পাতা:বিশ্বকোষ দশম খণ্ড.djvu/২৪৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


नैौडि বিষয় শ্রবণ করিবে না। ধীর রাজা শাস্ত্রতত্ত্ব ব্যতীত আর ফুিন্তেই হঠাৎ বিশ্বাস করিবে না। রাজা স্বেচ্ছাক্রমেই বিষয় ভোগ করিবে, তৎপ্রতি আসক্ত হইবে না। এইরূপ হইলেই তিনি জিতেপ্রিয় হন । শাস্ত্রামুশীলন ও বৃদ্ধসেবাই ইঞ্জিয়গুয়ের হেতু। অর্বুদ্ধদেবী ও শাস্ত্রানভিজ্ঞ রাজা অচিরে পত্রবশ হইয় পড়েন। প্রসন্নত, প্রাগল ভ্য, উৎসাহ, বাক্পটুতা, বিবেচন, কুশলতা, সহিষ্ণুতা, জ্ঞান, মৈত্রী, কৃতজ্ঞতা, শাসনদার্ট্য, সত্য, শৌচ, কার্যাস্থিরতা, পরের অভিপ্রায়জ্ঞান, সচ্চরিত্রত, ৰিপদে ধৈর্য্য, ক্লেশপহিষ্ণুতা, গুরু, দেব ও দ্বিজপূজা, অহুয়াহীনতা ও অক্রোধত৷ প্রভৃতি গুণসকল রাজা অত্যাগ করবেন। রাজা কাৰ্য্যাকাৰ্য্যবিভাগ, ধৰ্ম্ম, অর্থ এবং কামের প্রতি সতত লক্ষ্য রাথিবেন । সাম, দান, ভেদ ও দও, এই চতুৰ্ব্বিধ উপায় যথাস্থানে প্রয়োগ করিবেন। সামপ্রয়োগস্থলে ভেদপ্রয়োগ মধ্যম, দানপ্রয়োগস্থলে দণ্ডপ্রয়োগ বা দণ্ডপ্রয়োগস্থলে দান প্রয়োগ অধম । সামপ্রয়োগস্থলে দণ্ডপ্রয়োগ অধমাপেক্ষা অধম । সাম, দান এই ছুইটী উপায় পরম্পরেই পরস্পরের সাহায্যকারী। রাঙ্গ এই সকল উপায় প্রয়োগস্থলে মৌখিক সোঁজষ্ঠ প্রকাশ করিবেন। রাজার পক্ষে কাম, ক্রোধ, লোভ, হৰ্ষ, অভিমান ও মদ ইহাদিগের আতিশয্য শত্রুবৎ নিবাৰ্য্য। ক্ষোভ এবং গৰ্ব্ব ব্যতীত, কাম প্রভৃতির যথাকালে কিছু কিছু ব্যবহার করা যাইতে পারে। রাজগণের তেজই সুৰ্য্যের প্রায় তীব্র । গৰ্ব্ব তাহায় রোগ, অতএব রোগযুক্ত দেহের দ্যায় গৰ্ব্বমিশ্রিত তেজকে পরিত্যাগ করিবে। মুগয়াসক্তি, দ্যুতক্রীড়া, অত্যন্ত স্ত্রী-সম্ভোগ, পানদোষ, অর্থদূষণ, বাকৃপারষ্য ও দণ্ডপারুষা, রাজা এই ৭টি দোষ সৰ্ব্বতোভাবে পরিত্যাগ করিবেন। অতিশস্ত, চোর, হত্যাকারী, এবং আততায়ীদিগের উপরে নরপতি সৰ্ব্বদা দগু-পারুয্য প্রয়োগ করিবেন। কিন্তু কদাপি বাকৃপারুঘ্য প্রয়োগ করিবেন না। কাৰ্য্য বুঝিয়া ক্ষমা এবং তেজস্থিত। অবলম্বন করিবেন। অভিমান, স্থিতি, আশ্রয়গ্রহণ, দ্বৈধ, সন্ধি এবং ৰিগ্ৰহ এষ্ট ৬টা গুণ সতত অভ্যাস করিবে । শত্র, মিত্র ও উদাসীন সকলকেই ত্ৰিবিধ প্রভাব দেখাইবে । জিগীষা, ধৰ্ম্মকাৰ্য্য, অষ্টবৰ্গ এবং শরীরযাত্ৰানিৰ্ব্বাছেও উৎসাহসম্পন্ন হওয়া বিধেয় । কৃষি, দুর্গ, বাণিজ্য, সেতুবন্ধন, গজবাজিবদ্ধন, খনি জাকরাধিকার, করগ্রহণ এবং শুম্ভ-নিবেশন, চরশুস্তাদি স্থানে চয়াদি স্থাপন, ইহা অষ্টবর্গ। এই অষ্টবগে চরনিয়োগ করিতে হষ্টৰে । এই অষ্টবর্গে নিযুক্ত ব্যক্তিদিগের কার্যাকার্য পরিश्नांएनद्र