট বঙ্গাধিপ হরিবর্মদেবের একজন সচিব এবং ভবদেবের কুল প্রশস্তি-রচয়িতা বাচস্পতিমিশ্র তাহার অন্তরঙ্গ বন্ধু ছিলেন ।+ অনন্ত বাসুদেবের সুন্দর মন্দির ভবদেবেরই কীৰ্ত্তি । তিনি ও রাঢ়দেশে নানা পথ ও পান্থনিবাস নিৰ্ম্মাণ করাইয়া সাধারণুের সমূহ উপকার করিয়া গিয়াছেন। এক জন বাঙ্গালী ব্রাহ্মণের কীৰ্ত্তি উৎকলে কিরূপে প্রতিষ্ঠিত হইল ? এক সময়ে এই সন্দেহ হইয়াছিল। এখন বুঝিতে পারিতেছি যে, উৎকলে হরিবল্মার অধিকার বিস্তৃত হইয়াছিল বলিয়াই তাহার প্রিয় মন্ত্রী ভবদেব এখানে দেবকীৰ্ত্তি রক্ষায় সমর্থ হইয়াছিলেন। ভুবনেশ্বরেব বর্তমান বিন্দুহুদের অপর পারে বহু মন্দির ধ্বংস অবস্থায় পড়িয়া রহিয়াছে, তাহার অধিকাংশ আমরা মহারাজ হরিবর্মুদেবের কীৰ্ত্তি বলিয়া মনে করি । তিনি যে উৎকল ও নাগেন্দ্র পত্তন বা নাগপুর জয় করিয়াছিলেন, তাহাতে আর সন্দেহ করিবার কারণ দেখি না। তৎপূৰ্ব্বে বঙ্গে ও উত্তর রাঢ়ে বৌদ্ধ,

  • "স্বস্তি সমস্ত নরপতিকুলললাম প্রোদণ্ড ভূজদগুসন্মঞ্জিতবিকরালকরবালভয়-প্রকম্পিতদক্ষিণাপথাগত শেষরিপুরাজন্তজৈনবৌদ্ধাদি-বিধৰ্ম্মি-শৰ্ম্ম-সন্মদিন-খব্বীকৃত-সৰ্ব্বোৰ্ব্বীপতি-গৰ্ব্বগৌরবো নগেন্দ্রপত্তনাস্থানেকদেশবিজয়লন্ধোদামজয়শ্রীরেকর্মকানন প্রতিষ্ঠাপিত হরিহর-বিরিঞ্চিবৈদেহীরাঘবলক্ষ্মণ-হনুমদাস্তষ্টোত্তরশতাদ্ভূতবৈজয়ন্তীবিভাসিত মন্দগন্ধ প্রস্থপ্রস্থনপটলসৌন্দৰ্য্যাদিগুৰুত-নন্দনকাননবৈভবপরমামোদময়োস্তানসমলস্কৃতসুরপথসংস্পর্শি সুন্দরমন্দির-মন্দাকিনী-বিমলকীলালকমলকহলরেন্দীবরশেণারবিনাবৃন্দসংশোভিতসুবিশালসরোবরসংহতি; দেশনিবাসনিশ্বিলশাস্ত্রাস্ত্রনিপুণপরিজ্ঞামলদ্ধানন্তবৈচক্ষণা-বালভট্ট-ভট্টাচাৰ্য্যগর্গবাচস্পতি প্রমুখবিশ্ব-বিখ্যাত সপ্তসচিব সাহচৰ্য্যনিৰ্ব্বৰ্ত্তিত-সম্যক স্বপররাষ্ট্রসৰ্ব্বব্যাপারে বারাণসীশ্বরবিশ্বেশ্বরপদারবিন্দসন্দর্শনার্থসমূহতস্বজননীস্বচ্ছন্দেপরিচারকৃতে প্রবর্তিত প্রশস্তবত্মসিদমুমতপ্রতিনিয়তসরীতি পরিসেবনসম্প্রাপ্তপরমশৰ্ম্ম বঙ্গাঙ্গকলিঙ্গাস্বশেষজনপদবহুমতাদ্ভূতকৰ্ম্ম দয়ার্ক্সচেত। ভূদেবভূদানার্জিত শেষধৰ্ম্ম জয়তাচ্চিরং রাজাধিবাজো দেব শ্ৰীহরিবর্ম।” ( রাঘবেন্দ্র কবিশেখর )

