পাতা:বিশ্বকোষ একাদশ খণ্ড.djvu/২৯০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পারিজাত - { ఇసిe J পারিজাত & ভগবান তৎক্ষণাৎ উৎ রুক্মিণীকে দেন। রুক্মিণী এই পুষ্প মস্তকে ধারণ করিলেন, ইহাতে তাহার শোভার পরিসীম। রছিল না। তখন নারদ কছিলেন, দেবী পতিব্ৰতে ! অদ্য এই পারিজীওঁ তোমার সংসর্গে পরম পবিত্র হইল। এই পুষ্প কখনও স্নান হয় না এবং একবৎসরকাল অভিমত গন্ধ প্রদান করিয়া থাকে । ইচ্ছা করিলে ইহা হইতে শৈত্য ও উষ্ণতা প্রভৃতি লাভ করিতে পারা যায় । এই পুষ্পের নিকট যে কোন গন্ধ অভিলাষ করিলে তৎক্ষণাৎ তাহ পাওয়া যায়। ইহা সৌভাগ্যের আধার ও ধাৰ্ম্মিকজনের ধর্মগ্রদ। এই পুষ্পধারণ করিলে অশুভ মতি থাকে না। যেখানে এই পুষ্প থাকে, তথায় কোনরূপ দুৰ্গন্ধ থাকে না এবং সদগন্ধে দিকৃ সকল আমোদিত হয় । যে গৃহে ইহা থাকে, তথায় অালোকের প্রয়োজন হয় না । এমন কি ইহার নিকট যাহা প্রার্থনা করা যায়, অবিলম্বে তাহাই প্রাপ্ত হওয়া যায়। এই পুপ এক বৎসরের অধিক কাল কাহারও নিকটে থাকে না। শচী প্রভৃতি সকলেই ইচ্ছ। ধারণ করিয়া থাকেন, এক বৎসর পরে ইহা আবার স্বীয়বৃক্ষে সংলগ্ন হুইয়া যায় । নারদ এইরূপে এই পুষ্পের গুণানুকীৰ্ত্তন করিতেছেন, ইত্যবসরে সত্যভামার এক দাসী কৃষ্ণ রুক্মিণীকে পারি জাত পুষ্প দিয়াছেন এই কথা সত্যভামাকে গিয়া কহিল । সত্যভামা এই সংবাদে শোক ও লজ্জায় অভিভূত কইলেন, তখন তাহার অতিশয় ক্রোধ হইল । তিনি ক্রোধে অধীর হইয়। রোষাগারে অৰস্থান করিতে লাগিলেন । তথন ভগবান কৃষ্ণ ইহা জ্ঞাত হইয়া সত্যভামার নিকট গমন করি লেন এবং তাহাকে নানা প্রকারে সাস্বনা করিয়া কহিলেন, ' এই বৃক্ষ স্বৰ্গ হইতে অনিয়া তোমার দ্বারে স্থাপন করিয়া দিব। শ্ৰীকৃষ্ণ এই কথা বলিলে সত্যভামার ক্রোধ অপনীত হইল। তথন নারদ সেই স্থলে উপস্থিত হইয়া এই পারিজাত বৃক্ষের উৎপত্তির বিষয় এইরূপ বলিয়াছিলেন । কোন সময়ে মরীচিনন্দন কগুপ অদিতির প্রতি প্রীত হইয়া ৰর গ্ৰহণার্থ তাহাকে অসুমতি করেন । তথন অদিতি কহিলেন, আমাকে এইরূপ বর দিন, যাহাতে আমি অভিমত ভূষণে ভূষিত হইতে পারি এবং চিরদিন স্থিরযেীবন হইয়া পতিপরায়ণ ও ধৰ্ম্মশীল থাকি ও রোগশোকাদিদ্বারা যেন অভিভূত স! হই । আমার ইচ্ছামাত্রেই নৃত্য গীত আরম্ভ হয়। ফলতঃ যাঁহাতে আমার সৌভাগ্যলক্ষ্মী বন্ধিত হয়, আমাকে সেইরূপ ৰর দিন । তখন তপোনিধি কগুপ অদিতির প্রিয় কামনা করিয়া সর্গকাম্প্রদ ত্রিশাখ পরম মুদৃপ্ত পারিজাত নামে এক বৃক্ষ স্বই করিলেন। এই বৃক্ষে সকলপ্রকার পুষ্পই দেখিতে ....