পাতা:বিশ্বকোষ দ্বাদশ খণ্ড.djvu/২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


as) নাপ পরে পুরোহিত পুষ্পাঞ্জলি দিয়া নিম্নলিখিত মন্ত্রপাঠ করিষেন। মন্ত্ৰ— “অস্তু তিষ্ঠন্তু বিবুধা: স্নানমাসাপ্ত মামকং। খ: পুজাং প্রাপ্য যাতারো দৰা শান্তিং মহীভুজে ।” ‘দেবগণ অদ্য আপনারা এই স্থানে অবস্থান করুন। আগামী দিনে আপনার পূজাগ্রহণ করিয়া রাজাকে বর দিয়া প্রস্থান করিবেন। রাজা ইত্যাদিরূপে পুষ্যস্নানাদি কাৰ্য্য শেষ করিয়া পুরোহিতের সহিত সেই স্থানে শয়ন করিবেন। রাত্রিকালে স্বপ্নদ্বারা এই পু্যমানের শুভাশুভ স্থির করিতে হইবে। রাজা যদি ঐ দিন দুঃস্বপ্ন দেখেন, তাহা হইলে পুনরায় পুষ্যস্নান করিয়া চতুগুণ হোম এবং বিবিধ দান করিবেন। রাজা স্বপ্নে যদি গো, অশ্ব, হস্তী এবং প্রাসাদে আরোহণ করেন, তাহা হইলে রাজ্যসম্পদবৃদ্ধি ও মঙ্গললাত এবং দধি, দেবতা, সুবৰ্ণ, সর্প, বীণ, দূৰ্ব্বা, অক্ষত, ফল পুষ্পচ্ছদ, বিলেপন, চক্রমণ্ডল, শঙ্খ, ছত্র, পদ্ম এবং মিত্রদর্শন হয়, তাহা হইলে নিজের লাভ ও শত্রীক্ষয় হয়। গ্রহণদর্শন, নিগড় দ্বারা পাদবন্ধন, মাংসভোজন, পৰ্ব্বতত্রমণ, নাভিদেশে বৃক্ষোৎপত্তি, মৃতব্যক্তির উদ্দেশে রোদন, অগম্যাগমন, কৃপ, পঙ্ক ও গর্তে অবতরণ, পৰ্ব্বত বা নদী-অবতরণ, শত্ৰুচ্ছেদন, স্বপুত্ৰমরণ, রুধির বা মদ্যপান, পায়সভোজন ও মনুষ্যারোহণ প্রভৃতি স্বপ্ন দেখিলে রাজার কল্যাণ, মুখ ও শক্ৰক্ষয় হইয়া থাকে। অশুভস্বপ্ন --রাজা স্বপ্নে যদি গর্দভ, উঃ, মহিষ প্রভৃতিতে আরোহণ করেন, তাহা হইলে তাহার রাজ্যনাশ হয় এবং নৃত্যগীত, হাস্ত, অশুভবিষয়ের পাঠ, রক্তবস্ত্রপরিধান, রক্তমাল্যবিভূষণ, রক্ত এবং কৃষ্ণবর্ণ স্ত্রীকামনা এই সকল স্বপ্নদর্শনে রাজার মৃত্যু হইয়া থাকে। কুপমধ্যে প্রবেশ, দক্ষিণদিকে গমন, পঙ্কে নিমজ্জন এবং স্নান এইরূপ স্বপ্নদর্শনে ভাৰ্য্যা ও পুত্রের নাশ হয়। স্বপ্নদ্বারা এইরূপে শুভাশুভ নির্ণীত হইবে। পুষ্যস্নানের জন্ত মওপ প্রস্তুত করিতে হইবে। এই মগুপোপরি রাজা উপবেশন করিয়া মাঙ্গলিক এবং নিম্নলিখিত দ্রব্যযুক্ত জলপূর্ণ কলসম্বারা স্নান করিবেন। এই মণ্ডপ বিংশতি হস্ত দীর্ঘ এবং ষোড়শ হস্ত বিস্তৃত হইবে। এই মণ্ডপে পূৰ্ব্বদিন মাতৃকাপূজা, বস্থধারী, ও আভু্যদয়িক শ্ৰাদ্ধ করিতে হইৰে । চন্দন, অগুরু প্রভৃতি দ্বারা সম্মার্জিত মওলস্থলে "হে শস্তবে নমঃ’ এবং ‘অস্ত্রায় হুঁ ফট্‌’ এই মন্ত্রদ্বয় লিখিতে হইবে। পরে মওলবিদ পণ্ডিত কমলমুত্র বা কোষেয় সুত্রে চারিহস্ত পরিমাণ স্বস্তিকাখ্যমওল ও ঐ মণ্ডলের মধ্যে একহন্ত