পাতা:বিশ্বকোষ দশম খণ্ড.djvu/৬১৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পঞ্চরত্ন । श्रृंक्षयांम (१९) नषदांनी बज ॥ २ निदन ।

  • जिषायां२ ब्रजमीः eवाहटाउ,ांनाडल्डूडेन । BBBBB BBB BB DDBBBBDBB tSDDDDDS রজনী খ্রিষাম এবং দিবস পঞ্চবাম। স্নাত্রিতাগের শেষ চারি দও এবং প্রথম চারিদও দিবাভাগের অন্তনিধিষ্ট করিলে পঞ্চগ্রহয় হয়, শাস্ত্রান্থসারে দিবাভাগে এইরূপ পঞ্চপ্রহর ছয় বলিয়া পঞ্চবাম শব্দে দিবসকে বুঝায়। দিবাভাগে কর্তব্য অনেক অধিক, এই জঙ্ক শাস্ত্রকারগণ রাত্রের প্রথম ও শেষভাগ দিবা ভাগের অস্তুনির্বিষ্ট করিয়াছেন । ২ তাণ্ডিমানী দেবতাভেদ ।

“ৰিভাবসোরহুতোষ বৃষ্টিং রোচিব-মাতপন্ন। পঞ্চযামোহথ ভূতানি যেন জাগ্ৰতি কৰ্ম্মস্থ ॥” (ভাগ” ৬৬১৫) পঞ্চযুগ (কী) পদ্ধভিঃ পঞ্চভিং যুগমৃ। ইস্রাদি পাঁচ পাঁচ বৎসর দ্বার স্বাদশ বর্ষাত্মক বষ্টিসংবৎসর। “সংবৎসরীঃ পঞ্চযুগং চাহোরাত্র-চতুবিধঃ " ( ভারত ২৪৫৫ ) পঞ্চরক্ষক (পুং ) পক্তগৌড়বৃক্ষ, পখোঁড় গাছ। (রানি) ২ ইঞ্জিয়পঞ্চকরূপ রক্ষক যুক্ত । পঞ্চরতু (ক্লী) পঞ্চানাং রয়ানাং স্যাহার, বা পঞ্চবিধং পঞ্চগুণিতং রত্নং। পাচপ্রকার রত্ন, যথা-কনক, হীরক, নীলমণি, পদ্মরাগ ও মুক্ত এবং মতান্তরে মুক্ত, প্রবাল, বৈক্রান্ত, বজ্র ও মরকত এই পঞ্চপ্রকার ধাতুপদার্থকে পঞ্চরত্ন কহে। “কনকং হীরকং নীলং পদ্মরাগঞ্চ মৌক্তিকম্। পঞ্চরত্বমিদং প্রোক্তমৃষিভিঃ পূৰ্ব্বদৰ্শিভিঃ ॥ রত্নানাঞ্চাপ্যভাবে তু স্বৰ্ণং কৰ্ষাৰ্দ্ধমেব বা । সুবর্ণন্তাপাভাবে তু আজাং জ্ঞেয়ং বিচক্ষণৈঃ " (হেমাদ্রি ) এই পঞ্চরাত্বর অভাবে কর্ষাদ্ধ পরিমাণ স্ববর্ণ এবং তাহার অভাবে আজ্য গ্রহণীয়। ইহাই পণ্ডিতদিগের মত। বিধানপারিজাতমতে পঞ্চরত্ন নীলক, বস্ত্রক, পদ্মরাগ, মৌক্তিক ও প্রবাল এই পাচপ্রকার । “নীলকং বঞ্জকঞ্চেতি পদ্মরাগশ্চ যৌক্তিকম্। প্রবালং চেতি বিজ্ঞেয়ং পঞ্চরত্নং মনীষিভিঃ f" (বিধানপালি" ) হেমাদ্রির ত্রতখণ্ডে লিখিত আছে— "হুবর্ণ রজতং মুক্ত রাজাবৰ্ত্তং প্রবালকম্। জুলুপঞ্চকমাখ্যাতন্ত্ৰ” ( হেমাদ্রি ব্রতখ” ) সুবৰ্ণ, রজত, মুক্ত, রাজাবৰ্ত্ত ও প্রবাল ইহা পঞ্চরত্ন। পঞ্চরয়ানীৰ উপদেশকাং যত্র । ২ নীতিগত কবিতাপঞ্চক। পদাগ পোতস্তথ। বৈদ্যং ক্ষান্তিশক্যে যথাক্রমষ । পঞ্চয়ত্ত্বমিদং প্রোক্তং বিদুষীছপি সুস্থলভম্ " (কাব্যসং ) [ ৬১১ ] পঞ্চরাত্ত্ব †Too-To- -- २ कांगङ्गरणग्न अडभैछ ‘cवांग्रेरणांशगंद्र ज♚िकल्लेइ अौिष्ठौग्नदउँ थकन्नै नर्कउ । (गै) ७ भक्टूफ ८क्वशृशविप्नव ।। * পঞ্চরশ্মি (পুং) পঞ্চ পঞ্চবর্ণ খৰো বস্ত। পিঙ্গলাদি পঞ্চবর্ণ ब्रश्विकएर्षी । श्रीब्रभिरख निजजानि नॅकिल्लेद{णांtश्, प्रदे.