পাতা:বিশ্বকোষ দশম খণ্ড.djvu/১৮৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নিৰ্ম্মাল্য এই ফলের গুড় কুঞ্জের সহিত মিশ্রিত করিয়া সেবন করাইলে ধাতুর পীড়া আরোগ হয়। * এন্‌লি বলেন যে, বমন করাইবার প্রয়োজন হইলে, তামিল ডাক্তারের ইহার পঙ্কফল গুড়া করির অর্থ চাম্চা পরিমাণে খাওয়াইয়া থাকেন। মুনীন সেরিফ তাহার রুত অসমাপ্ত তৈযজ্যরত্নাবলীতে লিখিয়াছেন যে, এই ফলের শল আমাশয় ও বায়নীগ্রাহের বিশেষ উপকাৰী। যুরোপীয়ের পূৰ্ব্বোক্ত কোন রোগে ইহা ব্যবহার করেন না। ; ভারতীয় কবিয়ালের মতে—ইং বহরোগেও বাবার্থ। । নিৰ্ম্মলতা ( স্ত্রী ) নিৰ্ম্মল-তল-টাপ। বিশুদ্ধত, স্বচ্ছতা, । পবিত্রত, নিৰ্ম্মলত্ব । নিৰ্ম্মলোপল (পুং ) নিৰ্ম্মলঃ বিশুদ্ধঃ উপলঃ । স্কটিক । ( রাজনি” ) | নির্মশক (ত্রি) নিৰ্গতো মশকে যন্মাৎ । ১ মশকরহিত দেশ। অভাবার্থে অব্যয়ীভাবঃ । ( অব্য ) ২ মশকাভাব । | নিম ( স্ত্রী) ১ মূল্য। ২ পরিমাণ (লাটা শ্রেী” ৮৪৷১৪ ) নিমাংস (ত্রি) নির্গতং মাংসং যন্ত। ১ মাংসবিহীন । ২ | আহায়াভাবে অতি কুশ, তপস্বী ও দরিত্র প্রভৃতি। “নির্মাসবালছন্তা হচ্ছেনায়ান্তি পরদেশান।" (বৃহৎস ৩।১৩) | নির্মাৎসবস্তু, (গ) কুমারাক্ষরত। (ভারত সভাপ • অ’) নিৰ্ম্মাণ (গ) নিীতে নিয়ার্ট। ১নিতি। ২ টারি রচনা, সংগঠন। নির্মীয়তেহনেন করণে লুন্টু। ৩ নিৰ্ম্মাণসাধন কায়াদি । “ক্লেশকৰ্ম্মবিপাকাশয়ৈরপরামৃষ্টঃ নিৰ্ম্মাণকারমধিষ্ঠায় সম্প্রদায় প্রবর্তকঃ" ( কুসুমাঞ্জলি ) নির্গতো মানাৎ । ৪ মানাতীত । ‘পূৰ্ব্বপদাং সংজ্ঞায়াং সংজ্ঞার্থে ণত্ব হইবে, এইস্থলে সংজ্ঞ না বুঝাইলেও আর্যপ্রয়োগে ণত্ব হইল ।

  • অনক্ষত্রগণং বোমনিৰ্ম্মাণং ঘনবর্মিতং " (রাম” কি” ৪৪ অ') নিৰ্ম্মালি, শিখ জাতির অন্তর্গত সম্প্রদায় বিশেষ। তাহার ঈশ্বরায়াধনায় জীবন উৎসর্গ করে । নিৰ্ম্মালিরা প্রায় উলঙ্গ । সেরিং বলেন, তাহার। কাশীধামের বৈষ্ণবদিগের সম্প্রদায়ভেদমাত্র । পবিত্র থাকাই তাঁহাদের মুখ্য উদ্দেশু। তাহার প্রতাহ ১০৪ বায় হস্তপদ প্রক্ষালন এবং অনেকবার স্নান করিয়া থাকে । তাহারা সংসার ত্যাগ করে না ; কিন্তু অপবিত্র হইবার আশঙ্কায় সস্তানাদিকেও স্পশ করিতে উীত হয়। বৌদ্ধধৰ্ম্মাবলম্বিদিগের স্থায়, ইহার কোন জীবহিঃস৷ কয়ে না। স্ত্রীপুরুধ উভয়েই এই ধৰ্ম্মসম্প্রদায়ভুক্ত হইতে পারে। { শিখ স্রষ্টব্য । ]

