পাতা:বিশ্বকোষ একাদশ খণ্ড.djvu/৭১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


بیبیبیسی शूद्रांभ (रैङम ७ ब्रिकेटमशि ) [ নরের শুভাশুভ লক্ষণ-নিরূপণ, অনস্তর বসুদেবের তিলবন্তপুরে গমন ও তথায় রাক্ষসবধানস্তর পঞ্চশত ককার পাণিগ্রহণ, পরে বহুদেবের বেদসাম নামক পুরে গমন ও কপিলশ্রুতি নামক রাজাকে হত্যাপূর্বক তৎকস্ত কপিলার পাণিগ্রহণ, তাহার গর্ভে কপিল নামক পুত্রজন্ম, অনস্তর বসুদেবের শালিগুহাপুরী-জয়পুর-ভত্রিলপুর-ইলাবদ্ধনপুরে গিয়া তথাকার রাজকুমারীগণের পাণিগ্রহণ। ২৫-২৮ ইলাবৰ্দ্ধনপুররাজ দধিমুখসহ বসুদেবের সংবাদপ্রসঙ্গে কৌরববংশীয় কীৰ্ত্তবীৰ্য্যের কামধেনু নিমিত্ত জমদগ্নিবধ, পরে পরশুরামের হস্তে কীৰ্ত্তবীৰ্য্যের নিপাতন, পরশুরাম কর্তৃক সপ্তবার পৃথিবী-নিক্ষত্রিয়-করণ, গর্ভবতী কাৰ্ত্তবীৰ্য্যাজুনমহিষীর জামদগ্ন্যভয়ে কৌশিকমুনির আশ্রমে পলায়ন, তথায় স্বভৌম নামক পুত্ৰজন্ম, স্বভৌম কর্তৃক চক্রে জামদগ্ন্যের শিরচ্ছেদনপূৰ্ব্বক ত্রিসপ্তবার পৃথিবীকে অব্রাহ্মণকরণ, মদনবেগার সহিত বসুদেবের বিবাহ, তদগর্ভে অনাবৃষ্টি নামক পুত্রঞ্জন্ম, মদনবেগার রূপধারিণী সুর্পনখায় বসুদেবকে ছরণ পূৰ্ব্বক অন্তরীক্ষে গমন, ভদ্রাসাহায্যে তাঁহার পরিত্রাণ, কভাপুরে গমনপূৰ্ব্বক বেগবতী নামী বিদ্যাধরকুমারীর পাণিগ্রহণ, তৎপ্রসঙ্গে নমিবংশজাত বিদ্ধ দংষ্ট্রের বৃত্তান্ত, বিদেহনগরবাসী সঞ্জয়ন্ত নামক মুনিচরিত, শ্রাবস্তীপুররাজ এণীপুত্রের কন্য প্রিয়ঙ্গুমুন্দরীকে বিবাহ করিবার ইচ্ছায় বসুদেবের তাছার বাহ্যোদানে গিয়া অবস্থান, তথায় বিপ্রমুখে মুগধবজ-মহিষীর উপাখ্যানপ্রসঙ্গে নাস্তিক ও একান্তবাদী অলকাপুররাজমন্ত্রী হরিশ্মশ্রীর বিবরণ শ্রবণ । ২৯-৩২ শ্রাবস্তীনগরে কামদেবগৃহ নামক জৈনমন্দিরের নামকরণপ্রসঙ্গে কামদত্তশ্রেষ্ঠ কর্তৃক স্থাপিত রতিকামপ্রতিমাবৃত্তান্ত, কামদত্তের পুত্র কামদেব তৎকস্তা বন্ধুমতী ; প্রত্যহ কামদেবগৃহে গমনপূৰ্ব্বক বসুদেবের রতিকামের পুঞ্জ ও সস্তুষ্ট কামদেব কর্তৃক বসুদেবকে বন্ধুমতীসম্প্রদান, এই বৃত্তাস্ত শুনিয়া এণীপুত্ররাজকন্যার বসুদেবপ্রতি আমুরক্তি, পরে তাহার সহিত বসুদেবের বিবাহবর্ণন, পরে স্লেচ্ছরাজকন্য। জরীর পাণিগ্রহণ ও জরণকুমার নামক পুত্রোৎপাদন, অরিষ্টপুররাজকন্যা রোহিণীর স্বয়ম্বর, স্বয়ম্বরসভায় সমুদ্রবিজয়-জরাসন্ধাদি বহু রাজার আগমন, বসুদেবের ভ্রাতৃবেশে তথায় উপস্থিতি, তাহার কণ্ঠে রোহিণীর বরমাল্যদান, তাহাতে সমুদ্রবিজয়াদি রাজগণসহ বসুদেবের তুমুল যুদ্ধ, বসুদেবের জয়লাভ, বসুদেবের পরিচয় পাইয়া সমুদ্রবিজয়,কর্তৃক ভ্রাতাকে আলিঙ্গন, রোহিণীর গর্ডে রামের জন্ম, রাঁম ও ভাৰ্য্যসহ বসুদেবের সাকেতনগরে আগমনমহোৎসধবর্ণন। ধতুবিদ্যাবিশারদ সশিষ্য কংসাদিসহ বসুদেবের