পাতা:বিশ্বকোষ পঞ্চম খণ্ড.djvu/২১৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গগুকী রারপুর, রতবাল, বগছা, নারায়ণপুর, ও শনিচরি, সারণে সলিমপুর, সত্তর, সারঙ্গপুর, সোহালি, রেব, বারবা, । সজ্জা ও শোনপুরে ইহাব ঘাট আছে। } .

গওক নদী অতি প্রাচীন কাৰু হইতে পুণ্যসলিল । বলিয়া বিখ্যাত স্কন্দপুরাণে হিমবংখও ৮৪, পাতালళ త్రి ) చి), ভবিষ্যেব্ৰহ্মথ° ৩৮১-১০ ) মহাভারতের সভাপর্বের ২০ অধ্যায়ে লিখিত আছে যে কৃষ্ণ অৰ্জুন ও ভীমসেন কুরুদেশ হইতে গমন করিয়া কুরুজাঙ্গল পার হইয়া পদ্মসরোবরে আসিলেন। তথা হইতে কালকূট পৰ্ব্বত অতিক্রম করির গণ্ডকা, চক্রাবৰ্ত্ত ও একটু পাৰ্ব্বত্য.স্রোতস্বিনী পার হইয়া চলিলেন। বৌদ্ধfদগের গ্রন্থেও গণ্ডকী নদীপ্ত নামোল্লেখ দেখিতে পাওয়া যায়। গ্রীকদিগের গ্রন্থেও ইহার.উল্লেখ আছে। মিগাস্থনিস ইহাকে কওকেতিস্ (Candocbates) বলিয়া উল্লেখ করিয়াছেন। টলেমী ইহার কোন নামে উল্লেখ করেন নাই ; কিন্তু প্রকারাস্তরে ইহার বৃত্তান্ত লিখিয়াছেন। তাহার মতে এই নদী সেলামপুর হইতে উঠিয় শৈলপুর বা শৈলগ্রাম হইতে আসিয়া গঙ্গার সহিত মিলিত হুইয়াছে। পূৰ্ব্বে এই নদীতে শালগ্রামশিল প্লাওয়া য়াইত বলিয়া ইহার নাম শালগ্রামী বা নারায়ণী । কথিত আছে, নায়ায়ণ শনির ভয়ে ভীত হইয়া মায়াপ্রভাবে শৈলময় পৰ্ব্বত হইয়াছিলেন। শনি তাহ বুঝিভে পারিয়া কটরূপে তাহার মধ্যে প্রবেশ করিয়া একদিক্ হইতে অপরদিক্ পর্য্যন্ত গৰ্ত্ত করিয়া ফেলে। এক বৎসর কাল এইরূপে উত্যক্ত হইয়া নারায়ণের ঘৰ্ম্ম হইতে লাগিল। এক গও কৃষ্ণবর্ণ০ও শ্বেতবর্ণ ঘৰ্ম্ম বাহির হইল। সেই কৃষ্ণবর্ণ ঘৰ্ম্ম হইতে কৃষ্ণ ও শ্বেতবর্ণ ঘৰ্ম্ম হইতে শ্বেত গণ্ডকী গ্রবাহিত হইল । একটা পূৰ্ব্বে ও অপরটা পশ্চিমে চলিল। " এক বৎসরের পর বিষ্ণু নিজরূপ ধরিয়া চলিয়া গেলেন। কিন্তু শালগ্রামশিলাকে নারায়ণরূপে পূজা করিতে বলিয়৷ দিলেন। Lশালগ্রাম দেখ। ] সেই অবধি উহা পূজিত। গগুকের জলে নারায়ণের অংশ আছে বলিয়া উহ। হিন্দুর নিকট অতি পবিত্র। ৩ পূৰ্ব্বেক্ত গুণ্ডকী নদীর অধিষ্ঠাৰী দেবী। গগুকীদেবী দশহাজার বৎসর পর্য্যস্ত বহুকষ্ট্রে বায়ু ও বৃক্ষগলিতপত্র খাইয়। ভগবান বিষ্ণুর আরাধনা করেন। বিষ্ণু গওৰ্কীর তপস্তায় সন্তুষ্ট হইয়াতাহার নিকটে উপস্থিভ হইলেন । গগুকী - সেই & চতুৰ্ভুজ শঙ্খ-চক্র-গদা-পদ্মধারী বিষ্ণুকে দেখিয়া তক্তিযুহষ্কারে নানাবিধ স্তব করেন। তাহাতে বিষ্ণু আরও প্রীত