[ sw8 J নিৰ্ব্বালা (*) নির্মলাং দেশোচ্ছিষ্ট বস্তু, উচ্ছিঃ 象 নিৰ্ম্মাল্য ভেদ। প্রথমে দেবতার উদ্দেশে যাহা দেওয়া হয়, অর্থাৎ নিবেদনের পর তাহাই নিৰ্ম্মাল্যপদবাচ্য হয়। “অবাকৃবিসর্জনাত্রব্যং নৈবেদ্যং সৰ্ব্বমুচ্যতে। বিসৰ্জ্জিতে জগন্নাথে নিৰ্ম্মাল্যং ভবতি ক্ষণাৎ ॥” ( গরুড়পু” ) বিসর্জনের পূৰ্ব্বে দেবতার উদ্দেশে ফলপুষ্পাদি উপহার নৈবেদ্য নামে অভিহিত, এবং বিসর্জনের পরেই উহাকে নিৰ্ম্মাল্য কহে । দেবনিবেদিত পুষ্পাদি। যে সকল পুষ্পাদি দিয়া দেবপূজা হয়, পরে দেবপূজার পর ঐ নিবেদিত পুষ্পাদি নিৰ্ম্মাল্য নামে অভিহিত হয়। দেব-নিৰ্ম্মালা মস্তকে ধারণ ও গাত্রে অনুলেপন করিতে হয়, এবং নৈবেদ্য ভক্তদিগকে দিয়া স্বয়ং ভোজন করিতে হয় । “নিৰ্ম্মালাং শিরস ধার্যাং সৰ্ব্বাঙ্গে চানুলেপনম্। নৈবেদ্যঞ্চোপড়ুঞ্জীত দত্ত্ব। তন্তুক্তিশালিনে ॥” ( তন্ত্রসার ) নিৰ্ম্মাল্য স্থাপন ও ক্ষেপণ করিতে হয়। পূজার পর ঈশানকোণে একটা মণ্ডল করিয়া নিম্নলিখিত মন্ত্ৰে নিৰ্ম্মাল্য শেষে দিতে হইবে। বিষ্ণু বিষয়ে—ওঁ বিশ্বক্সেনায় নমঃ শক্তি-বিষয়ে--"ওঁ শেষিকায়ৈ নমঃ’ শিব-বিষয়ে-‘ওঁ চণ্ডেশ্বরায় নমঃ’ সূৰ্য্য-বিষয়ে—‘ও তেজশ্চগুীয় নমঃ’ কালিকাদি বিষয়ে—“ঔ চাগুলিন্তৈ নমঃ’ এই সকল মন্ত্রে স্থাপন করিবে । “সুর্য্যে গণপতাঁবুগ্রে শাক্তে শৈবেইথ বৈঞ্চবে । তেজশ্চগুমথোচ্ছিষ্টসোজমুচ্ছিষ্টপূৰ্ব্বিকাম্। চাণ্ডালীং শেষিকাং চওং বিশ্বকৃসেনং ক্ৰমাৎ যজেৎ।" (বিদ্যানন্দ ) গুল অথবা তরুমূলে নিৰ্ম্মাল্য পরিত্যাগ করিতে হয়। “উদকে তরুমূলে বা নিৰ্ম্মালাং তত্র সংত্যজেৎ ।” - ( কালিকাপু” ৫৫ অ” ) কালবিশেষে দেবেদিষ্ট বস্তু নিৰ্ম্মাল্যত প্রাপ্ত হইয়া থাকে । “মণিমুক্ত সুবর্ণনাং দেবদত্তানি যানি চ | ন নিৰ্ম্মাল্যং স্বাদশাকং তাম্ৰপাত্ৰং তথৈব চ। পট শাটী চ ষন্মাসং নৈবেদ্যং দম্ভমাত্রতঃ । মোদকং কৃশরঞ্চৈব যামাৰ্দ্ধেন মহেশ্বরি ॥ পট্টবস্ত্রং ত্রিমাসঞ্চ যজ্ঞসুত্রস্তুহঃ স্মৃতম্। স্ববিদন্নং ভবেন্ধুকং পরমান্নং তথৈব চ।” 歇 ( তন্ত্রসার, একাদশীতত্বে যোগিনীতন্ত্র ) দেবতার উদেশে যে মণিমুক্ত, সুবর্ণ ও তাত্র দেওয়া হয়, তাহ ১২ বৎসর পরে নিৰ্ম্মাল্য হয় ; পট ও শাট ৬ মাসে, নৈবেদ্য দত্তমাত্রে, মোদক ও কুশল্প যামাপ্ত পরে, পট্টৰস্ত্র তিন