छछ v जन छद्र निपूद्ध कग्निप्बन । ... السكالتقد [ २8७ ] नैौडि * - __ মন্ত্রীসহ রাজা প্রদোষকালে নির্জনস্থানে বসিয়া চরমুখে সকল বাৰ্ত্তা শুনিবেন। একবেশধারী, উৎসাহবর্জিত, সৰ্ব্বৰ পরিচিত, অতি দীর্ঘাকৃতি, খৰ্ব্বকায়, সতত দিবাচারী, বেঙ্গ সম্পন্ন, নিৰ্ব্ব স্কি, ধনসম্পত্তিবিহীন, পুত্ৰদারবর্জিত, এই সকল লোয় চর হইবার উপযুক্ত নহে। বহুদেশতত্ত্ববিৎ, বহুভাষাভিজ্ঞ, পরাতিপ্রায়বেত্ত, দৃঢ়ভক্তি-সমর্থ ও নির্ভর ব্যক্তিকে চর নিযুক্ত করা উচিত। অন্তঃপুরে বুদ্ধ, ধীর, পিতৃতুল্য পুরুষদিগকে এবং বিচক্ষণ বর্ষধরদিগকে ( খোজা ) বা বৃদ্ধ রমণীমণ্ডলীকেও চর নিযুক্ত করিবেন। রাজা কখন একাকী শয়ন বা ভোজন করিবেন না। রাজা বহুবিস্তাবিশারদ, বিনীত, সৎকুলোদ্ভব, ধৰ্ম্মার্থকুশল ও সরলচিত্ত ব্রাহ্মণদিগকেই মন্ত্রিপদে নিযুক্ত করিবেন। স্ত্রীগণকে সৰ্ব্বদা অস্বতন্ত্র রাখিবেন । স্ত্রীগণ স্বতন্ত্র হইয়৷ কাৰ্য্য করিলে, মহৎ অনিষ্ট সংঘটিত হয়। রাজা পুত্ৰ এবং পত্নীকে বহিঃপ্রদেশে বা অন্তঃপুরে স্বাধীন ভাবে কোন কাৰ্য্য করিতে দিবেন না। রাজ এই সকল নীতি অবলম্বন করিয়ী রাজ্য পালন করিলে লোক সকল নীতিবহির্ভূত কোন কাৰ্য্য করিতে পারিবে না। রাজা দুৰ্নীতিপরায়ণ হইলেই, চারিদিকে বিশৃঙ্খলা এবং জনসমূহ অবিনীত হইয়া থাকে। এইজন্য নীতি শব্দে প্রথমে রাজনীতির কথা বলা হইল।” ( কালিকাপুঃ ৮৪ অঃ ) লোক সকল বিনীত কি অবিনীত, তাহার পর্য্যবেক্ষক রাজা, রাজা সুনীতিপরায়ণ ব্যক্তিকে পালন এবং অবিনীতকে দণ্ডবিধানাদি দ্বার। তাহাকে সুপথে আনিবেন । এইজন্স রাজাদিগের রাজনীতিবিশারদ হওয়া সৰ্ব্বতোভাবে বিধেয় । অগ্নিপুরাণে নীতির বিষয় এইরূপ লিখিত আছে,— ‘রাম লক্ষ্মণকে নীতিবিষয়ে এইরূপ উপদেশ দিয়াছিলেন – বিনয়ই নীতির মূল। শাস্ত্রনিশ্চয়সহকারে বিনয়ের উৎপত্তি হয়। ইঞ্জিয়বিজয়ই বিনয় নামে অতিহিত । সকল লোকেরই সৰ্ব্বদা বিনীত ভাবে থাকা আবশুক । শাস্ত্রজ্ঞান, প্রজ্ঞ, ধুতি, দক্ষত, প্রাগলভা, ধারয়িষ্ণুতা, উৎসাহ, বাক্যসংযম, ঔদার্যা, আপৎ কালে সহিষ্ণুতা, প্রভাব, শুচিত, মৈত্র, ত্যাগ, সত্য, কৃতজ্ঞতা, কুল, শীল ও দম এই সকল গুণ সম্পত্তির হেতু। ইঞ্জিয় সকল মত্তহস্তীর স্থায়, স্বভাবতঃ উদাম হইয়া হৃদয়কে বিদ্রাবিত করিতেছে এবং বিষম্বরূপ বিশাল অরণ্যে সতত ধাবনোন্মুখ হইতেছে, জ্ঞানরূপ অঙ্কুশ দ্বারা তাহাকে বশ করা অবগু কর্তব্য। যে ব্যক্তি ইহাতে অমনোযোগ করে, সে প্ৰজলিত বহ্নি শিরোদেশে স্থাপন করিয়া নিদ্রা যায়। শত্ৰু, অগ্নি, জল ও ইঞ্জিয় ইহাদিগের কাঁহাকেও ৰিশ্বাস নাই । বিশেষতঃ সৰ্ব্বাপেক্ষা ইঞ্জিয়ের শক্তি ও বেগ অধিক ।