পাতা:বিশ্বকোষ ত্রয়োদশ খণ্ড.djvu/২৪২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভঙ্গী হইল না দেখিয় তিনি সদলে পাঠানকোট অভিমুথে অগ্রসর হইলেন। তারাসিংহ তাহার আগমন সংবাদে ত্রস্ত হইয়া স্বীয় দলপতি গুরুবক্স সিংহের সহায়ে আত্মরক্ষার চেষ্টা দেখিতে লাগিলেন। দীনানগরের সম্মুথে উভয় দলে ১• দিন ঘোরতর যুদ্ধ হয়, কিন্তু হঠাৎ গণ্ড সিংহের মৃত্যু হওয়ায় ধুদ্ধের ফলনিম্পত্তি হয় নাই। তৎপুত্র দেশাসিংহ নাবালক থাকায়, তাহার ভ্রাতৃপুত্র চরংসিংহ অধিনায়কতা গ্রহণ করেন। এই যুদ্ধে শত্রহস্তে চরংসিংহের মৃত্যু হওয়ায় ভঙ্গীদল ছত্রভঙ্গ হইয়া পাঠানকোট পরিত্যাগ করে। প্রত্যাবৃত্ত ভঙ্গীদ'ল অমৃতসর নগরে আসিয়া বালক দেশাসিংহকে আপনাদের সর্দার বলিয়া ঘোষণা করে। বীর হরিসিংহ ও ঝানাসিংহ-পরিচালিত ভঙ্গীসেনা ও সর্দারগণ বালকের অধীনতা উপেক্ষ করিয়া ক্রমে স্বাধীন হইবার চেষ্টা করিতে লাগিল । ১৭৭৭ খৃষ্টাব্দে মুলতানরাজ মুজঃফার খাঁ বিদ্রোহী হইলে দেওয়ানসিংহ বিশেষ নিপুণতার সহিত তাহ দমন করিয়াছিলেন। ইত্যবসরে আহ্মদ শাহের পুত্র তৈমুর শাহ কাবুল সিংহাসনে উপবিষ্ট হইয়া পাঞ্জাব রাজ্য উস্কারমানসে সৈন্যসজ্জা করিতে লাগিলেন । পক্ষান্তরে শিখগণ সমূহ বিপংপাতের সম্ভাবনা বুঝিয়া প্রস্তুত হইতে লাগিলেন । ১৭৭৭-৭৮ খৃষ্টাধে মুলতান প্রদেশে আফগান ও শিথসৈন্তে ঘোরতর যুদ্ধ হয়। আফগানসেনানী হাইনী খী এই যুদ্ধে বন্দী হন। শিখগণ বিশেষ নিষ্ঠুরতার সহিত র্তাহাকে তোপে উত্নাহয় দেয় । এরূপ কঠোর অত্যাচারে প্রপীড়িত ই হয়। শাহ তৈমুর পুনরায় পরবৎসর শীতকালে ভঙ্গীদিগের দমনাথ জঙ্গা থাকে প্রেরণ করেন। ঐ দুরাণী সদার যুমুফজৈ, ঘুরাণী, মোগল ও কাজলবাসদিগের সহায়তায় শিখগণকে বিপৰ্য্যস্ত করিয়া মুলতান অধিকার পূর্বক মুজাখাকে তথাকার শাসন কর্তৃপদে নিযুক্ত করেন। আফগান-বিপ্লব উপশমিত হটলে ভঙ্গীসদার দেশাসিংহ চিনিওৎ-বাসীকে দমনার্থ অগ্রসর হন । শুকোচকিয়া সর্দার মহাসিংহের সহিত কএকটা খণ্ডযুদ্ধের পর ১৭৮২ খৃষ্টাব্দে রণক্ষেত্রে তাহার মৃত্যু হয়। ভঙ্গীসদার হরিসিংহের বিখ্যাত সেনানী গুরুবক্সসিংহ fকছুকাল স্বীয় উপদ্রবাদি দ্বারা ভঙ্গী গৌরব রক্ষা করিয়াছিলেন । তাছার মৃত্যুর পর দত্তকপুত্ৰ লহনাসিংহ ও তাহার দৌহিত্র গুজরসিংহের বিরোধ উপস্থিত হয় । পরে ঐ সম্পত্তি সমানভাগে বিভক্ত করিয়া লইয়া তাহারা গৃহবিবাদের শান্তি করিয়াছিলেন। উক্ত সদারদ্বয় ঝান" ও গণ্ডাসিংহের সহযোগে যুদ্ধ বিগ্ৰহাদি করিলে ও তাহার স্ব ৩য় ভাবে যে কাৰ্য্যাদি করিয়াছিলেন, ভঙ্গী-ইতিহাসে তাহা ও উল্লেখ ধাগ্য । [. 