পাতা:বিশ্বকোষ ত্রয়োদশ খণ্ড.djvu/১২৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ব্রহ্মঘাতক 創

“ততন্তু নীলকুটাধ্যং কামাখ্যানিলয়ং পরম্। তংপুৰ্ব্বভাগে বসতি ব্ৰহ্মা ব্রহ্মগিরিং পুনঃ ।”

  • ( কালিকাপু• ৮১ অe ) ত্রগগিরি, মাঙ্গাজ প্রেসিডেন্সীর মলবার জেলার অন্তর্গত একটা গিরিশ্ৰেণী। সমুদ্রপৃষ্ঠ হইতে ইহার উচ্চতা প্রায় H৫ • • ফিট । দীবণীবেট্রা নামক ইহার সৰ্ব্বোচ্চ শিখর ৫২৭৬ ফিট উচ্চ। অক্ষা- ১৯৫৬ উঃ এবং দ্রাঘি• ৭৬, ২ পূঃ। ইহার চারি পাশ্ব বনজঙ্গলে পূর্ণ। এই বনান্তরাল হইতে কাবেরী নদীর পাপনাশিনী, বলরপত্তন ও লক্ষ্মণ তীর্থ, নামক শাখার পূর্বাভিমুখে এবং বড়পোলে নামক নদী উত্তরপশ্চিমে ঘুরিয়া পেরাম্বাড়ি গিরিসঙ্কট অতিক্রমপুৰ্ব্বক সমুদ্রে আলিয়া পড়িয়াছে । ব্রহ্মগীত (স্ত্রী ) ব্রহ্মণ: গীত। ৬ তং । মহাভারতের অমু

