পাতা:বিশ্বকোষ ত্রয়োদশ খণ্ড.djvu/৫৯১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ভোজরাজ [ съ? ) cछोखब्रांप्न স্বলতান মাজুদের সোমনাথমদির আক্রমণ ভারতইতিহাসে প্রসিদ্ধ। পরমশৈব ভোজরাজ সেই দেবমলিয়েরক্ষার জষ্ট তাহার সহিত ঘোরতর যুদ্ধ করিয়াছিলেন। প্রশস্তিতে তাহাই তুরুষ্কসমর বলিয়৷ ঘোষিত হইয়াছে । ভোজরাজ কেবল ষে একজন দেবভক্ত ও পরাক্রাস্ত রাজা ছিলেন, তাহ! নছে । তাহার পিতা ও জ্যেষ্ঠতাত যেমন স্বকবি ছিলেন, এই ভোজরাজও তাছাদের অপেক্ষ মহাকবি, মহাপণ্ডিত ও পণ্ডিতমণ্ডলীর প্রতিপালক ছিলেন । তোজপ্রবন্ধে দেখা যায়, শত শত মহাকবি ভোজের সভা উজ্জল করিতেন এবং ভোজরাজ কবিতা শুনিয়া প্রত্যেক শ্লোকের জম্ভ এক এক কবিকে লক্ষ লক্ষ দানার দান করিয়াছিলেন । তাছার সভাস্থ কবিগণের মধ্যে রামদেব, হরিবংশ, শঙ্কর, কলিঙ্গকপুর, বিনায়ক, মদন, বিস্তাবিনোদ, কোকিল, তারেঞ্জ, লক্ষ্মীধর, রামেশ্বর প্রভৃতি পুরুষকবি ব্যতীত ক্ষএকজন স্ত্রীকবিও ছিলেন । তাহার সভাস্থ স্ত্রীকবিগণের মধ্যে সীতাই সৰ্ব্বপ্রধান । ভোজ প্রবন্ধকার লিখিয়াছেন, ভোজের প্রধানামছিৰ লীলাবতীও বিদুষী ছিলেন। যাদব সিস্তানের সময়কার শিলালিপিপাঠে আমরা জানিতে পারি যে, স্বপ্রসিদ্ধ জ্যোতিবিদ ভাস্করাচার্য্যের অতিবৃদ্ধপিতামহ ভাস্করভট্ট ভোজরাজ কর্তৃক ‘ৰিভাপতি’ উপাধি লাভ করিয়াছিলেন। কি ধৰ্ম্মশাস্ত্র, কি দর্শন, কি অলঙ্কার, কি জ্যোতিষ ও কি কাব্য ভোজরাজের সভায় সৰ্ব্বশাস্ত্রেরই আলোচনা হইত। এ দেশের অনেক পণ্ডিতেরহ বিশ্বাস যে, এই ভোজের সভাতেই সৰ্ব্বশাস্ত্রের উপর ভাষ্যনিবন্ধাদি রচিত হইয়াছিল, তন্মধ্যে ‘কামধেনু’ গ্ৰন্থই প্রধান। এখন মহারাজাধিরাজ ভোজরাজের রচিত সরস্বতাকণ্ঠ ভরণ, রাজমাও ও নামে যোগস্থত্রেভাষ্য, রাজমাওঁও, রাজমৃগাঙ্ককরণ ও বিদজ্জনবল্লভ নামে জ্যোতিঃশাস্ত্র, সমরাঙ্গণ নামে বাস্তুশাস্ত্র ও শৃঙ্গারমঞ্জরা কথা নামে খণ্ডকাব্য পাওয়া যায় । এতদ্ভিন্ন ভোজরাজের নামে নিম্নলিখিত গ্রন্থগুলি প্রচলিত আছে, আদিত্যপ্রতাপসিদ্ধান্ত (জ্যোতিষ ), আয়ুৰ্ব্বেদসৰ্ব্বস্ব (বৈদ্যক ), চম্পুরামায়ণ, চারুচৰ্য্যা (ধৰ্ম্মশাস্ত্র ), তৰপ্ৰকাশ ( শৈব ), নামমালিকা ( কোষ ), যুক্তিকল্পতরু, বিস্তাবিনোদ কাব্য,বিদ্বজ্জনবল্লভ প্রশ্নচিন্তামণি, বিশ্রান্তবিস্তাবিনোদ (ৰৈস্তুক), ব্যবহারসমুচ্চয় ধৰ্ম্মশাস্ত্র ), শান্থশাসন, শালিহোত্র, শিবদত্তরত্নকলিকা, সমরাঙ্গণস্বত্রধার, সিদ্ধাস্তসংগ্ৰহ ( শৈব ), ও সুভাষিতপ্রবন্ধ । উপরোক্ত গ্রন্থগুলি