পাতা:বিশ্বকোষ দশম খণ্ড.djvu/২৬৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


t नैंोल [ २७¢ ] भैौण ২ সম্প্রতি এদেশে একটা নুতন গাছ আসিয়াছে, এদেশীয় | ছিল, আজ এই নীলক্ষের গুণেসে সব স্থানে স্বৰবা সবল সংবাদপত্রে ইহাকে ‘নীল বৃক্ষ’ বলা হইয়াছে। ইহাকে ‘নীল ! বীরপুরুষের জন্ম হইতেছে। • . BB BBBB BBB B D DDBB BB BBBBS BBBDDS DDSBBBBDD DD DBBBB DtS DDD DBBB আদি উৎপত্তিস্থান অষ্ট্রেলিয়াদেশ। ইহার নাম ইউকালিপটস (Eucalyptus)। বৃক্ষশ্রেণীর মধ্যে বিলুবৃক্ষ ষে বংশভুক্ত, ইহাও সেই বংশসস্তৃত । উদ্ভিদশাস্ত্রে এই বংশকে মারটাসি (Myrtaceae) বলে। এই নীলবৃক্ষে প্রায় ১৫• প্রকার ভেদ আছে। এই বৃক্ষ খুব বড় হইয়া থাকে। এমন কি ২• • হাত পৰ্যন্ত উচ্চ হইতে দেখা যায়। ইহাতে অতি উৎকৃষ্ট ভক্ত । প্রস্তুত হয়। ইহার গা হইতে এক প্রকার আঠা বা গদ বাহির । হয়, তাহাও মনুষ্যের নানাকার্য্যে লাগে । ইহার পত্র হইতে একপ্রকার তৈল হয়, অনেক পীড়ায় তাহা একটা भtशेरुक्ष । i ইঙ্গর পত্র ও পুষ্প দেখিতে অতি সুন্দর। নিজদেশে | ইহা অতি শীঘ্র শীঘ্র বাড়িয়া উঠে । পাঁচবৎসরের মধ্যে খুব , দাক্ষিণাত্যের অধীশ্বর হইয় রাজ্যশাসন করিতেছিলেন, তখন নীল তাছাকে বেদপরায়ণ ব্রাহ্মণগণকে ভূমি দান করিতে উপদেশ দেন। তিনি বলেন যে পুৰ্ব্বপুরুষগণের যদি ইত্ৰলোক প্রাপ্তির আশা কর, তবে আমার উপদেশ অনুসারে কার্য্য কয় । তাহার উপদেশানুযায়ী বীরচোল “পরকেশরী চতুৰ্ব্বেণীমঙ্গলম” নামক গ্রাম দান করেন । নীল, নাগদিগের একজন রাজার নাম। ইনি নীলপুরাণ রচনা করেন। যখন বৌদ্ধগণ নীলপুরাণোক্ত উৎসবাদি বন্ধ করিয়৷ দেন, তখন শীলাবর্ষণ হইতে আরম্ভ হয় ; অনস্তর চক্সঙ্গেব নামক জনৈক ব্রাহ্মণ যজ্ঞাদি করায় নীল তাহার নিকট উপস্থিত হইয়া তুষার বর্ষণ নিবারণ করেন এবং স্বীয় পুজা পুনর্বার স্থাপিত করেন। বড় হয়। ষোলবৎসরে ৬ হাত উচ্চ হয়, তখন এত মোটা নীল, আফ্রিকার একটা বৃহৎ নদের নাম (নীলনদ)। ইংরাজীতে হয় যে, মানুষে আঁকড়াইয়া পায় না। পঞ্চাশবৎসরে ১৫• { হাত উচ্চ হয়। এই সময় গুড়ির বেড় ৪• হাত পর্যস্ত । হইয়া থাকে। যাট সত্ত্বর হাত পর্যন্ত গাছটা অতি সরল হইয়া উঠে । এই বৃক্ষদ্বারা নিৰ্ম্মিত তক্তা ও কড়ি । দীর্ঘকালস্থায়ী হয় এবং অন্তষ্ঠি কাঠের ন্যায় ইহাতে | পোক বা ঘুণ ধরে না। ইহার কাঠ পোড়াইলে যথেষ্ট । পটাশ ( Pot.st ) বা ক্ষার পাওয়া যায়। যে স্থানে | ম্যালেরিয়া