পাতা:বিশ্বকোষ দশম খণ্ড.djvu/১৪০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নিমদারী [ 58° 1 নিমন্ত্রণ निशाखं (*) नि-शम्ब-चथ् ।। १ "ग्न । -তলে কাৰান্তরৈঃ সাৰ্দ্ধং মস্তেহহং ধিঙনিমজ্জখুম।" ( ভটি ) ২ জান, নিমজ্জন । ਜਿਨ੍ਰਿਕ ( ) নিমজ্জতেইনেনেতি, নি-মসজ-ভাবে লুন্টু। স্নান, অবগাহন । “বীক্ষা বঃ খলু তহুমমৃতাদাং দৃভূনিমজ্জনমবৈমি স্বধায়াং ।” ( নৈষধ ও স” ) নিমটানা, ক্ষেত্রের শস্তনির্ণয় করিবার এক প্রকার নিয়ম। কপ্তেন রবার্টসন• এই উপায়ে শস্তের পরিমাণ নির্ণয় করিয়াছিলেন । কোন একটী শস্তপূর্ণ ক্ষেত্র হইতে তিন রকমের তিন গাছ লওয়া হইত। তন্মধ্যে একটতে উত্তমরূপ শত, আর একটতে মধ্যম রকম এবং অপরটতে অতি সামান্ত রকম জন্মিয়াছে। এই তিনটী গাছের শস্তগুলি গণিয় তাহাদের গড় লইতে হয়। অনস্তর ক্ষেত্রের বৃক্ষ গণিতে হয়। পরে ক্ষেত্রটর ক্ষেত্রফল আছে মনে করিতে হইবে। বৃক্ষসংখ্যা দিয়া শস্তসংখ্যা (গড় ) পূরণ করিলে ক্ষেত্রের শস্ত পরিমাণ স্থির হইবে । রবার্টসন সাহেব বলিয়াছেন যে, উত্তরভারতবর্ষ, খাদেশ ও গুজরাতে এই প্রথা প্রচলিত ছিল । শিবান্ধীর পিত। শাহীর প্রধান কৰ্ম্মচারী দাদাঞ্জী কোগুদেব ১৬৪৫ পুণায় যখন বন্দোবস্ত করেন, তখন তিনি এই নিয়ম অবলম্বন করিয়াছিলেন । নিমতোর, রাজপুতনায় নিমচ ও ঝালরাপত্তন যে রাজপথের উপর অবস্থিত ; সেই রাজপথের উপর এবং নিমচ হইতে কিছু দূরে স্থিত একট ক্ষুদ্র গ্রাম। সম্ভবতঃ মিমতোর শব্দ নিমতলী বা নিমথর শব্দের অপভ্রংশ মাত্র । এই গ্রামে ৩ট হিন্দু মন্দির অাছে। তন্মধ্যে একটী বহু প্রাচীন ও উহাতে একটা বৃষমৃষ্টি স্থাপিত রহিয়াছে। নিমতোর মন্দিরের মধ্যে একট প্রকাগু শিবলিঙ্গ ও তাহার চারিদিকে মন্ত্রব্যের মুখ থোদিত থাকায় উহা চৌমুখীরূপ ধারণ করিয়াছে। প্রবাদ এষ্ট যে এই মন্দির ও বৃষ, স্বৰ্গ হইতে অবতীর্ণ হইয়া প্রথমে নানাস্থান ভ্রমণ করিতে করিতে অবশেষে গুজরাত | হইতে এই স্থানে আসিয়া অবস্থান করিতেছে। বৃষস্কেটর গতি অল্প হওয়ায় মন্দির আসার একটু পরে এখানে আসিয়া উপস্থিত হইয়াছে। এই প্রবাদ শুনিয়া এইরূপ অনুমিত হয় যে, সৰ্ব্বাগ্রে মন্দির প্রস্তুত ও তদনন্তর বৃঘমুঠি স্থাপিত হয়। মন্দিরটাও অন্ততঃ ১••• বৎসরেরও পূৰ্ব্বে নিৰ্ম্মিত বলিয়া বোধ হয়। নিম (পুং) স্পষ্টরূপে ও মলভাবে উচ্চারণ। নিমদায়ী (নিদার) পুণাজেলায় একটা ক্ষুদ্র গ্রাম। জুর • East-Audia Papers IV. 480. i