ভোজরাজের সভাস্থ বিভিন্ন পণ্ডিতের রচনা বলিয়। অনেকেই স্বীকার করেন। cफराण cष बहGइ cडांखब्रांप्जग्न नांदम ७थळणिउ श्इब्रांtइ, ऊांश म८ए । मीनः श्वोऽइकॉन्त्र ऋ च ७८इ ८छाएखम्न मङ पाँ cझारु जेफूफ कब्रिङ्ग ठाशब्र बाब ब्रिबङ्गीब्र कब्रिब्रा গিয়াছেন। তন্মধ্যে শূলপাণি, দশবল, আন্নাড়মাখ ও পাওঁ রঘুনন্দম কর্তৃক্ষ ভোজরাজ নিবন্ধকাররূপে, ভাৰপ্রকাশ ও মাধবের ক্লখিনিশ্চয়ে বৈদ্ধক-গ্রন্থকাররূপে, কেশবার্ক কর্তৃক জ্যোতিঃশাস্ত্রকাররূপে, ক্ষীরস্বামী, সায়ণ ও মর্শ্বীপ करूँक यांछिथानिक ७ ८षब्राकब्र१क़रण, cqद१ ऽिख्”, cनtवश्वब्र, বিনায়ক ও সরস্বতীকুটুম্বন্ধুছিতা প্রভৃতি কবিগণ কতৃক কৰিস্কপে প্রশংসিত বা ভয়াম উদ্ভূত হইয়াছে। প্রসিদ্ধ দার্শনিক বাচস্পতি মিশ্র নিজ তত্ত্বকৌমুদী গ্রন্থে ‘ভোজরাজবাৰ্ত্তিক फेरु उ कब्रिब्राप्श्न । বল্লালপণ্ডিত ব্যতীত মেরুভূজ আচাৰ্য্য, রাজবল্লভ, বৎসরাজ, বল্লভ, মুনিমুনারশিষ্য শুভশল প্রভৃতি পণ্ডিতগণ SBBBBBSS BBD BDDDD BBB BBB BBBB হইয়াছেন। এই সকল প্রবন্ধে ভোজরাজের কীৰ্ত্তিকাহিনী ७ मांशद्मा बिc*शमc* cषाविठ हरें८ण७ dीठिशनिtकब्र मिरुके ঐ সকল গ্রন্থের মূল্য বড় বেশ নছে । উদেপুর, নাগপুর ও বড়নগরের প্রশস্তি, কীৰ্ত্তিকৌমুদী, স্বকৃতসংকীর্তন ও প্রবন্ধচিস্তামণি আলোচনা করিলে জানা যায় যে, চেদিরাজ কর্ণ ও গুর্জরপতি চেলুক্যতীমের সমবেত আক্রমণে ভোজরাঞ্জের ধ্বংসকাৰ্য্য সাধিত ও ধারারাঞ্জ) শক্রহস্তে পতিত হইয়াছিল। উদেপুর-প্রশস্তিতে লিখিত আছে, ভোজের উপযুক্ত পুত্র উদয়াদিত্য প্রনই গোঁৱৰ উদ্ধার করিয়াছিলেনু । প্রায় ১•১০ খৃষ্টান্ধ হইতে ১০৪২ খৃষ্টাব্দে পর্য্যন্ত ভোজরাজ ধারী ও মালবরাজ্য শাসন করিয়াছিলেন । এষ্ট ভোজই ভোজৰিস্কার প্রবর্তৃক বলিয়। অনেকের বিশ্বাস । ভোজরাজচৌরকবি, শাল ধরপদ্ধতিধত জনৈক কবি। চৌরকবিকৃত পন্থাবলী উক্ত গ্রন্থে উদ্ধৃত আছে। ভোজরায়, বুলার শাসনকৰ্ত্তা। ইনি সম্রাট আকবরশাহের রাজত্বকালের দ্বাবিংশ বর্ষে এই পদ প্রাপ্ত হন । র্তাহার পিতা রায় স্বল্পজন হাড় চিতোররাজের অধীনে রণস্তম্ভগড়ের সামন্ত ছিলেন। আকবর চিতোর আক্রমণ করিলে রণস্তম্ভগড় তাহার করতলগত হয়। তদবধি পিতা-পুত্রে মোগলजधांहप्लेब्र छांटब्रछिक्र1 कब्रिtठ दांथी झम । छेपछाग्नहे दौब्र ও যোদ্ধা ছিলেন। ভোজরায় উড়িষ্যার আফগান যুদ্ধে মানসিংহের এবং দক্ষিণাত্যের মোগল অভিযানে শেখ আবুল ফজলের সহকারিরূপে গমন করেন। তিনি মানসিংহের পুত্র জগৎসিংহের সস্থিত নিজ কম্ভার