জরের প্রাদুর্ভাব আছে, সে স্থানে এই নীলবৃক্ষ পুতিলে শুনা যায় যে, দুযিত বায়ু সংশোধিত হয়। এই নিমিত্ত | কেহ কেহ ইহার নাম দিয়াছেন, "রনাশক বৃক্ষ" । ইহার যে ম্যালেরিয়াবিষ নাশ করিবার বাস্তৰিক ক্ষমতা ! আছে, সে বিষয়ে ডাক্তার বেণ্টলি অনেক প্রমাণ সংগ্ৰহ করিয়া স্থির করিয়াছেন। ইহার পত্র চোয়াইলে যে তৈল বাহির হয় তাহা একপ্রকার কপূরের স্যায়। ইহা অারক বা টিংচাররূপেও ব্যবহৃত হইয়া থাকে। অজীর্ণ, পকাশয়ের ও অস্ত্রের পুরাতন রোগ, সর্দি, কুমিকাত প্রভৃতি নানারোগে এই ঔষধ ব্যবহৃত হয়। ইহার বায়ুনিবারণশক্তিও বিলক্ষণ অাছে । ইতালি ও আলজিরিয়া প্রভৃতি দেশে ম্যালেরিয়া জরের বিলক্ষণ প্রাঙ্কুর্তাব ; তথায় আজকাল লোকে নীলবৃক্ষ রোপণ করিতেছে এবং দেখা গিয়াছে যে ইহাতে ফলও ভাল হইয়াছে। যে স্থানে বীরমাস লোকে কম্পজরে র্কাপিত, যে স্থানে লোকের প্লীহা যকৃৎ বাড়িয়া পেট মুদঙ্গের আকার ধারণ করিত, যে স্থানে শিশুদিগের প্রাণরক্ষা হওয়া দুঃসাধ্য হইয়া 2. ইহাকে মাইল (Nile) বলে। ইজিপ্টের মধ্যে এইট সৰ্ব্বাপেক্ষ বড় নদী । বহর-উল-আরবিয়া অর্থাৎ শুভ্ৰ নদী ও বহুরূ-উলঅঙ্গরাকৃ অৰ্থাৎ নীল নদী এই উভয়ের সংযোগে উৎপন্ন হইয়া ভূমধ্যসাগরে পতিত হইয়াছে। ১৮৪৬ খৃষ্টাৰে আবাদী ভ্রাতৃগণ অবিসিনিয়ার দক্ষিণে অক্ষা” ৭° ৪৯° উঃ এবং দ্রাঘি” ৩৪° ৩৮' পূঃ ইহার উৎপত্তিস্থান নির্দেশ করেন। কিন্তু তাহীদের পরবর্তী ভ্রমণকারিগণ বলেন যে, তাহারা নীলনদের উপনদী উমাকে নীল নাম দিয়াছিলেন এবং ইহার উৎপত্তিস্থান আরও অনেক দক্ষিণে নির্ণয় করেন । নীলনদ নায়েঞ্জাহ্রদ হইতে প্রভূত জলরাশি বহন করিয়া নিউবিয়া, হলুফে, চেওঁী, ডমার, চাকী, ডঙ্গোল, মহস ইত্যাদি দেশে উৰ্ব্বরাশক্তি এদান করিতেছে । আশেয়ান নামক স্থানে ইহা ইজিপ্টে ग्नि 'प्लिग्नोUछ् । এই স্থান হইতে ক্রমান্বয়ে উত্তরদিকে অক্ষা” ২s” উঃ হইতে বরাবর অক্ষা ৩০° ১২' উঃ পর্যাস্ত প্রবাহিত হইয়া দুই শাখায় বিভক্ত হইয়াছে। একটী শাখার উপর রে’জেট নগর, ঐ শাখা আলেক্সাজিয়া নগরের নিকট দিয়া পশ্চিমদিকে গিয়াছে ; অপরটা ইহার কুলে পূৰ্ব্ববাহিনী, ডেমিএটা নগর। এই প্রত্যেক শাখারই সাতট পৃথকৃ পৃথক্ মোহনা আছে । এই নদের উপর মধ্যে মধ্যে ছয়ট জলপ্রপাত আছে, তন্মধ্যে ইজিপ্ট ও নিউবিয়ার সীমান্ত প্রদেশে অবস্থিত প্রসাতটী সৰ্ব্বাপেক্ষা প্রধান । ইহার বর্তমান নাম এল বিবৃহী, পুরাকালে ইহ ফিলো ( Philoe ) নামে অভিহিত ছিল । Qool