পাতা:বিশ্বকোষ চতুর্দশ খণ্ড.djvu/১৭০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মন্দার উপর অতি উৎকৃষ্ট বাণিল লাগান যায়। ইহা স্বারা বাস্ক খেলনা ইত্যাদি প্রস্তুত হইয় থাকে। অপরস্তু ইহ জালানি কাষ্ঠরূপে ব্যবহৃত হয় । মন্দার কাঠ দিয়া ব্যবহারোপযোগী অনেক বাসন প্রস্তুত হইয়া থাকে। বাঙ্গালার এবং দক্ষিণভারতে পাণের গাছ এবং মরিচ গাছে ঠেকে। দিবার নিমিত্ত ইহা রোপিত হহয়! থাকে। এতडिग्न ऐश वांद्रा यांश्८िब्रञ्च cदङ्गl cम७ग्ना श्छ । ওপূ—ইহার ছাল অনেক ঔষধে ব্যবহৃত হয়। ইহা পিত্তনিবারক ও জরনাশক । চক্ষু উঠিলে ইহার কজ্জল-ব্যবহার উপকারক। ইহার রস কৃমিনাশক ও বিরেচক। ডাক্তার কানাইলাল দে মহোদয় বলিয়াছেন যে, ইহার পাতা বাঘীতে দিলে ফাটিয়া যায় এবং সন্ধিস্থলের বেদন নাশ করে। ছালের ভিতরের দিকে রস পরিপূর্ণ থাকে, ইছ অগ্নিশিখার উপর ধরিলে এক প্রকার কজ্জল প্রস্তুত হয়, তাহ। চক্ষুতে লাগাইলে জলপড়া ভাল হইয়৷ থাকে। ইছার টাটুক। রস কাণ-কামড়ানি এবং দাতের গোড়া-ব্যথায় বিশেষ ফলপ্রদ। এতদ্ভিন্ন আরও অন্তান্ত রোগে ইহার প্রয়োগ দেখিতে পাওয়া যায়। ২ হস্ত। ৩ অর্কবৃক্ষ, আকন্দ। ৪ ধূৰ্ত্ত, ধুতরাগাছ। ৫ হস্তী । ও স্বর্গ। ৭ হিরণ্যকশিপুর পুত্রভেদ । ৮ একজন বিদ্যাধর । ৯ পৰ্ব্বতভেদ, মন্দয়গিরি । ১• বিন্ধ্যশৈলস্থ পুণ্যক্ষেত্রভেদ, এখানে একাদশটী কুও আছে। বরাহপুরাণে এই পুণ্যাশ্রমের মাহাত্ম্য সবিস্তার বর্ণিত হইয়াছে,—তাহার সংক্ষেপে পরিচয় দিতেছি— বিন্ধ্যশৈলে মম্বারের ফুল ফুটিলে ভগবান আসিয়া খেলা করিতেন। তাহার প্রভাবে গিরিক্ৰোড়ে একাদশট কুণ্ড বাহির হইয়াছিল। এখানে মনোহর শিলাতলে মন্দরমূলে ভক্তগণকে অসুগ্ৰহ করিবার জন্তু ভগবান অবস্থান করেন। তথায় দেখিতে পাহবে, দ্বাদশী ও চতুর্দশীর দিন মধ্যাহকালে মন্দারকুমুম ফুটিয়াছে, আর কোন দিন এমন পুষ্পোদগম দেখিতে পাইবে না। এখানে মন্দারকুও আছে। এই কুণ্ডে দান করিয়া একাহায়ে থাকিলে পরমাগতি লাভ হয়। এখানে মরণ ঘটিলেও লোক বিষ্ণুলোকে বাস করিয়৷ থাকে। এই কুণ্ডের উত্তর পাখে প্রাপণ নামক গিরি, তাহ। হইতে তিনটী ধারা দক্ষিণমুখে পতিত হইয়াছে, তন্মধ্যে যে ধারা দক্ষিণে পতিত হইয়। উত্তরমুখে প্রবাহিত, তাহার নাম प्रांमकू७, ऊांशग्न नमिc१ नभएथोड: ७कफ़ी भशङ्कन । मनांप्प्रब्र পূৰ্ব্বে এক গুহকোটয় অবস্থিত, তাহা