হইতে ৬ মাইল দক্ষিণে অবস্থিত। এই স্থানে রেণুকাদেবীর এক বেদী আছে । চৈত্রমাসের পৌর্ণমাসীতে বাধিক মেলা হুইয়া থাকে। অনুন ও সহস্ৰলোক নানা দেশ হইতে সমবেত হইয় থাকে। নিমন্ত্রক (পুং ) নিমন্ত্র-খুল নিমন্ত্রণকারী। নিমন্ত্রণ (কী ) নিমন্ত্রাতে ইতি নি-মন্ত্র-লুটু। নিযোজনবিশেষ, আহবান । কৰ্ম্মবিশেষের অনুরোধে নিৰ্দ্ধারিত সময়ে আসিবার নিমিত্ত সংবাদদান । ভোজনের জন্ত আহবানেই এই শব্দ প্রযুক্ত হইয়া থাকে । আবশ্বক শ্ৰাদ্ধভোজনাদিতে আহবান। শ্ৰাদ্ধাদিকার্য্যে পূৰ্ব্বদিনে বেদজ্ঞব্রাহ্মণকে শ্রান্ধে ভোজনের জন্ত বলিয়া আসিতে হয়, তাহাঙ্কুে নিমন্ত্রণ কহে। নিমন্ত্রণ ও আমন্ত্রণে প্রভেদ এই যে, যাহার অকরণে প্রত্যবায় হয়, তাহাকে নিমন্ত্রণ, এবং যাহাতে কোন প্রত্যবায় নাই, তাহাকে আমন্ত্রণ কহে। নিমস্ত্রণ গ্রহণ করিয়া তাহ রক্ষা না করিলে পাপভোগী হইতে হয়। “যস্যাকরণে প্রতাবায়স্তল্পিমন্ত্রণম্।।” (সিদ্ধাস্তকেী” ) ইহ ভুঞ্জীত ভবান্‌ আপনি এইখানে ভোজন করিবেন, এই প্রকারে আহবানের নাম নিমন্ত্রণ। ইহ শীত ভবান্‌ আপনি এইখানে শয়ন করুন, ইহা আমন্ত্রণ, ইচ্ছানুসারে শয়ন করিতে বা না করিতে পারে, কিন্তু নিমন্ত্রিত হইয়া যদি নিমন্ত্রণ রক্ষা না করা হয়, তাহ হইলে পাপভাগ হইতে হয়। যদি ব্রাহ্মণকে নিমন্ত্ৰণ করিয়া, তাহাকে যথাবিধি পুজাদি না করা হয়, তাহা হইলে নিমন্ত্রণকারী তিৰ্য্যকৃযোনিতে জন্মগ্রহণ করে। যদি ভ্রমপ্রমাদবশতঃ নিমস্থিত ব্রাহ্মণের পূজা না হয়, তাহা হইলে তাহাকে যত্নপূর্বক প্রসাদিত করিয়া ভোজনাদি করাইতে হইবে। “আমন্ত্র্য ব্রাহ্মণং যন্ত্র যথাষ্ঠায়ং ন পূজয়েৎ । অতিকৃচ্ছামু ঘোরাহ তির্যাগযোনিষু জায়তে ॥" ( যম ) প্রমাদবশতঃ নিমন্ত্রণ ত্যাগ করিলে হারাতের মতে,— “প্রমাদাস্থিতং জ্ঞাত্বা প্রসাদৈানং প্রযত্নতঃ। + তর্পয়িত্ব যথাস্তায়ং সৰ্ব্বং তৎফলমগ্নতে ॥” যদি বিপ্র নিমন্ত্রিত হইয়া অগুস্থলে ভোজন করিতে যায়, তাহা হইলে নরকভোগ করিয়া চণ্ডালযোনিতে জন্ম গ্রহণ করে । “আমন্ত্রিতপ্ত যে বিপ্রঃ ভোক্ত মন্তত্ব গচ্ছতি । নরকাণাং শতং গত্বা চাগুলেশ্বভিজায়তে ॥” ( যম ) এই শ্লোকে ‘আমন্ত্রিত’ এই পদ প্রযুক্ত হইয়াছে, ইহাতে বোধ হয়, আমন্ত্রণ ও নিমন্ত্রণ সময়ে সময়ে একই অর্থে প্রযুক্ত হই থাকে। যদি ব্রাহ্মণ পূৰ্ব্বে নিমন্ত্রিত হইয় অন্য প্রতিগ্রহ করে, অথবা ভোজন করিয়া গিয়া ভোজন করে, তাছা হইলে তাহার পুণ্য নষ্ট হয় ।