হইলেন এবং গওৰ্কীকে বর [.. So I লইতে বলিলেন। গণ্ডকী বলিল, “छत्रौ१ब्र ! पनि ५ গণ্ডকী --- - ... দাসীর প্রতি আপনার করুণা হইয়া থাকে, তবে দাসীর অভিপ্রায় যে আঁপনি আমার গর্তগত श्रेष्ठ थांमाज ५झ ইউন।” বিষ্ণু বুলিলেন, “গগুকি ! আমি শালগ্রামtশলাৰূপে তোমার গর্ভে বাস করিব, তুমি জগতের মধ্যে শ্রেষ্ঠ হইবে। "তোমার দর্শন, স্পর্শন, তোমাতে অবগাহণ স্নাল এবং তোমার জলপান করিলে কায়িক, বাচনিক ও মানসিক এই তিন প্রকার পাপ বিনষ্ট হয় ।” * যিষ্ণু এই প্রকার 'বর দিয়া চলিয়। গেলেন । সেই হইতেই গণ্ডকী নদী সকল নদীর প্রধান। হইল। এ দেশে যে সকলু শালগ্রাম শিলা ভক্তিসহকারে বিষ্ণু ভাবির পূজিত হইয়া থাকে, সেই সকতু শিলাই গণ্ডকী নদী হইতে উৎপন্ন। বিষ্ণুর বরেই তাহা.সকলের আদরণীয় হইয়াছে । ( বরাহপুরাণ ) [ শালগ্রাম দেখ। ] গণ্ডকী (ছোট ) একটা গ্রসিদ্ধ নদী। বড়গওকের মত ইহাও নেপালরাজ্যের পর্বতশ্রেণী হইতে উদ্ভুত হইয়। গোরক্ষপুর জেলা হইয়া আসিয়াছে । ইহা বড় গণ্ডক হইতে ৪ ক্রোশ দূর থাকিয়া সমান্তরালভাবে আসিয়া সারণজেলার মধ্যে সুনারিয়া নামক স্থানে (অক্ষা ২৫°৪১' উঃ ও দ্রাঘি ৮৫-১৪ ৩• পূঃ) ঘর্ঘরা নদীতে পতিত ইয়াছে, যে স্থানে ইহার উৎপত্তি সেই স্থানকে সোমেশ্বর পর্বত বলে। উহ। চম্পারণের দ্বন নামক পৰ্ব্বতের অংশ। হরহা নামক গিরিশঙ্কট ইহার অভি নিকট। এজন্ত ছোটগগুকের প্রথমাংশ হরহ নামে অভিহিত । তৎপরের অংশ ক্রমশ: শিখরেন, বুড়িগণ্ডক ও ছোটগণ্ডক বলিয়া উক্ত হইয়া থাকে। রামনগর, বেতিয়া ও সগোলিনগর ইহার তীরে অবস্থিত । গ্রীষ্মকালে ইহাতে ভুল থাকে না। তখন ইহার বিস্তার ৪• হস্তমাত্র। কিন্তু বর্ষাকালে ইহাতে প্রচুর জল আসিয়া পড়ে । উড়িয়া, ধোরাম, জমুয়া, পাণ্ডাই, হরবোর, বালইয়া, রামরেখা ও মাসাই নামক উপনদী ইহাতে মিলিত হইয়াছে । কাহারও মতে এই ছোট গণ্ডকের অপর নাম হিরৎভী । গণ্ডকী, পূৰ্ব্বোক্ত গণ্ডকী নদী-নিঃস্থত একটা পয়োগ্রণালী। গঞ্জকর্মীর একটা শাখা হইতে বাহির হইয়া সারণ জেলার মধ্যে দক্ষিণপূৰ্ব্বভাগে শীতলপুরের নিকট মহী নামে শোন পুরের নিকট গঙ্গায় মিলিত হইয়াছে। গোপালগঞ্জ, চৌকি হসন, রামপুর, থোবাম, গুরথা ও শীতলপুর ইহার তটে অবস্থিত। গঙ্গার বন্ত হইলে সেই জল পৰ্য্যন্ত গিয়া ' থাকে। দিববার পর্যন্ত সমুদায় স্থান জল প্লাবিত হর । औप्रकाश श्हेप्ठ जागाछहे छनौँ.थान्क , क्लबकत्व छथन ऐशग्न मरश बैं५ वाषिङ्गा निझी जण षद्भिग्रा. कृषिकार्षी <