পাতা:বিশ্বকোষ ঊনবিংশ খণ্ড.djvu/৪৬৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বঙ্গদেশ (ইংরাজশাসন ) [ 8७१ 1 বঙ্গদেশ (ইংরাজশাসন ) পথ খুলিয়াছেন। ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত, অক্ষয়কুমার দত্ত, ঈশ্বরচন্দ্র নিয়াসাগর, মাইকেল মধুসূদন দত্ত, দীনবন্ধু মিত্র, বঙ্কিমচন্দ্র ক্টোপাধ্যায়, হেমচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় প্রভৃতি গ্রন্থকারদিগের দ্বারা বাঙ্গালা ভাষা ও সাহিত্যের বিলক্ষণ উন্নতি হইয়াছে। কবিওয়াল, পাঁচালীওয়াল, কীৰ্ত্তনওয়ালা, এবং যাত্রাওয়ালাদিগের কতেও বাঙ্গালা ভাষায় মধুরতা বৃদ্ধি পাইয়াছে। বঙ্গীয় রঙ্গালয়সমূহেও ইংরাজী অনুকরণের যথেষ্ট প্রভাব লক্ষিত হইতেছে। ইংরাজুদিগের আমলেই বোধ হয়, বাঙ্গালা গদ্যগ্রন্থের বহুল প্রচার আরম্ভ। ফরেষ্টর সাহেবের ১৭৯৩ খৃষ্টাব্দে বিধিবৃহের বাঙ্গালা অনুবাদের পূৰ্ব্বে আরও অনেক গল্পপুথির পরিচয় পাওয়া গিয়াছে। [ বাঙ্গালা ভাষা দেখ। ] খৃষ্ঠান মিলনবিদিগের ঘরে কৃত্তিবাসের রামায়ণ ও কাশীদাসের মহাভারত প্রথম মুদ্রিত হয়। পরে তাহারাই বাঙ্গালা সংবাদপত্র ছাপাইতে আরম্ভ করেন। শ্রীরামপুরের কলেজ, কলিকাতার কয়েকট কলেজ ও স্থানে স্থানে অন্ত প্রকার বিদ্যালয় স্থাপিত হওয়ায় এতদেশীয় লোকের বিস্তাশিক্ষার যথেষ্ট সাহায্য হইয়াছে। কেরী, মাস ম্যান ও ডফ সাহেবের নাম এদেশের কৃতবিদ্য ব্যক্তিগণ সহজে ভুলিবেন না। তাহাদের যত্নে ও উদ্যোগে বাঙ্গালায় ইংরাজীশিক্ষা দৃঢ়ভিত্তি লাভ করে। সেই শিক্ষাকলে ক্রমে এখানে হিন্দু পেটিয়ট, বেঙ্গল হরকর, ইণ্ডিয়ান ডেলী নিউস, ইণ্ডিয়ান মিবর, ষ্টেটসম্যান, ইংলিশম্যান, বেঙ্গলী ও অমৃতবাজার প্রভৃতি ইংরাজী সংবাদ পত্র এবং সঞ্জীবনী, বঙ্গবাসী, বসুমতী, হিতবাদী প্রভৃতি বাঙ্গালা সংবাদ পত্র প্রচারিত হইতেছে। বাঙ্গালার প্রাচীন বাণিজ্যসমৃদ্ধি কাহারও অবিদিত নাই। যে আশায় পর্তুগীজ, ইংরাজ, ওলন্দাজ, দিনেমার ও জৰ্ম্মণ বণিকৃগণ এখানে আসিয়াছিলেন, তাহার প্রভাব তৎকালে বাঙ্গালায় কিরূপ বলবৎ ছিল, তাহ ১৭৫৩ খৃষ্টাব্দে ইতিহাসলেখক অৰ্ম্মির উক্তিতে স্পষ্টতর প্রতিভাত হইয়াছে। তিনি বলেন, ভারতবর্ষের অন্তান্ত প্রদেশাপেক্ষা বাঙ্গালার বাণিজ্য বহুবিস্তীর্ণ ছিল। তখন এখান হইতে সমুদয় কার্পাস ও পট্টবস্ত্র দিল্লীতে রপ্তানী হইত। এতদ্ভিন্ন আরব, পারস্ত ও ভারতবর্ষের অষ্টান্ত অংশে রেশম ও রেশমী কাপড়, কাপাসবন্ত্র, চিনি, অহিফেন, শস্ত প্রভৃতি প্রেরিত হইত। তখন বাঙ্গালাই যুরোপীয়দিগের প্রধান ব্যবসায়ের স্থান ছিল। এই বাণিজ্যক্ষেত্রে ইংরাজজাতি অস্ত্রবিনিময়ে পণ্যরূপে বঙ্গরাজ্য ক্রয় করিয়াছিলেন, তাহ ইতিহাসপ্রসঙ্গে বিবৃত হইয়াছে। বাণিজ্য উপলক্ষে