পাতা:বিশ্বকোষ একাদশ খণ্ড.djvu/৩৭৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাশ্চাত্যদর্শন য়ের মীমাংসাস্থলে দেকার্ট বলিয়াছেন যে কারণের তারতম্যtঞ্জসারে কার্যের তারতম্য হইরা থাকে, সুতরাং ঈশ্বর অনাদি, অনন্ত, সম্পূর্ণ, এইরূপ জ্ঞানের মূল অনাদি, অনন্ত এবং সম্পূর্ণ ঈশ্বর ব্যতীত আর কোন বস্তু হইতে পায়ে না। ঈশ্বরজ্ঞান ঈশ্বরের অস্তিত্ব স্বচনা করিয়া দিতেছে, এই জ্ঞান স্বপ্রকাশ। দেকার্ট উপরিউক্ত যে কয়ট যুক্তি অবলম্বন করিয়া ঈশ্বরের অস্তিত্ব লপ্রমাণ করিয়াছেন, তাহাকে সাধারণতঃ অণ্টেtw.f&#<şrtət «t w«itwsvtor qfə# (Ontological arguments) বলা হইয় থাকে । ঈশ্বরের অস্তিত্ব হইতে দেকার্ট বাহ্যজগতের অস্তিত্ব সপ্রমাণ করিয়াছেন। দেকার্ট বলেন, যিনি সম্পূর্ণ জীব, তিনি নৈতিক হিসাবেও সম্পূর্ণ, সুতরাং তিনি আমাদের মনে ভ্রমের অবতারণা করিয়া দিবেন না। ঈশ্বর আমাদিগের যে কোন জ্ঞান ও বিশ্বাস জন্মাইয়া দিয়াছেন, তিনি নৈতিক হিসাবে সম্পূর্ণ বলিয়। এই জ্ঞান কখন মিথ্যা হইতে পারে না । বtহাজগতের অস্তিত্বে বিশ্বাসও দেকার্টের মতে এই শ্রেণীর, সুতরাং ইছাও মিথ্যা হইতে পারে না । দেকার্ট ঈশ্বরের এই স্বাভাfor friëtter "itst# tafss-faël” (Veracity of God) বলিয়াছেন । ঈশ্বর আমাদের মনে বাহ্যজগতের জ্ঞানের উদয় করিয়া দিয়াছেন, সুতরাং দেকার্টের মতে এই জ্ঞান মিথ্যা হইতে পারে না। তবে ভ্রমের উৎপত্তি কিরূপে হইল, এই তত্ত্বপ্রসঙ্গে তিনি বলিয়াছেন, অজ্ঞান এবং আমাদের মানসিক wfwefèì3 w~¡èwł (Want of clearness and distinctuess ) হইতে ভ্রমের উৎপত্তি হইয়াছে। সত্যাসত্যের ইহাই আদর্শ—মনের যে ভাবটী যে পরিমাণে স্পষ্ট, তাহ সেই পরিমাণে সত্য। আমাদের মানসিকবৃত্তিগুলি আমাদিগকে সত্য হইতে বঞ্চিত করিবার অভিপ্রায়ে ঈশ্বর স্বষ্টি করেন নাই। মানসিক ভাবগুলির পরস্পর সংমিশ্রণহেতু স্পষ্টত্বের হ্রাস হুইয় ভ্রমের উৎপত্তি হইয়া থাকে। বাহ্যজগতের অস্তিত্ব প্রতিপন্ন করিয়া বাহাজগতের স্বরূপ কি, এই সম্বন্ধে দেকার্ট বলেন যে বিস্তৃতি (extension) বাহ্য জগতের প্রকৃতিগত বিশেষ লক্ষণ। বাহ্য পদার্থের বর্ণ অtঙ্কতি প্রভৃতি গুণ অস্থায়ী ; কিন্তু বিস্তৃতির স্থায়িত্ব বা নাশের সম্ভাবন নাই। বিস্তৃতি ( extensiou ) জড়ের স্বরূপ লক্ষণ বলিয়, দেকার্টের মতে জড়পদার্থবিহীন স্থান ( vacuum or empty space) জগতে নাই। যেখানে বিস্তৃতি অাছে, সেখানে জড় পদার্থও বিদ্যমান অাছে। সুতরাং দেকার্টের মতে সমগ্র জগৎ সবচ্ছেদবিহীন জড় রাশিতে পরিপূর্ণ। সেইজন্স [ ૭૧૪ J পাশ্চাত্যদর্শন cनकों भब्रमभू नामक क्रूज क्रूज छड़रिन्नन्प्रब्र अखिच अत्रैौकांब्र कब्रिब्राहइन । किरू नमक जग९ बनि छज्जब्राणिcठ পূর্ণ থাকে,তাহ হইলে গতি (movement) কিরূপে সম্ভব হয়? এই প্রশ্নের উত্তরে দেকার্ট বলিয়াছেন যে জগংস্থ এই সমুদ্রোপম জড়রাশি আবৰ্ত্ত (Wortex )-বেগে ঘুরিতেছে এবং এই অাবৰ্ত্তসমুহই জাগতিক গতি সকলের কারণ, গ্রন্থ উপএহাদি এই আবর্ববেগে চালিত হইতেছে। দেকার্টের মতে এই গতিশক্তি জড়ে আপন হইতে উদ্ভূত হয় নাই, অপর কোন শক্তি কর্তৃক নিয়োজিত হইয়াছে মাত্র ; ঈশ্বরই আবর্তযোগে জড় পদার্থে গতিশক্তি প্রদান করিয়াছেন । বিস্তৃতি যেমন জড়ের স্বরূপ লক্ষণ, তাপ জ্ঞান (thought) বা সন্ধিৎ বা চৈতষ্ঠ মনের স্বরূপ লক্ষণ, কিন্তু চৈতন্ত (thought) s forso (extension) to costa Two ate ; যাহা চৈতন্ত তাহ ব্যাপক পদার্থ নহে ; ব্যাপক পদার্থও চৈতন্তের স্বরূপ নহে। মুতরাং, মন ও জড় এই দুই বিভিন্নপ্রকৃতিক পদার্থের সম্বন্ধ কি প্রকারে সাধিত হইয়াছে ? দে কীর্টের মতে মস্তিষ্কের সাহায্যে শরীর ও মনের সুতরাং জড় ও মনের সম্বন্ধ অর্থাৎ পরস্পরের উপর ক্রিয়া প্রতিক্রিয় স্থাপিত হইয়াছে। মস্তিষ্কের কেন্দ্রস্থানে "পনিয়াল গ্লাগু’ (pineal gland) নামক একটা স্থান আছে, এই স্থানে মস্তিষ্কের দুই ভাগ পরম্পর সংযুক্ত হইয়াছে, দেকার্ট বলেন এই পিনিয়াল-গ্লাওেই মনের সহিত শরীরসংযোগ সাধিত হয় । মনে কোনরূপ ইচ্ছার উদয় হইলে, সেইট উক্ত স্থানে আসিয়া শারীরিক চেষ্টায় পর্যবসিত হয়, আবার বাহাশরীরের উপর আপন আপন ক্রিয় প্রকাশ করিল, শরীরের সেই ব্যাপারট পিনি- , য়াল-মাণ্ডে নীত হইয়া সেই বাহ্য বস্তুর জ্ঞান ও তদীয় ক্রিয়াজনিত মুখ দুঃথের জ্ঞান জন্মাইয়া দেয়। মন ও জন্ধের পূৰ্ব্বোক্ত এই একমাত্র সম্বন্ধ ব্যতীত্ত আর কোন সম্বন্ধ নাই, এই দুইট সম্পূর্ণ বিভিন্ন প্রকৃতিক *नार्थ dद९ निख निख निम्नमांप्रमांtग्न फ्रांशिऊ श्हेंब्रl थांरक । সেইজন্ত দেকার্ট জড় প্রকৃতির কার্য্যাৱলীতে কোন মাধ্যাত্মিক শক্তি(Spiritual agency) স্বীকার করেন না । জাগতিক সমস্ত ব্যাপারই জড় প্রকৃতির নিয়মানুসারে ( Mechanical laws ) সাধিত হইতেছে এবং জড় জগৎ অক্ষশক্তিসমূহের নিয়োগস্থল ( automatou )-বিশেষ। জীব শরীর জড় জগতের অন্তর্গত বলিয়া, দেকার্ট তাঁহাকেও এই শ্রেণীর অন্তর্গত ধরিয়াছেন। দেকার্টের মতে প্রাণ জড়প্রকৃতির অংশ বিশেষ, মনের সহিত ইহার শেষ কোন সম্বন্ধ নাই ; স্বতরাং প্রাণ রক্ষাৰ যে সকল শারীরিক ক্রিয়া সাধিত হয়, তৎসমুদয় মনের অজ্ঞাত,