পাতা:বিশ্বকোষ পঞ্চম খণ্ড.djvu/৩০১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গাইকোবাড় [ ও০২ ] গাইকোবাড় জাবার ১৫ লক্ষ টাকা আয়ের সম্পত্তি কাড়িয়া লইলেন। ১৮৩২ খৃষ্টাব্দে লর্ড ক্লেয়ার ঘরদায় গিয়া গাইকোবাড়ের সহিত সাক্ষাৎ করিলেন। স্থির হইল যে, গাইকোবাড় মহাজমদিগের ঋণ পরিশোধ করিযেন। মহাজনদিগের উপয় কোনরূপ অত্যাচার না হয়, এজন্য গবর্মেন্ট দায়ী হইলেন। গাইকোবাড় অশ্বারোহী সেনাদলেয় বেতন সময় মত দিযেন স্বীকার করিলেন এবং অঙ্গীকার প্রতিপালনের জামিন স্বরূপ গবর্মেন্টের নিকট ১০ লক্ষ টাকা জমা রাখিলেন। গবর্মেন্ট ইতিপূৰ্ব্বে ১৫ লক্ষ টাকা আয়ের সম্পত্তি কাড়িয়া লইয়াছিলেন, তাহা ফিরিয়া দিলেন। কিন্তু শিবাজীর পক্ষে প্রতিজ্ঞা পালন করা অসাধ্য হইয়া উঠিল। তিনি নানা বিষয়ে গবর্মেন্টের পরামর্শের বিরুদ্ধে কাৰ্য্য করিতে লাগিলেন । অতঃপর ইংরাজ গবমেণ্ট আর চুপ করিয়া থাকিতে পারিলেন না । গাইকোবাড়ের কতকগুলি স্থান ইংরাজ গবর্মেন্টের অধিকারে ছিল। গাইকোবাড়কে তাহার খাজনা দিতে হইত। ১৮৩৭ খৃষ্টাব্যে গবৰ্মেট গাইকোবাড়কে এই থাজমার টাকা দেওয়া বন্ধ করিলেন এবং তৎপর বর্ষে নউসরী নামক স্থান অধিকার করিয়া লইলেন। শিবাজীয় তথাপি গ্রাহ নাই। তিনি শর্ত মত কাৰ্য্য করিবার কোন চেষ্টাই করিলেন না। র্তাহায় বিপক্ষে ক্রমশঃ অনেক অভিযোগ উপস্থিত হইতে লাগিল। গবর্মেন্ট আপনাদিগের অসন্তোষ প্রকাশ করিবার জন্য পিৎলাউড নামক জেলার শিবাজীর যে অংশ ছিল, তাহ অধিকার করিয়া লইলেন । উহার আয় ৭,০২,০০০ টাকা । তাহার পর তাহাকে রাজ্যচ্যুত করিয়া অপরকে রাজ্য দিবার ভয় দেখান হইল। কিছুতেই তাহার ক্ৰক্ষেপ নাই । শেষে ১৮৩৯ খুষ্টাব্দে গবর্মেন্ট যখন সাতারীর রাজা প্রতাপসিংহকে রাঙ্গাচুত করিলেন, তখন শিবাজী কি ভাবিয়া বহুত স্বীকার করিয়া দুই একটা ব্যতীত সকল বিষয়ে গবর্মেন্টের আজ্ঞা মত কাৰ্য্য করিতে অঙ্গীকার করিলেন। ইংরাজ গবর্মেন্ট সন্তুষ্ট হইয়া পিংলাউডের অংশ ছাড়িয়া দিলেন এবং পূৰ্ব্বে জামিন স্বরূপ যে দশ লক্ষ টাকা গচ্ছিত রাখিয়াছিলেন, তাহাও প্রত্যৰ্পণ করিলেন। ১৮৪৭ খৃষ্টাবে ১৯এ ডিসেম্বর শিবাজীর মৃত্যু হয় । তাহার জ্যেষ্ঠ পুত্র গণপংরাও তৎপদে প্রতিষ্ঠিত হইলেন। গণপংরাও গাইকোবাড়ের রাজত্বকালে কোন বিশেষ ঘটনা ঘটে নাই। প্রজার মুখস্বচ্ছলতার দিকে তঁtহার দৃষ্টি ছিল না। নিজের বিলাস লইয়াই কালধাপন করিতেন । ১৮৫৬ খৃষ্টাব্দে বোম্বাই ও বরদা রেলের জষ্ঠ ইংরাজ গবর্মেটিকে জমি দান করেন । এইরূপ শর্ত থাকে যে এই রেল খুলিলে গাইকোবাড়ের জামদানী রপ্তানি মাস্থলের যে ক্ষতি হইবে, তাহ পূরণ করিয়া দিতে হইবে। বৎসর বৎসর সেই ক্ষতির হিসাব হয় ও পূরণ করিয়া দেওয়া হয় । ১৮৫৬ খৃষ্টাব্দে ১৯ এ নবেম্বর গণপৎরাওর মৃত্যু হয়। তাহার সন্তান না থাকায় তাহার কনিষ্ঠ খণ্ডেরাও সিংহাসনে আরোহণ করেন । [ খণ্ডেরাও গাইকোবাড় দেখ। ] ইংরাজ গবর্মেন্ট ইহাকে জি সি এস্ আই (G. C. S. I) উপাধি দেন। ১৮৭২ খৃষ্টাবে ২৮এ নবেম্বর খণ্ডেরাওর মৃত্যু হইলে তাহার ভ্রাতা মলহাররাও গাইকোবাড় যয়দার সিংহাসনে আরোহণ করিলেন। খণ্ডেরাওর বিধবাপত্নী যমুনাবাই তখন গর্ভবতী ছিলেন। ইংরাজ গবর্মেন্ট মলহাররাওকে বলিয়। রাখিলেন যে, যদি যমুনাবাইয়ের গর্ভে পুত্র সস্তান জন্মে, তবে তিনিই রাজত্ব পাইবেন । কয়েক মাস পরে বমুনাবাইয়ের একটা কন্ত। সস্তান হইল। সুতরাং মলহাররাও নিষ্কণ্টকে রাজ্য করিতে লাগিলেন। মলহায়রাও পূৰ্ব্বে থণ্ডেরাওর প্রাণবিনাশের চেষ্টা করিয়াছিলেন বলিয়া কারাগারে নিক্ষিপ্ত হন এবং কারাগার হইতে একবারে সিংহাসনে আরোহণ করেন। এরূপ লোক যে ভালরূপ রাজকাৰ্য্য করিবে, ইছ কেহই আশা করে নাই। ফলেও তাঁহাই হইল। ১৮৭০ খৃষ্টাব্দে প্রজীয়া বিরক্ত হইয়া ইংয়াজরাজের নিকট আবেদন করিলে গবর্মেন্ট তদারক করিবার জন্য একটী কমিসন নিযুক্ত করিলেন। কমিসন আবেদনের কথা ছাড়া রাজস্ব, রাজনৈতিক ও বিচার প্রভৃতি নানা বিষরে তদারক করিয়া মন্তব্য লিখিয়া পাঠাইলেন । সেই মন্তব্য পাঠ করিয়া ইংরাজ রাজ প্রতিনিধি লর্ড নর্থব্রুক তাহাকে ১৮৭৫ খৃষ্টাব্দ পর্য্যস্ত শাসনসংস্কার করিবার সময় দিলেন । ইতিমধ্যে তিনি যদি সুবনোবস্ত করিতে না পারেন তাহ হইলে गिश्शमनाङ का श्रेष्व । किढ़ ४४१८ १४ारल हेश्ब्रांज রেসিডেণ্ট কর্ণেল ফেয়ারকে বিষ প্রয়োগের চেষ্টার সংবাদ প্রচার হইল। অনুসন্ধানে মলহাররাওর প্রতিই সন্দেহ হয়। গবর্ণর জেনারেল লর্ড নর্থব্রুক একটী ঘোষণা প্রচার করিলেন বে, গাইকোবাড়ের বিপক্ষে বধন সন্দেহ, তখন তাহার অনুসন্ধানের জন্ত একটী আদালত বসিবে। যত দিন অ}দালতের ধিচীরে তিনি নির্দোষ বলিয়া সাব্যস্ত না হন, ততদিন তিনি রাজ্যতার গ্রহণ করিতে পারিবেন না । ততদিন ইংরাজ গবর্মেন্ট স্বয়ং সেই তার গ্রহণ করিবেন। মলহাররাও ইতিমধ্যে আদালতে আপনার দোষক্ষালণের জন্য প্রমাণাদি দিবেন। [ মলহাররাও দেখ। ]