বাঙ্গালীর সহিত ঘনিষ্টতাই ইংরাজঞ্জাতির উন্নতির মূল এবং সেই মেশামিপিই বাঙ্গালীর অধঃপতনের কারণ। তখন এদেশে সদর রাস্ত বা কোন প্রধান নগর হইতে কিছু দূরে গমন করিলে এমন কোন গ্রাম পাওয়া ধাইত না, যেখামে প্রত্যেক পুরুষ, স্ত্রী বা শিশু ৰত্ননিৰ্ম্মাণ কার্থ্যে নিযুক্ত ছিল না। অপর বাণিজ্যদ্রব্যজাত সম্বন্ধে যাৰা হউক, বস্ত্রমিৰ্ম্মাণ সম্বন্ধে এদেশের তত্ত্ববায়-সমিতি সভ্য জগতের শীর্ষস্থান লাভ করিয়াছিল, কিন্তু এখন আর পূর্বের সে অবস্থা নাই, এখন আর ঘরে ঘরে চর্ক ঘুরে না। এখন এখান হইতে বিদেশে কাপড় যায় না। এখন ম্যাঞ্চেপ্পরের প্রতিযোগিতায় আমাদের সে বাণিজ্য-গৌরব অস্তমিত হইয়াছে। সামান্ত পরিমাণে র্তীতের কাপড় ব্যতীত মস্তক উত্তোলন করিতে পরিবে, এরূপ সম্ভাবনা নাই। এখানে এবং বোম্বাই প্রদেশে এখন অতি অল্প পরিমাপেই কলে মোটা কাপড় প্রস্তুত হইতেছে। ১৮১৫ খৃষ্টাব্দে যশোহরজেলায় প্রথম ওলাউঠা দেখা দেয়, পরে উহ। ভারতব্যাপী হইয়া পড়িয়াছে। সময়ে সময়ে এই রোগের উৎপাতে সকল দেশের অধিবাসীরাই ব্যতিব্যস্ত হইয়া পড়ে। কয়েক বৎসর হইতে নদীয়া, হুগলী, বৰ্দ্ধমান, মেদিনীপুর প্রভৃতি জেলায় “সঞ্চারী জরে” অনেক লোকের মৃত্যু হইয়াছে। ইনফ্লুয়েঞ্জা ও বোম্বাই প্লেগ দেখা দিয়া এখনও দেশের সর্বনাশ করিতেছে। বৈজ্ঞানিকগণ অনুমান করেন, নদী, খাল প্রভৃতি ক্রমে পলি মাটি দ্বারা ভরাট হইয়া এবং স্থানে স্থানে প্রয়োজনীয় পয়ঃপ্রণালী না রাখিয়া রাস্ত নিৰ্ম্মিত হওয়ায় জল নিগমের বাধা জন্মিয় এই জরের উৎপত্তি ঘটিতেছে। বর্ষা ঋতুতে নিমবঙ্গের গুল্মলতাদি পচিয়া এক প্রকার দুর্গন্ধময় বাষ্প উত্থিত হয়। ঐ অবিশুদ্ধ বায়ুসেবনে রক্ত দূষিত করিয়া ম্যালেরিয়াদি . রোগ উৎপাদন করে। অনেকে বিবেচনা করেন যে, তিনশত বৎসর পূৰ্ব্বে যে মহামারীতে গোঁড়নগর জনশূন্ত হইয়াছিল, তাহাও এইরূপ এক প্রকার জর । ১৮৬৪ খৃষ্টাব্দে এদেশে একটা ভয়ঙ্কর ঝটিকাবর্ত উপস্থিত হইয়া অনেক অপকার করিয়াছিল। বহুসংখ্যক বৃক্ষ ও গৃহ ধরাশায়ী হইয়াছিল, অনেক জাহাজ ও নৌকা ডুবিয়ছিল ; এবং ঝড়ের প্রতাপে বঙ্গোপসাগরের সলিলরাশি চব্বিশ পরগণার দক্ষিণাংশে প্রবেশ করিয়া কত মনুষ্য, জীবজন্তু ও লোকালয় বিনষ্ট করিয়াছিল, তাহার ইয়ত্ত নাই। ইহা বাঙ্গালায় ১২৭০ সালের আশ্বিন মাসে ঘটে বলিয়া আশ্বিনে ঝড় নামে খ্যাত। তৎপরে ১২৭৪ সালের কাৰ্ত্তিক মাসে কাৰ্ত্তিকে ঝড় হয়। ১২৭৬ সালেও একটী ঝড় হইয়াছিল। এ প্রকার ঝটিকা এদেশের পক্ষে নূতন নহে, আইন আকবরী পাঠে জানা যায় যে, ১৫৮৬ খৃঃাৰে এদেশে একটা বজ্রবিদ্যুৎসহকৃত ভীষণ ঝটিকাবৰ্ত্ত উপস্থিত হইয়াছিল। উহার প্রভাবে সমুদ্রবারি উখিত হইয়া দেবমন্দিরচুড়া ও অত্যুচ্চ স্থান ব্যতীত বাখরগঞ্জ প্রদেশের অনেকাংশ