--ബ পাওয়া যায়। উহার একশাখায় পারিজাত পুষ্প, অষ্ট শাখায় পদ্ম এবং অপর শাখায় ভিন্নরূপ বহুবিধ পুষ্প প্রস্ফুটিত হইয়া থাকে । এইরূপে পারিজাত বৃক্ষের উৎপত্তি হইয়াছে। ঐ বৃক্ষ গঙ্গার পরপারে জম্মিয়াছিল এইজন্ত উছার পারিজাত নাম হইয়াছে। মন্দারপুষ্পও উহাতে প্রস্ফুটিত হয়, এই কারণে উছার আয় এক নামও মন্দার । এই বৃক্ষ সৰ্ব্বত্র কোবিদার, পারিঞ্জাত ও মন্দার এই তিন নামে প্রসিদ্ধ । নারদ এইরূপে পারিজাত বৃক্ষের বিষয় বলির স্বর্গে যাইৰার জঙ্গ অনুমতি চাহিলে ভগবান শ্ৰীকৃষ্ণ তাহাকে কহিলেন, আপনি স্বর্গে যাইতেছেন, ইন্দ্রের নিকট বলিয়া কছিয়া আমার জন্ত পারিজাত বৃক্ষ লইয়া আসিবেন । ইস্ত্রকে বিশেষ করিয়া ধরিলে তিনি ইহা দিতে বোধ হয় অসন্মত হইবেন না । তামি সত্যভামার নিকট প্রতিজ্ঞা করিয়াছি যে, তাহাকে এই বৃক্ষ আনিয়া দিব । আমি কখনও মিথ্যা কহি নাই, যাহাতে আমার বাক্য মিথ্যা না হয় তাহা করিবেন । আপনার অত্যাশ্চর্য্য প্রভাব, আপনি চেষ্টা করিলে নিশ্চয়ই আমি এই বৃক্ষ প্রাপ্ত হইতে পারিব। আ ম তাহার কনিষ্ঠ ভ্রাত, আমার এ প্রাথন তিনি কোনরূপেই অগ্রাহ করিতে পরিবেন না । নীরদ শ্রীকৃষ্ণের এই কথা শুনিয়া কহিলেন, আমি ইন্দ্রের নিকট হইতে এই বৃক্ষ আনিবার জন্য বিশেষ চেষ্টা করিব। কিন্তু তিনি ইহা দিতে বোধ হয় স্বীকৃত হইবেন না, কারণ পুৰ্ব্বে এই বৃক্ষ নষ্ট হইলে দেবতা ও দানবগণ একত্র মিলিত হইয়া পৰ্ব্বতোত্তম মন্দরগিরিকে জলধিজলে নিক্ষেপ করিয়া মন্থন করিতে অtয়ন্ত করিলে ঐ পারিজাত বৃক্ষ সমুখিত হয়। তৎকালে মহাদেব উহাকে মন্দরগিরিতেই আরোপণ করিবার জন্ত দূত প্রেরণ করেন । সেই সময় ইন্দ্র শঙ্করের নিকট উপস্থিত হইয়া এই বৃক্ষট প্রার্থনা করিয়া লন । সেই অবধি ঐ বৃক্ষ ইক্সাণীর ক্রীড়াবৃক্ষরূপে রহিয়াছে। উমাপতি উমার মনোরঞ্জনের জন্ত মনার-কন্দরে দুইশতক্রোশ বিস্তৃত স্থানে অতি বিস্তীর্ণ এক পারিজাত বনের স্বষ্টি করিলেন । ঐ বন এরূপ নিবিড় হইয়া উঠিয়াছে যে, তথায় চন্দ্র ও স্বর্য্যের আলোক পর্যস্ত প্রবিষ্ট হয় না, এমন কি সদাগতির গতিও রুদ্ধ হইয়াছে। সেই স্থলে শীত বা উষ্ণের প্রভাব নাই। মহাদেবের তেজঃপ্রভাবে সেই বন স্বয়ং প্রভাশালী হইয় শোভা পাইতেছে। সেই পারিজাতবনে প্রমথগণের সহিত মহাদেব এবং আমি ভিন্ন আর কাহারও প্রবেশের অধিকার নাই। এখানে পারিজাততরুগণ প্রমথগণের অভিলষিত রত্ব সকল প্রদান করিতেছে । ঐ সকল রত্নাদি প্রমথগণই উপভোগ করিয়ু থাকে । সে পারিজাজ