জরাসন্ধজয়ার্থ রাজগৃহে গমন, "যে জীৰিত কুষ্ট্ৰীয় ধরিয়া আনিতে পরিবে, তাছাকেই কন্যা দিব 8 () یا (نیری १०१ ] পুরাণ (জৈন অরিষ্টনেসি ) -- এইরূপ সিংহপুররাজ সিংহরণের ঘোষণা-শ্রষুণে বঙ্গদেবের কংস প্রতি ধীরপতাকা-ধারণে আদেশ, গুরুর আদেশে কংস কর্তৃক সংহরগবন্ধন ও জরাসন্ধপুরে নিক্ষেপ, কংসের জন্মবৃত্তান্ত, কোশাৰীবাসিনী এক মদ্যকারিণীর যমুনা প্রৰাছে মঞ্চামধ্যে কংসপ্রাপ্তি, অপত্যনির্বিশেষে প্রতিপালম, জরাসদ্ধের সেই মঞ্জুমা-আনয়ন ও মধুৰাসংলগ্ন লিপিপাঠে কংসকে উগ্রগেন ও পদ্মাবতীর পুত্র বলিয়া অবধারণ, জরালব্ধ কর্তৃক কংসকে স্বকনা জীবদ্যশ প্রদান, কংসের মথুরায় আগমন ও স্বপিতা উগ্রসেনকে কারাগারে নিক্ষেপ করির রাজ্যগ্রহণ, পরে বসুদেবকে আনিয়া গুরুদক্ষিণস্বরূপ দেবকী নারী আপন ভগিনীকে সমর্পণ। বস্তুদেবপুত্ৰহন্তে পতিপুত্রের মৃত্যু হইবে ইত্যাদি কংসপ্রতি জরাসন্ধকুমারীর উক্তি, তাহ শুনির বসুদেবের নিকট প্রতারণাপূর্বক প্রস্থতিসময়ে দেবকীকে নিজগৃছে রাখিবার জন্য প্রার্থনা, তাহাতে বসুদেবের সন্মতিদান, দেৰকী, বসুদেব ও কংসের অগ্রজের অতিমুক্ত নামক মুনির আশ্রমে গিল্প স্ব স্ব অবস্থা নিবেদন, তথায় উগ্ৰগেনাদির জন্মাদি কথন, দেবকীর আশ্বাস, দেবকীর গর্ভজাত নৃপত্তি-দেবপাল-জনীকদত্তশক্ৰমাদি ছয়পুত্রের কংসের হন্তে অকালমৃত্যুকথন, দেবকীর সপ্তমগর্তে শঙ্খ-পদ্ম-গঙ্গালিধারীর জন্ম, তৎকর্তৃক কংসাদির বিনাশ ও পুথিবীভোগ, জিনেজ অরিষ্ঠমেমির চরিত প্রসঙ্গে মহোপবালবিধি, সৰ্ব্বতোভদ্র নামক তপোবিধি, মহাসৰ্ব্বতোভদ্র নামক তপোবিধি, ত্রিলোকসার নামক তপোবিধি, বক্সমধ্যতপোবিধি, মৃদঙ্গমধ্য, মুঙ্কজমধ্য, একাবলী, দ্বিকাবলী, মুক্তাবলা, রত্নাবলী, কনকাবলী ও সিংহনিত্রীড়িত-তপোবিধি, মেরুপংক্তি, বিমানপংক্তি, শাতকুন্ত, সপ্তসপ্তম, অষ্টাষ্টম, নবমবম, দশদশম ইত্যাদি দ্বাবিংশ পর্যন্ত তপোবিধি-কথন, অনস্তর এক কল্যাণ হইতে পঞ্চবিংশতি কল্যাণাদি নামধেয় ভাবন, ভাদ্র শুক্ল সপ্তমীতে পরিনিৰ্ব্বাণ, ভদ্রকৃষ্ণষষ্ঠীতে সুর্যাপ্রভ, ক্রয়োদশীতে চক্সপ্রভ এবং কুমার সন্তব, মুকুমার, সৰ্ব্বার্থসিদ্ধি প্রভৃতিবিধি, তদনুষ্ঠানে তীর্থঙ্করপ্রকৃতিলাভ, জ্ঞানাদি ঘটকধায় নিবৃত্তিতে বিনয়-সম্পন্নত, শীলত্ৰতরক্ষারূপ অনতিচার কথা, জন্ম-জরা-মরণাময়-মানসশারীয়-দুঃখ হইতে সংসারভয়রপসন্ধেগকথন, ইত্যাদি প্রকারে জ্ঞানযোগ, ত্যাগ, মার্গামুগাবেশ, সমাধি, বৈয়াবৃত্য, বন্ধন, অপ্রতিক্রমণ, কায়োৎসর্গ, মার্গ প্রভাবন, প্রবচন ও বৎসলতাদি লক্ষণকথন । ৩৫ ৩৭ দেবকীর যমজপুত্ৰজন্ম, যমজের স্থানে দুইটা মূতপুত্র রাখিয়া সে কুইটকে লইয়। দেবগণের অলকাগমন, ংসকর্তৃক সেই মৃতপুত্রদ্ধয়কে শিলান্তলে নিক্ষেপ, এইরূপে কংসকর্তৃক দেবকীর ঘটুপুত্রনাশ, দেবীর গুস্তস্বপ্নদর্শনপূর্বক