পাতা:বিশ্বকোষ চতুর্দশ খণ্ড.djvu/১০৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মনস্ 尊 মনঃস্থ্যৈ (ক্লী) মনস: স্থৈৰ্য্যং। মনের স্থিরতা। মনশ্চিৎ ( ) মানসে প্রতিফলিত। মনন (রী ) মন্তত ইতি মন-লুটি। অনবরত অনুচিস্তন। বেদাস্তাথের অমুগুণ যুক্তি দ্বারা অদ্বিতীয় বস্তুর অনবরত অমু চিন্তন । শ্রুতিতে লিখিত আছে, আত্মার শ্রবণ, মনন ও নিধিধ্যাসন করা কর্তব্য। শ্রীতিবাক্যামুসারে শ্রবণ, তৎপরে ঐ শ্রুতিবাক্যের পুন:পুন: চিস্তনের নাম মনন। “শ্রোতব্য: এতিবাক্যেভ্যে মন্তব্যশ্চোপপত্তিভিঃ।” ( সাংখ্যদ০ বিজ্ঞানভিক্ষু ) শ্রুতিবাক্যনুসারে শ্রবণ, তৎপরে উৎপত্তি প্রভৃতি দ্বারা উহ! মনন এবং পরে নিধিধ্যাসন করিতে হয় । ২ বোধন। “মননাং পাপতঞ্জাতি মননাং স্বগমপুতে। মননাৎ মোগমাপ্নোতি চতুৰ্ব্বগময়ে। ভবেৎ ॥”(গায়ত্রীতন্ত্র ১৪) ৩ ধারণ । ৪ বুদ্ধি। ৫ অনুমান। মনস (ক্লt ) মন্ততে বুধ্যতেইনেনেতি মন ( সৰ্ব্বধাতুভ্যোহমুন। উ৭, ৪ । ১৮৮) ইত অমুল্ম। লিঙ্গশরীরাবয়ববিশেষ। সপ্তদশ অবয়বযুক্ত সুগ্মশরীর, ইহার অপর নাম লিঙ্গশরীর। পঞ্চ জ্ঞানেন্দ্রিয়, পঞ্চ কম্মেশ্রিয়, পঞ্চ বায়ু, মন ও বুদ্ধি এই BBYK BBBBS BBB BBB BBB B SBBBBBS BBS করণবৃত্তিবিশেষ, ইহা কৰ্ম্মেন্দ্রিয়ের সহিত মিলিত হইয়। সলোময়ুকোশ হয় । "মনে নাম সঙ্কল্পবিকল্লাত্মিক অন্তঃকরণবৃত্তিঃ, মনস্তু কৰ্ম্মেঞ্জিয়েঃ সহিতং সৎ মনোময়কোশে ভধতি ।”(বেদান্তসার) গভস্থিত বালকের সপ্তম মাসে মন জন্মে। ( মুখবোধ ) মুএতের মতে পঞ্চম মাসে হই। প্রতিবুদ্ধ হয়। “পঞ্চমে মনঃ প্রতিবুদ্ধতরং ভবতি” (সুশ্রুতশারীরস্থা • ৩ অ•) পৰ্য্যায়—চিত্ত, চেতল, হৃদয়, স্বাস্ত, হৃদ, মানস, অনঙ্গক, অঙ্গ । সংখ্যা, পরিাম ৩, পৃথক্য, সংযোগ, বিভাগ, বেগ । মনোগ্রাহ স্বর্ণ, ইঃখ, ইচ্ছ, দ্বেষ, মাত ও যত্ন। ইহা পরমাণু স্বরূপ। শিরোমণিমতে বায়বীয় পরমাণু। “পরাপরত্বং সংখ্যাদ্য: পঞ্চবেগশচ মানসে । মনোগ্রাহং সুখং দু:খমিচ্ছাস্কেধে মতি: কৃতি: ॥ অযৌগপধ্যাঞ্জ জ্ঞানানাং তস্তাণুত্বমিহেযুতে।” ( ভাষাপরিচ্ছেদ ) সাংখ কারিকা মতে ইহার লগণ--- 歌 "উভয়াত্মকমত্র মন: সংকল্প কমিস্ক্রিয়ঞ্চ সাধৰ্ম্ম্যাং । ওণপরিণামবিশেষাল্লানাতুং বাহভেদাশ্চ ॥” ( সাংখ্যক ২৭ ) [ ১০৬ ] শধর । ) খায়মছে ইহার গুণ—পরত্ব, অপরত্ব, : স্পষ্ট ভিন্ন ভাব দাড়াইয়াছে। মনস্ মনে ইন্দ্রিয়ধৰ্ম্ম আছে, এই জন্ত ইহা উভয়াত্মক, অর্থাৎ মনকে জ্ঞানেন্দ্রিয় ও কম্মেন্দ্রিয় উভয়ই বলা যায়। জ্ঞামেক্রিয়ে আরূঢ় হইয়া কাৰ্য্য করে বলিয়া জ্ঞানেন্দ্রিয় এবং কৰ্ম্মেঞ্জিয়ের অধ্যক্ষ হয় বলিয়া উহাকে কৰ্ম্মেঞ্জিয় বলা যায়। মন সংকল্লাত্মক, সংকল্প অর্থাৎ বিবেচনা করা মনেরই অসাধারণ ধৰ্ম্ম । চক্ষুরাদি ইন্দ্রিয় বস্তুর সামান্ত আকারমাত্র গ্রহণ করিয়া থাকে, পরে মন তাহার বিশেষাকার নিদ্ধারণ করে। সত্ত্বগুণের পরিণাম নানা প্রকার । সত্ত্বগুণের কোন এক বিশেষ পরিণামে মনের জন্ম । “মহদtখ্যং আদ্যং কাৰ্য্যং তন্মনঃ।’’ ( সাংথ্যসু ৮ ১ । ৭১ ) প্রকৃতির যাহ। আদ্যকাৰ্য্য, প্রথম বিকাশ বা প্রথম পরিণাম তাহারই নাম মহত্তত্ব। ইহারই কাৰ্য্য মন, অথাৎ মহত্তত্ব হইতেই মনের উৎপত্তি। ইহা মননবৃত্তিক, অর্থাৎ ইহার কার্য্য মনন বলিয়াই মন নাম হইয়াছে। মনন শব্যের অর্থ নিশ্চয় । “তদন্নময়ত্বশ্রীতেশ্চ ’’ ( সাংখ্যদ• ৩ । ১৫ ) লিঙ্গশরীরের একাবয়ব মন, ইহ। অল্পময়, অর্থাৎ ভক্ষ্যদ্রব্যের পরিণামে উৎপন্ন। সাংখ্যদর্শনমতে মন জন্মপ্রবণ, সেই জন্ত ইহা ভাববিকারবিশিষ্ট । ভাবশব্দের অর্থ জায়মান বস্তু । যে যে বস্তু জন্মে, সেই সেই বস্তুরই বৃদ্ধি, হ্রাস, পরিবর্তন ও বিনাশ হয়। বস্তুর এবংবিধ পরিণামকে, দাশনিক পণ্ডিতেরা ভাববেকার শব্দে উল্লেখ করেন। আত্মা ব্যতীত, ভাববিকারগ্রস্ত নহে, এমন জন্তবস্তু অপ্রসিদ্ধ অর্থাৎ নাই । প্রাকৃতিক কাৰ্য্য নিতান্ত দুৰ্ব্বোধ্য। মনই জাগতিক সমুদায় পদার্থের কেবল একমাত্র পরীক্ষক, কিন্তু মনের পরীক্ষক কে ? চিস্ত করিতে গেলে মোহ উপস্থিত হয় । যদি বল, মন আপনিই আপনার পরীক্ষক, একথাও সঙ্গত নহে, কারণ আপনি আপনার প্রমাণ, আপনি আপনার পরীক্ষক বলা আর আপনি আপনার স্কন্ধে আরোহণ করিতেছি বলা তুলা কথা । মন কি ? তাহার স্বরূপ কি ? শক্তি কি এবং সংস্থানই বা কিরূপ ? মনের উপর এ সকল নির্ণয়ের ভারাপণ করিতে গেলে আপনি আপনার স্কন্ধারোহণ করার দোষ মনের উপর নিক্ষেপ করিতে হইবে। চক্ষুরাদি ইন্দ্রিয়বিশিষ্ট বুদ্ধি, যাহার যেরূপ আকার, যাহার যেরূপ গুণ, তত্ত্বাবতের সুস্পষ্ট জ্ঞান জন্মায় না, একমাত্র মনই বিশিষ্ট বুদ্ধির জনক । এই কথা স্থির থাকিলে মনের পরীক্ষক দুর্লভ হইয় পড়ে। ইহাতে কপিল বলেন,--সামান্স প্রণিধান করিলেই দেখিতে পাওয়া যাইবে । যখন আত্মার ও মনের বিষয় চিন্তা করা যায়, তখনই দেখা যায়, মন ও আত্মার র্যাহারা বলেন, মন ও আত্মঃ