শাসন পর্কে ব্ৰহ্মকর্তৃক কথিত অনুশাসন রূপ গাথা। “দমাধ্যায়নিরতা: সৰ্ব্বান কামানযাপৃষ্ঠথ। যচ্চৈব মানুষে লোকে যচ্চ দেবেযু কিঞ্চন ॥ সৰ্ব্বং তু তপসা সাধ্যং জ্ঞানেন নিয়মেন চ। হত্যেকং ব্রহ্মগীতাস্তে সমাখ্যাত ময়াইনঘ ॥” ( ভারত অনুশাসনপদ ৩৫অ• ) ২ শিবপুরাণের অন্তর্গত স্থানখণ্ডের ৬ হইতে ৯ অধ্যায় পর্যাস্ত, যে বিভাগে বেদান্ত ও যোগশাস্ত্রের অবতারণা হইয়াছে। ব্রহ্মগীতিকা (স্ত্রী) ব্ৰহ্মার স্তুতি বা গীত। তমুদ্রগুপ্ত ( পুং ) ১ বিষ্ঠাধর-ভীম পড়ার গর্ডে ব্রহ্মার ঔরস জ্ঞাত পুত্রভেদ । ( কথাসরিৎসা ৪৬৷৬১ । ২ জনৈক জ্যোতিবিদ, অনুমান ৫৯৮ খৃষ্টাব্দে জন্মগ্রহণ করেন। ইহার রচিত ব্রহ্মসিন্ধান্ত পাওয়া যায়। ৩ ভক্ত সম্প্রদায়ের জনৈক গুরু । ব্রহ্মগুপ্তীয় ( পুং) ব্রহ্মগুপ্তবংশোদ্ভব রাজপুত্র। ব্রহ্মগোল (পুং ) ভূমণ্ডল। জগৎ । পৃথিবী। ব্রহ্মগৌরব (স্ত্রী) ব্ৰহ্মমহিমকুচক অস্ত্ৰাদি। ব্ৰহ্মান্ত্রের গুণ । ( ভটি ৯৭৬ ) ব্রহ্ম গ্রন্থি (পুং) যজ্ঞোপবীতের গ্রন্থিভেদ। যজ্ঞোপবীত এান্থি দিয়া ধারণ করিতে হয়। ব্রহ্মগ্রহ (পুং) ব্রহ্মরাক্ষস। যিনি পরমপবিত্র বস্তু পাইতে ইচ্ছুক। ব্রহ্মগ্রাহিম (ত্রি ) পবিত্র পরমপদাৰ্থ বা ব্ৰহ্মাৰ্থলাভের উপযুক্ত । ( কৌশিকোপনিষৎ ১১ ) ব্রহ্মঘাতক (পুং) ব্রাহ্মণং বিগ্ৰং হস্তি হন-ল। ব্ৰহ্মহত্যা- 郊 কারক (ত্রি) ব্যাসোঙ্ক পরিভাষিক পাপভেদযুক্ত। “পগুক্তিভেদী বৃথাপাকী নিত্যং ব্রাহ্মণনিন্দক: । জাদেশী বেদবিক্রেতা পঞ্চৈত্তে ব্ৰহ্মঘাতকাঃ। (ব্যাল ) [ ১২২ } ব্রহ্মচর্যা EEssenso পঙক্তিভেদী প্রভৃতি পঞ্চপাপী ব্ৰহ্মঘাতক নামে অভিহিত হয়। দ্বাদশীতিথিতে পুতিক ভক্ষণ করিলে ব্ৰহ্মঘাতক হয়, অর্থাৎ তত্ত্ব ল্য পাপভাগী হইতে হয়। “পুতিক। ব্ৰহ্মঘাতিক।” (তিথিতত্ত্ব ) ব্রহ্মঘাতিন (ত্রি) ব্ৰহ্ম-হন্‌ণিনি। ব্রাহ্মণহত্যাকারী। ভৃগু মুনির নামান্তর । (স্ত্রী ) দ্বিতীয় দিবসীয় রজস্বল স্ত্রী ব্রহ্মঘোষ (পুং ) বেদধ্বনি। ( ভারত ৩২৬২ ) ব্রহ্ময় ( ত্রি ) ব্ৰহ্মাণং ব্রাহ্মণং হস্তি হন-ক। ব্ৰহ্মহত্যাকারক । “ব্রহ্মমপি চণ্ডালং কঃ পতন্তং পুনীমহে ।” ( মলমাসত০ ) ন্ত্রিরাং উীয, ২ গৃহকন্ত।। ৩ ব্ৰহ্মঘাতিনী। ব্রহ্মচক্র ( ক্লী ) ব্রহ্মনিৰ্ম্মিতং চক্রং। কাৰ্য্যকারণাত্মক সংসাররূপ চক্র। জীবগণ এই সংসার চক্রে নিযুত নিষ্পেষিত হইতেছে, এইজন্য ইহাকে ব্রহ্মচক্র কহে। “সৰ্ব্বাজীবে সৰ্ব্বসংস্তে বৃহস্তে অস্মিন হংসো ভ্রামাতে ব্রহ্মচক্রে’ (শ্বেতাশ্বতরোপনি• ) ব্রহ্মচর্য্য (ক্লী ) এহ্মণে বেদাৰ্থং চৰ্য্যং আচরণীয়ং। আশ্রম বিশেষ। ব্ৰহ্মচর্যা, গার্হস্থ, বানপ্রস্থ ও সন্ন্যাস এই চারিটি আশ্রম। আশ্রম ধৰ্ম্মের মধ্যে ব্রহ্মচৰ্য্যাশ্রমই শ্রেষ্ঠ । ২ অষ্টাঙ্গমৈথুননিবৃত্তি । “স্মরণং কাৰ্ত্তনং কেলি: প্রেক্ষণং গুহাভাষণম্। সংকল্পোংধ্যবসায়শ্চ ক্রিয়ানিবৃত্তিরেব চ। এতস্মৈথুনমষ্টাঙ্গং প্রবদন্তি মর্মাষিণী ॥ (ভারবিটীক মল্লি• ১০) স্মরণ, কাৰ্ত্তন, কেলি, প্রেক্ষণ, গুহাভাষণ, সংকল্প, অধ্যবসায় ও ক্রিয়ানিবৃত্তি এই আট প্রকার মৈথুন। এই অষ্টাঙ্গ মৈথুন-নিবৃত্তিই ব্রহ্মচৰ্য্য। ইহা স্ত্রী পুরুষ উভয়েরই সাধারণতঃ জানিতে হইবে । "মৃতে ভৰ্ত্তার মাধবী স্ত্রী ব্রহ্মচর্য্যে ব্যবস্থিত। স্বৰ্গং গচ্ছত্যপুত্রাপি যথা তে ব্রহ্মচারিণ: ॥” ( মন্টু ৫১৩৯ ) ‘ব্রহ্মচর্য্যে ব্যবস্থিত অকৃতপুরুষান্তরমৈথুন’ ( কুলুক ) ৩ যমভেদ। পাতঞ্জলদর্শনে লিখিত আছে,—অহিংসা, সত্য, অস্তেয়, ব্রহ্মচৰ্য্য ও অপরিগ্রহের নাম যম । প্রথমে অহিংসা, তৎপরে সত্য ইত্যাদিরূপে ব্ৰহ্মচর্য্যের প্রতিষ্ঠা হয়। পাতঞ্জলভায্যে লিখিত আছে, "ব্রহ্মচৰ্য্যমুপস্থনিয়মঃ, বীৰ্য্যধারণং বা’ । পাতঞ্জলজশনের ভাষ্যকারের মত এইরূপ —ঘমনামক যোগাদ স.খন করিতে হইলে প্রথমে অহিংসামুষ্ঠান, তৎপরে সত্য, সেই সঙ্গে অচৌর্য্য, তৎপরে ব্রহ্মচৰ্য্য। ব্রহ্মচৰ্য্য শব্দের মূল অর্থ শুক্ৰধারণ। শরীরে যদি শুক্র ধাতু প্রতিষ্ঠিত थाटक, विङ्कङ, चनिङ वा बिक्रजिअ मा झ्द्र, चप्लेज ७ अष्ट्रल থাকে, তাছা হইলে সমস্ত বুজিয়ের ও মনের শক্তি বৃদ্ধি হয়। চিত্তের প্রকাশশক্তি বাড়িয়া যায়, রাগজ্যোদি অৱস্থিত