পাতা:বিশ্বকোষ একাদশ খণ্ড.djvu/১৬৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


બોલૂ ১৬৫ ] পাণ্ডু - - তখন পাণ্ডু সেই যুত ঋষিকে অতিক্ৰম করিয়া ভাৰ্য্যার সহিত অনুতপ্ত ও দুঃখিত হইয়া বিস্তর বিলাপ করিলেন ७व१ भ८म भटन हिग्न कब्रिह्णन, ¢वंबजा श्रवणषम कब्रिब्राहे ७हे পাপের প্রায়শ্চিভ করিব । এই ভাৰিয়া পাণ্ডু স্ত্রীদ্বয়কে প্রবোধ निद्रा निtछद्र ७ जौदरब्रव्र cष किडू श्रालद्र१ बांनभनिभएक मान BBBS DDDDDDD DBBBS BBDD BBBBBB BBB করিয়া বল যে, পাণ্ডু অর্থ, কাম ও পরম প্রিয়তম স্ত্রীর সংসৰ্গাদি পরিত্যাগ করিয়া প্রত্ৰজ্যাশ্রম অবলম্বনপূর্বক ভাৰ্য্যাসমভিবাtহারে বনপ্রস্থান করিয়াছেন। পাণ্ডু অস্থচরদিগকে এই কথা কহিয়া হস্তিনীয় প্রেরণ করিলেন, পরে ফলমূলাহারী হইয়া পত্নীদ্বয়ের সহিত নাগশতপৰ্ব্বতে গমন করিলেন । এইস্থানে পাণ্ডু কঠোর তপোনুষ্ঠান করিয়া ব্রহ্মর্ঘি সদৃশ হইয়া উঠিলেন । একদা পাণ্ডু স্বৰ্গপুরে উত্তীর্ণ হুইবার মানসে ঋষিদিগের সহিত যাইতে উদ্ধ্যক্ত হইতেছিলেন, তাহাতে ঋষিগণ নিষেধ করিয়া কহিলেন, অপুত্র ব্যক্তির স্বৰ্গগমনের দ্বার নাই। পাণ্ডু এই কথা শুনিয়া স্বক্ষেত্রে ব্রাহ্মণ দ্বারা পুত্রোৎপাদন করিতে কৃতনিশ্চয় হইয়া নির্জন প্রদেশে কুষ্ঠীকে সকল বৃত্তান্ত কহিলেন । পতিব্ৰত কুন্তী স্বামীর অভিপ্রায়ানুসারে ধৰ্ম্ম, বায়ু ও ইন্দ্র হইতে যুধিষ্ঠির, ভীম ও অর্জন নামে তিন পুত্র এবং মাদ্রী অশ্বিনীকুমার হইতে নকুল ও সহদেব নামে দুই পুত্র প্রসব করেন । [ পাওব দেখ । ] পাণ্ডুয় এই পঞ্চ পুত্র পঞ্চ পাওব নামে খ্যাত হইল। পাণ্ডু এই পুত্র সকলকে দর্শন করি। সেই শৈলোপরি সুখে কালযাপন করিতে লাগিলেন । একদা প্রাণিগণের সম্মোহনকারী বসস্তকাল উপস্থিত হুইলে পাণ্ডু ভাৰ্য্যার সহিত সুখে বিচরণ করিতেছিলেন । এই সময় দিকৃসকল পুষ্পগন্ধে ভামোদিত এবং কোকিলের কুহূরব প্রতিধ্বনিত হইতেছিল, মধুকধুনিকর গুণ গুণ শব্দে গান করিতেছিল, মুহূমধুর মলয় পবন হিল্লোলে প্রস্থননিচয় বৃন্ত হইতে খসিয়া পড়িতেছিল, এইরূপ নানাপ্রকারে বসন্তের বিকাশ দেখিয়া পাণ্ডুর হৃদয় মন্মথের বাসস্থান হইল। মাত্রী রাজার পশ্চাতে বিচরণ করিতেছিলেন, রাজা নির্জন স্থানে কমললোচনা ললনাকে অবলোকন করিবামাত্র একেবারে অধীর হইয়। পড়িলেন। কোনক্রমেই শুমার ধৈর্য ধরিতে পারিলেন ন। সুতরাং একাকিনী ধৰ্ম্মপত্নীকে বলপূৰ্ব্বক ধারণ করিলেন। তখন দেবী মাত্রী যতদূর সাধ্য প্রতিষেধ কল্পিতে লাগিলেন ; কিন্তু রাজা তখন কামবিমোহিত হইয়াছেন, সুতরাং জীবনান্তকারী পূৰ্ব্বোক্ত অভিশাপের