+ বঙ্গের জাতীয় ইতিহাস ( ব্রাহ্মণকাণ্ড ) ১ মাংশে ভযদেবভট্টের কুলপ্রশস্তি স্রষ্টব্য। প্রভাব এবং জৈন নরপতি বিজয়ী রাজেশ্রচোলের সহিত অঙ্গ, বঙ্গ, কলিঙ্গে জৈন প্রভাবও বিস্তৃত হইয়াছিল ;-মহাবীর হরিবৰ্ম্মদেব সেই সকল বৌদ্ধ জৈন প্রভাব খৰ্ব্ব করিতে সমর্থ হইয়াছিলেন। কবিশেখর হরিবর্শ্বদেবের সপ্ত সচিবের মধ্যে যে বালভট্ট ও বাচস্পতির কথা লিথিয়াছেন, অনন্তরাষ্ণুদেবের মন্দিরস্থ কুলপ্রশস্তি হইতে ঐ দুই প্রধান সচিবের নাম বাহির হইয়াছে। বালভট্ট কুলপ্রশস্তিতে “বালবলভী ভূজঙ্গ ভবদেব ভট্ট” নামে খ্যাত। পরম বৈঞ্চব মহারাজ হরিবর্মদেব গৌড়, বঙ্গ ও রাঢ়দেশে বিশুদ্ধ বৈদিকাচার প্রবর্তনের জন্য যত্নবান হইয়াছিলেন। ফরিদপুর জেলাস্থ সামস্তসার হইতে আবিষ্কৃত হরিবর্শ্বদেবের তাম্রশাসন হইতে জানা যায় যে, তিনি বেম্বার্থবাচক ঋগ্বেদী বৎস গোত্রজ কৃষ্ণধর ভট্টারককে ( ফরিদপুর জেলার অন্তর্গত ) কেজণিসার প্রভৃতি গ্রাম দান করিয়া, ছিলেন । এইরূপে তিনি বৈদিক বিপ্রতিলক শুনক যশোধর মিশ্রকে কোটালিপাড় দান এবং অপরাপর বৈদিক ব্রাহ্মণকেও সন্মানিত করিয়া বৈদিকাচার-প্রচারে উৎসাহ দান করিয়াছিলেন। এই সময়ে সৰ্ব্ব শাস্ত্রদর্শী মন্ত্রিবর ভবদেব ভট্ট রাষ্ট্ৰীয় ব্রাহ্মণদিগের মধ্যে ৰিশুদ্ধ বৈদিকাচার প্রবর্তন করিবার অভিপ্রায়ে “সামবেদীয় সংস্কারপদ্ধতি” রচনা করেন। অদ্যাপি সেই পদ্ধতি অনুসারেই রাষ্ট্ৰীয় ব্রাহ্মণগণের সংস্কারাদি সম্পন্ন হইয়া থাকে । ভবদেব ভট্ট যেমন এক জন অসাধারণ মীমাংসক ছিলেন, র্তাহার বন্ধু বঙ্গাধিপের প্রধান মন্ত্রী বাচস্পতি মিশ্রও সেইরূপ এক জন সৰ্ব্বদর্শনবিদ অসাধারণ নৈয়ায়িক ছিলেন। তাহার যড় দর্শন টীকা ও ন্যায়স্কচনিবন্ধ সংস্কৃত সাহিত্য-ভাওরের অপূৰ্ব্ব রত্ন। তাহার দ্যায়সূচীনিবন্ধে লিখিত আছে যে, এই গ্রন্থ “বস্বঙ্ক বসু বৎসরে” অর্থাৎ ৮৯৮ শকে ( ১৭৬ খৃষ্টাব্দে ) রচিত হয়। ইহাই তাহার প্রথম রচনা বলিয়া অনেকে অনুমান করেন। ইহার পর তিনি মিথিলার রাজসভায় সম্মানিত হন এবং তথায় ষড় দর্শনের টীকা রচনা করেন। পালরাজগণের প্রভাবে মিথিলায় বৌদ্ধাচার প্রবল হইলে বাচস্পতি মিশ্র ব্রাহ্মণভক্ত দক্ষিণরাঢ়ের সভায় আগমন করেন । জৈনধৰ্ম্মাবলম্বী রাজেন্দ্রচোলের আক্রমণে রণপুর রাজ্যভ্রষ্ট হইলে বাচস্পতি মিশ্রও তীর্থবাস করিবার জন্ত উৎকল যাত্রা করেন। ঐ সময়ে হরিধৰ্ম্মদেবের অভু্যদয় । তিনি বাচস্পতি মিশ্রের অসাধারণ পাণ্ডিত্যদর্শনে তাহাকেই আপনার প্রধান মন্ত্রিত্ব প্রদান করেন। রাখবেজ কবিশেখর লিথিয়াছেন যে, কান্তকুঙ্গে যবনাগম

  • वtत्रब्र छांउँौव्र इंडिशन (डांक्र१को७) ०ब्राहt* शब्रिवरिशष्वङ्ग औज* শাসন দেখ।