হইতে মুসলধারে একটা খায়৷ পতিত হইতেছে। তাছার দক্ষিণদিকে শিলো [ >१० j মন্দারিন চ্চয় হইতে পাচট ধার বাহির হইয়াছে। তাহার পশ্চিম পার্শ্বে চক্রাবর্ভ নামক মহাদ্ভদ, তাহার বায়ুকোণে আবার তিনটী ধারা বাহির হইয়াছে। ইহার দক্ষিণদিকে তিন ক্রোশের ভিতর গম্ভীরক নামে একটী অগাধ মহাস্তুদ অবস্থিত । পশ্চিম পাশ্বেও সপ্তধারা বাহির হইয়া একস্থানে পড়িয়া হ্রদাকার ধারণ করিয়াছে। যে যে ধারার উল্লেখ করা হইল, তাহার প্রত্যেকটাতেই স্নান করিলে অশেষ পুণ্য হইয়া থাকে । স্বয়ং ভগবানু বলিয়াছেন, বিষ্ক্যশৈলোপরি মন্দারই আমার স্যমন্ত্রপঞ্চক। এখানে আমি অবস্থান করিয়া থাকি। ইহার দক্ষিণে অামার চক্র, বামভাগে আমার গদা, এবং অগ্রভাগে যথাক্রমে লাঙ্গল, মুসল, ও শঙ্খ রহিয়াছে * মন্দারপুষ্প (ক্লী) মদারের ফুল, মাদার ফুল। মন্দারমাল। ( স্ত্রী ) ১ মন্দার ফুলের মাল৷ “আমৃঃবক্ষেহরিচন্দনাঙ্ক। মন্দারমাল হরিণ। পিনদ্ধ ॥” ( শকুন্তলা ৭ অঙ্ক ) ২ বসুর কন্ত এক বিদ্যাধরভাৰ্য্যা । মন্দারষষ্ঠী ( স্ত্রী ) মাঘমাসের শুক্লাষষ্ঠ । মন্দর সপ্তমী (স্ত্রী) মাঘমাসের শুক্লাসপ্তমী। এই দিন মন্দারমগুমী ব্ৰত করিতে হয়, তদ্বিবরণ ভবিষোত্তরপুরাণে বিবৃত হুইয়াছে। মন্দারিত। (স্ত্রী) ১ মন্দের প্রতি ঘৃণা । ২ মন্দার-বৃক্ষশালিত। মন্দারিন (ত্ৰি ) মন্দারবৃক্ষযুক্ত। মন্দারিন, চীনদেশীয় কৰ্ম্মচারিবিশেষের উপাধি। মন্দারিন্‌ শব্দটা পর্তুগীজ ভাষার মন্দর (Mandar) শব্ধ হইতে উৎপন্ন। “মন্দর’ শব্দের অর্থ শাসন করা। বাস্তবিক পক্ষে মন্দারিন শব্দ সংস্কৃত মঞ্জিন শব্দের অপভ্রংশমাত্র । মালয়ে মনারিন্‌ শব্দে উচ্চ শ্রেণীর কৰ্ম্মচারী বুঝায়। ব্ৰহ্মদেশের প্রত্যেক নগরে একজন করিয়া ডেপুটী আছে, তাহাকে মন্দারিন বলা হইয়া থাকে। ‘মনারিন ভাষা চীনদেশে প্রচলিত । চীনদেশের কৃতবিদ্য ব্যক্তির এবং উচ্চপদস্থ কৰ্ম্মচারীরা এই ভাষা ব্যবহার করিয়া থাকেন। তথায় এই ভাষা কুয়ান স্থয়া ( Kuan hua ) নামে অভিহিত হয় । অন্তান্ত ভাষা অপেক্ষা ইহার অক্ষর সংখ্যা সৰ্ব্বাপেক্ষা অল্প ।

  • "স্যমন্ত্রপঞ্চকঞ্চৈৰ মন্দারস্য গিরেী মম।

অত্র তিষ্ঠামি মুখ্রোণি! বিন্ধ্যস্য গিরিমুর্জনি। মঙ্গারে পরমং গুহ্যং তস্মিন গুহ শিলোচ্চয়ে ॥ জক্ষিণে সংস্থিতং চক্ৰং বামে স্থানে চ বৈ গদ । লাঙ্গলং মুসলকৈৰ শৰং তিষ্ঠতি চাগ্রত: " ( বরাহপুরাণ) 聯