ভয় তাছার মনোমধ্যে স্থান পাইল না। তৎকালে মদনের আঞ্জাম্ববৰ্ত্তী পাণ্ডু ΧΙ 8文 বিধি কর্তৃক প্রেরিত হইয়াই যেন শাপজষ্ঠ ভয় পরিত্যাগ করিলেন এবং জীবননাশের জগুই বলপূৰ্ব্বক মাত্রীকে ধারণ করিয়ু মৈথুনধর্মের অম্বুগামী হইলেন । সেই কামান্ম পুরুষের বুদ্ধি সাক্ষাৎ কাল কর্তৃক বিমোহিত হইয়া ইন্দ্রিয়গ্রাম মন্থনপুৰ্ব্বক চৈতন্তের সহিত প্রনষ্ট হইল ; সুতরাং সেই পরম ধর্শ্বাস্থা কুৰুনন্দন পাণ্ডু ভাৰ্য্যার সহিত সঙ্গত হইয়া কালধৰ্ম্মে নিয়োজিত হইলেন। অনস্তর মাত্রী হতচেতন ভূপালকে অলিঙ্গন করিয়া পুনঃ পুনঃ উচ্চৈঃস্বরে মাৰ্ত্তনাদ করিতে লাগিলেন। পরে পুত্ৰগণের সহিত কুণ্ঠী ও মাদ্রীর পুত্রদ্বয় সেই শোকসুচক শব্দ শ্রবণ করিয়া যেখানে রাজা সেই অবস্থা প্রাপ্ত হইয়াছেন, তথায় আগমন করিতে লাগিলেন। তখন মাষ্ট্ৰী আৰ্ত্তশ্বরে কুন্তীকে কছিলেন, তুমি একাকিনীই এস্থলে আগমন কর, বালকগণ ঐস্থানেই থাকুক। কুন্তী রাজার সমীপে আসিয়া মাদ্রীর নিকট সমস্ত বৃত্তাস্ত শ্রবণ করিয়া সাতিশয় বিলাপ করিতে লাগিলেন। তখন কুন্তী মাত্রীকে কহিলেন, আমি রাজার অমুগমন করি, তুমি বালকগণকে প্রতিপালন কর। ইহাতে মাত্ৰী কছিলেন, জামি ভৰ্ত্তাকে ধরিয়া রাখিয়াছি, পলায়ন করিতে দিই নাই, আমিই ইহার অনুগামিনী হইবু। কারণ আমি কামরসে পরিতৃপ্ত হই নাই। তুমি জ্যেষ্ঠ, অতএব আমাকেই অনুমতি কয় । ইনি আমাতে গমন করিয়াই বিনষ্ট হইয়াছেন, অতএব আমারই ইহার অনুগমন করা শাস্ত্রসঙ্গত । ইহা বলিয়। মদ্ররাজদুহিত। অনতিবিলম্বে চিতাগ্নিস্থ নয়শ্রেষ্ঠ পাণ্ডুয় অমুগামিনী হইলেন । অনস্তর মহর্ষিগণ কুন্তী, পঞ্চপাওব এবং এই দুই স্কৃতদেহ লইয়া হস্তিনাপুরে গমন করিলেন । হস্তিনাপুরে যাইয়া ভীষ্ম ও ধৃতরাষ্ট্রাদির নিকট সমুদায় বর্ণন করিলেন। সকলে পাণ্ডুর জগু শোক প্রকাশ করিতে লাগিলেন । পরে ধৃতরাষ্ট্র বিত্ত্বরকে পাণ্ডুর প্রেতকার্যের জন্ত অাদেশ করিলেন । বিছর আজ্ঞা পাইয়া ভীষ্মের সহিত পরম পবিত্র স্থানে পাণ্ডুর সৎকার কার্য্য করিলেন । পঞ্চপাণ্ডব ভীষ্ম ও ধৃতরাষ্ট্রের যত্নে শশিকলার গুীয় দিন দিন বৰ্দ্ধিত হইতে লাগিল । ( ভারত আদিপ” ১-২ হইতে ১২৭ অ• ।) ৬ নাগভেদ । ৭ শ্বেতহস্তী । ৮ সিতবর্ণ। ৯ রোগবিশেষ । ( শব্দয়” ) পাণ্ডুরোগ । স্বশ্ৰতে এই পাণ্ডুরোগের বিষয় এইরূপ লিখিত আছে,— অতিরিক্ত স্ত্রীসংসর্গ, অন্ন, লবণ ও মদ্য সেবন, মুৰিকাভক্ষণ, দিবানিদ্রা ও অতিশয় তীক্ষদ্রব্য সেবন, এই সকল কারণে রক্ত দুষিত হইয়া ত্বক পাণ্ডুবৰ্ণ করে। ত্বক পাণ্ডুবৰ্ণ হইলেই পাণ্ডুরোগ হইয়াছে স্থির করিতে হইবে । পাণ্ডুরোগ চারি