थछ পঞ্চরশ্মিণজে স্থর্যাকে বুঝায়, হাঙ্গোগ্য উপনিষদে ইহা প্রতি •ोउि श्हेब्राप्इ । शर्थी-पूर्वब्रश्चिर्ड भित्रण, राप्न, मीण, #ीङ ७ tनांश्ठि ७lहे stौ वर्ष बांदइ । "अ५ ६ ७उi शनग्नश नांछाषाः निबनछांनेिब्रलिईखि ७ङ्गछ मैौनश नैफज cलोश्७िःशडाएनो रु आउिाः निङ्गण यक् सङ्ग यस मैौन এধ পীত এৰ লোহিতঃ।” ( ছাৰোগ্য উপ" ) সুৰ্যদেব পিঙ্গলবর্ণ, পীতবর্ণ, শুক্লবৰ্ণ, নীলবর্ণ ও লোছিতবর্ণ অর্থাৎ স্বৰ্য্যরশ্মিতে এই সকল বর্ণ ৰিদামান আছে। পঞ্চরসলোঁহ (কী) বর্তলৌহ । (বৈাকনি ) পঞ্চয়ল (গ্ৰী) পঞ্চে বিস্তীর্ণ রসে বস্তান আমলকী, হরিতকী, রসোন ইত্যাদি সকল গ্রব্যে পাঁচটা করির স্বল বিজ্ঞমান আছে । ( হারাবলী ) পঞ্চয়ারাদিকাখ, রায়, গুলক, এরও গুষ্ট ও এরগুমুল। ইছ সৰ্ব্বাঙ্গগত আমলাতনাশক । পঞ্চরাত্র ( ) পঞ্চানাং রাষ্ট্ৰীণাং সমাহাম সমাসে আছ । ১ রাত্রিপঞ্চক, পঞ্চনিশ । শত্ৰয়ালং পঞ্চরাত্ৰং বা দশরাত্রমথাপি ব৷ ” (চক্রপাশি ) ২ পঞ্চরায়সাধ্য জীনযাগভেদ । (পঞ্চবিংশ ব্রা ২২:১৩৬) ৩ বৈষ্ণব শাস্ত্রভেদ। এই শাস্ত্রের নাম হইবার কারণ নারদপঞ্চরাত্রে এইরূপ লিখিত আছে— “রারঞ্চ জ্ঞানবচনং জ্ঞানং পঞ্চবিধং তস্t ( ۹ داد ) "ا r۹ffs f۹۰۹ی مgrams orgtع রায়ের অর্থ জ্ঞানগর্তবচন, এই জ্ঞান পাচ প্রকার বলিষ্ঠা ইহার নাম পঞ্চরাত্র। পঞ্চরাত্র মতাবলম্বিগণ পঞ্চরাত্র বা ভাগবত নামে খ্যাত। *क्षप्रांबमठ अडि eथtशैन । अप्नाकब्र विचाग *कब्रांज द गांपठमऊ श्रेष्ठहे आनि दक्षर श* जत्रूडूऊ शकेप्रांtझ् । বাসুদেবাদি চতুৰূছি, প্রেম ও ভক্তি এই মতের প্রধান লক্ষ্য । মহাভারতে মোক্ষধর্শ্বে সাংখ্য, যোগ, পাশুপাত, ৰেঙ্গ প্রকৃতির সহিত পঞ্চরাত্ৰ মতের উল্লেখ পাওয়া যায়। ( মোক্ষধৰ্ম্ম లి ఇ; ) | ভারতে লিখিত আছে, পূৰ্ব্বকালে উপরিচয় (বঙ্গ ) নামে হরিতক্তিপরায়ণ পরমধাৰ্ম্মিক এক নরপতি ছিলেন। সেই মহীপালই সৰ্ব্বাগ্রে স্থৰ্যমুগনিঃস্থত পঞ্চরাত্রশাস্ত্র অবলম্বনপূর্বক বিষ্ণুর অর্জন করিয়া পরিশেষে পিতৃগণের পূজা কয়ি