পরিমাণ অষ্টদলপদ্ম প্রভৃতি নিৰ্ম্মাণ করিয়া যথাবিধি আটট কলস এবং মওলমধ্যস্থিত পদ্মের উপরিভাগে পঞ্চমুখ ধট স্থাপন করিবেন। [ २७ ] পুষ্যস্নান নবরত্ন, সৰ্ব্ববীজ পুষ্প ও ফল, হীরক, মৌক্তিক নাগকেশর, ডুমুর, বীজপুরক, আম্রাতক, জীয়, আম, দাড়িম, যব, শালি, নীবার, গোধূম, শ্বেতসর্ষপ, কুৰুম, অগুরু, কপুর, মালোচন, চন্দন, মদন, লোচন মাংস, এলাইচ, কুষ্ঠ, পত্রচও, পর্ণ, বচ, আমলকী, মধি, অঃপ্রকার মঙ্গলদ্রব্য, পূর্ব, মোহনিক, ভদ্র, শতমূলী, পূর্ণকোষ, সিত ও পীতগুঞ্জ, প্রভৃতি দ্রব্য আহরণ করিয়া কলসে রাখিতে হইবে। পরে যথাবিধানে পূজা ও ছোমাদি হইলে দানপট্র ও শয্যাপট্ট প্রস্তুত করিতে হইবে। ষড়বিংশতি পরিমাণ গোলাকার চতুষ্কোণ মানপটু এবং আটহাত দীর্ঘ ও তদ্বন্ধ বিস্তার শয্যাপট্ট প্রস্তুত করিতে হইবে। পরে রাজা মানপটুে উপবেশন করিলে শাস্ত্রৰিছিত ঘট জলদ্বার নিম্নলিখিত মন্ত্রে ব্রাহ্মণসহ স্নান করাইতে হইবে। মন্ত্র যথা “সুরাহামভিষিঞ্চন্তু যে চ সিদ্ধাঃ পুরাতনাঃ । ব্ৰহ্ম বিষ্ণুশ্চ রুদ্রশ সাধ্যাশ্চ সমরুীগণা: | আদিত্য বসবে রুদ্র আশ্বিনেয়েী ভিষগুবরেী। অদিতিদেবমাতা চ স্বাহ লক্ষ্মীঃ সরস্বতী ॥ কীৰ্ত্তিলক্ষ্মীবৃতি: শ্ৰীশ্চ সিনীবালী কুহুস্তথা। দিতিশ্চ মুরস চৈব বিনতা কঙ্করেব চ | দেবপত্ন্যশ্চ যা: প্রোক্ত দেবমাতর এব চ। সৰ্ব্বাস্থামভিফিঞ্চস্তু সৰ্ব্বে চাপারসাং গণা: ॥” ইত্যাদি। বাহুল্য ভয়ে মন্ত্রাদি সকল লিখিত হইল না। পরে পুরোহিত রাজাকে শাস্তিবারি দ্বারা অভিষেক করিবেন। রাজার মানের পর অমাত্য প্রভৃতি রাজার অন্তরঙ্গদিগকেও পুরোহিত অবশিষ্ট জলদ্বারা অভিষেক করিবেন। ইহা রাজাদিগের প্রধান শাস্তি, এই শাস্তিদ্বারা ইহলোকে সকল বিয় ও পরলোকে স্বৰ্গলাভ হইয়া থাকে। রাজগণ যৌবরাজ্যে এই প্রণালীক্রমে অভিষিক্ত হইয়া রাজ্যভার গ্রহণ করিয়া থাকেন। ( কালিকাপু ৮৬ অ: ) বৃহৎসংহিতায় পুষ্যস্নানের বিষয় এইরূপ লিখিত আছে— রাজার উপরই প্রজাগণের শুভাশুভ নির্ভর করে, এই জন্য রাজার প্রজা ও রাজ্যের মঙ্গলের জন্য এই পুষ্যস্নান অবশু বিধেয় । স্বয়ম্ভু ব্ৰহ্মা ইন্ত্রের জন্য বৃহস্পতিকে এই শাস্তির উপদেশ দিয়াছিলেন, ইহা অপেক্ষা পবিত্র ও বিপংশান্তিকর আর কিছুই নাই । শ্লেয়াতক, অক্ষ, কণ্টকী, কটু-তিক্ত ও গদ্ধবিহীন বৃক্ষ আর পেচক, শকুনি প্রভৃতি অনিষ্টকর পক্ষী যে স্থলে বিচরণ করে না, এবং তরুণ তরু, গুল্ম, বল্লী ও লতা দ্বারা প্রতানীকৃত ও নানা প্রকারে,মনোরম স্থানে পুষ্যমান করিতে হয়। দেবমন্দির, তীর্থ, উদ্যান বা রমণীয় প্রদেশে পুষ্যমান বিশেষ দ্বিত