8이 | - ভঙ্গী - আহ্মদ শাহ ভারত হতে প্রত্যাগমনকালে লাহোর নগরে কাবুলীমল্ল নামে একজন হিন্দুকে শাসনকৰ্ত্ত নিযুক্ত করিয়া যান। লহন ও গুজর সদলে লাহোর আক্রমণপুৰ্ব্বক লুণ্ঠন করেন। লাহোর অধিকারের পর তাহার উভয়ে এবং জয়সিংহের ভ্রাতুষ্পুত্র শোভাসিংহ উক্ত নগর তিন সমান অংশে ভাগ করিয়া লন । ১৭৬৫ খৃষ্টাব্দে গুজরসিংহ উত্তর পঞ্জাব অধিকারের চেষ্টায় গমন করেন । লাহোর নগরে দুই বংসর বাসের পর, ১৭৬৭ খৃষ্টাব্দে আহ্মদ শাহের শেষবার ভারতাক্রমণ সময়ে, উক্ত শিখসর্দারদ্বয়ের হৃদয় বিচলিত হইয়া উঠে, তাহারা আফগানলৈন্তের আগমনে ভীত হইয়া লাহোর পরিত্যাগ পুৰ্ব্বক পাঞ্জবার অভিমুখে পলায়ন করিলেন ; কিন্তু আহ্মদ শাহ উক্ত ভঙ্গী সর্দারদ্বয়কে লাহোরের কর্তৃত্ব অর্পণ করিয়া কাবুলবাসী হন। পরবর্তী ৩০ বর্ষ কাল তাহারা নিৰ্ব্বিবাদে লাহোর রাজধানীতে থাকিয়া শান্তিরাজ্য ভোগ করিতেছিলেন। শাহ জমান কাবুল সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হইয়। ভারত সাম্রাজ্য স্থাপনের চেষ্টায় ১৭৯৩, ১৭৯৫ ও ১৭৯৬ খৃষ্টাব্দে তিনবার উপর্য্যুপরি পঞ্জাব আক্রমণ করেন। প্রথম দুইট যুদ্ধে সফলমনোরথ ন হইলেও শেষবার তিনি লাহোর অধিকারে সমর্থ হন । ১৭৯৭ খৃষ্টাব্দে ৩রা জানুয়ারী লহনাসিংহ নগরের চাবি প্রদানপুৰ্ব্বক পলায়ন করেন । শাহ জমান প্রত্যাবৃত্ত হইলে উক্ত বৎসরেই লহন ও শোভাসিংহ লাহোর অধিকার করিয়ালম,কিন্তু অনতিবিলম্বে তাহাদের মৃত্যু হওয়ায় লহনাপুত্র চেৎসিংহ ও শোভাপুত্র মোহরসিংহ শাসন কর্তৃপদ লাভ করেন। রাজ্যশাসনে অক্ষমতা ও মদ্যপান প্রভৃতি দোষে বিজড়িত হওয়ায় তাহাদের রাজামধ্যে বিশৃঙ্খত ঘটিতে লাগিল,সুযোগ বুঝিয় বিখ্যাত শুকের্চকিয়া সর্দার রণজিৎ সিংহ লাহোর আক্রমণে সংকল্প করিলেন। ১৭৯৯ খৃষ্টাৰে তিনি অন্যান্ত ভঙ্গী-সর্দারদিগের ষড়যন্ত্রে আহূত হইয়া স্বসৈন্যে লাহোর নগরে প্রবেশ করিলে চেংসিংহ ও মোহরসিংহ পলায়ন করেন । ওদিকে ভঙ্গী-মিশূলের দলপতি দেশাসিংহের মৃত্যুর পর তদীয় নাবালক পুত্র গুলাবসিংহ ১৭৮২ খৃষ্টাব্দে পিতৃপদ লাভ . করেন। তাহার বুদ্ধিবৃত্তি বিশেষ পরিস্কট না থাকায় ভ্রাতা করমসিংহ মিশূলের সকল কাৰ্য্যই পৰ্য্যবেক্ষণ করিতেন। গুলাৰংহ প্রথমেই কহুর হস্তগত করেন, কিন্তু তাহাকে অধিক দিন উহারশাসনভার বহন করিতে হয় নাই। ১৭৯৪ খৃষ্টাব্দে কস্তুরের পাঠানসর্দার নিজামউদ্দীন খা উহা পুনরায় হস্তগত করিয়া লন। ১৭৯৯ খৃষ্টাব্দে রণজিতের লাহোর বিজয়ে তীত হইয় গুলাবসিংহ ও সাহেবসিংহ ভঙ্গী, জেলাসিংহ রামগড়িয়া,