পাতা:বিশ্বকোষ পঞ্চম খণ্ড.djvu/৯৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


খাতব্যবহার [ న8 ] थोंठिक

- *T

মুখের বিস্তার ১ ও তলের বিস্তার এ উভরের যোগফল ১৫, এই হুইটকে যথাক্রমে দৈর্ঘ্য ও বিস্তার কল্পনা করিলে স্থতির ক্ষেত্রফল হইল ২৭,ইহাদের যোগফল (১২ +৩•+ ২৭০ – ৪২• ) ৪২• ; উহাকে ৬ দ্বারা ভাগ করিলে সমক্ষেত্র ফল হইল ৭•, ইহাকে বেধ ৭ দিয়া পূরণ করিলে ফল হইল ৪৯• ; অতএব ঐ খাতের পরিমাণ হইল ৪৯• ঘনহন্ত । বাপী, পুষ্করিণী প্রভৃতির পরিমাণ নির্ণর প্রায়শ এই নিয়মে হইয়া থাকে, কারণ উহার মুখ ও তল সমান নহে। সমভূজে সমথাতের উদাহরণ। যে খাতে দৈর্ঘ্যের পরিমাণ ১২, বিস্তার ১২ ও বেধ ৯ তাহার ঘনফল কত ? > 2. প্রক্রিয়া-ক্ষেত্রফল ১৪৪কে বেধ ৯ দ্বারা গুণ করিলে ফল হইল ১২৯৬ ঘনহস্ত। বৃত্তখাতের উদাহরণ—যে বৃত্তখাতের ব্যাস ১০ ও বেধ ৫ তাহার ফল স্থির কর । ব্যাস ১ ০ বেধ ৫ প্রক্রিয়া-বৃত্তক্ষেত্রের নিয়মানুসারে প্রক্রিয় করিলে সুক্ষ্ম পরিধি হইল “:}; এবং সূক্ষ্ম ক্ষেত্রফল হইল - ইহাকে বেধ ৫ দ্বারা গুণ করিলে ক্ষেত্রের ফল হইল - যে থাতের মুখ হইতে ক্রমে অল্প হইয়। তলে একেবারে ক্ষেত্রের অতীব হয়, তাহাকে সূচীখাত বলে । ঐ খাতটকে সমথাত কল্পনা করিলে যাহা ফল হুইবে, তাহার ও অংশই স্বচীথাতের ফল জানিবে । উদাহরণ —যে স্বচীখাতে দৈর্ঘ্য ১১, বিস্তার ১২, বেধ ৯, তাহার ফল কত ? ...' ক্ষেত্র পূৰ্ব্বেই সমখাতরূপে প্রদর্শিত হইয়াছে। প্রক্রিী—ঐ সমখাতের ফল ১২৯৬কে ৩ দিয়া ভাগ দিলে ফল হয় ৪৩২ ; অতএব স্বচীখাতেরও ফল হইল ৪৩২। যে স্বত্তাকার স্বচীখাতের ব্যাস ১০ ও বেধ ৫ তাহার ফল কত ? পূৰ্ব্বগ্রদর্শিত সমবৃত্তখাতের ক্ষেত্রফল A-কে ৩ দ্বার। r - - ভাগ করিলে ফল হইল "" ; অতএব স্বচীখাতেয় ফল হইল - (লীলাবতী-খাতব্যবহার)। ' খাত (যাবনিক ) ১ একত্র বন্ধ পত্রাদি, বহি। ২ হিসাব পুস্তক, বাহাতে দেন পাওনার হিসাব রাখা হয়। ৩ সম্পত্তি । খাতাবাদী, খাতাম্বারা করনির্ধারণপ্রণালী। ইহাতে কৃষ্ণ কের উর্বর ও অনুর্ধর ভূমির অনুপাত অনুসারে চাষ করিতে হয় অর্থাৎ একজন বিশ বিধ উৰ্ব্বর। জমী চাষ করিলে তাহাকে তদনুসারে অনুৰ্ব্বরা জমী সমেতকর দিতে হইবেক । প্রত্যেক চfযা যত পরিমাণে উৰ্ব্বরা জমী চাস করিবে, তাহাকে অনুৰ্ব্বর জমীর অনুপাত অনুসারে দায়ী হওয়ার নাম খাতাবন্দী। शांङि (छो) थन उitद-खिन् श्राफ़ । थनन । খাতিক, দাক্ষিণাত্যের কসাই জাতিবিশেব। বোম্বাই প্রদেশে বিজয়পুর ও শোলাপুর অঞ্চলে ইহাদের বসবাস । কোথাও বা ইহাদিগকে স্বৰ্য্যবংশীলাড় বলে । সম্ভবতঃ ইহার ওর্জরের স্বৰ্য্যবংশী জাতির শাখা, তথা হইতে এই অঞ্চলে আলিয়া বাস করিয়া থাকিবে । খাতিকের মধ্যে সুর্য্যবংশীলাড় ও মুলতানী নামে থাক বা শ্রেণী আছে । এই দুই বিভিন্ন থাকের মধ্যে পান ভোজন বা বিবাহদি কার্য্য চলেন । ইহাদের মধ্যে মধ্যে বিলগীকর, বুজুরুকর, চেলুকাল, ধৰ্ম্মকম্বলা, গোবিন্দকর, প্রভুকর, রাজপুরি প্রভৃতি উপাধি আছে। বরকন্যার এক উপাধি হইলে বিবাহ হয়না । ইহারা সকলেই মরাঠী ভাষায় কথা কয়, তবে কেহ কেহ বা কর্ণাটী ও হিন্দী ভাষার কথা কহিতে পারে। ইহার ছাগল, ভেড়া, মহিবাদি জন্তু পুষিয়া খাকে । পাথর ও মাটী দিয়া গৃহাদি নিৰ্ম্মাণ করে। সকলে পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্ন থাকিতে ভালবাসে । ময়লা কাপড় কেহ পরিধান করেন । জমিতে লাঙ্গল দিবার জন্য কৃষিজীবী খাতিকের গোরু ও যোড় রাখে। অন্ন, কুটী, রবিশস্ত ও শাক সবজি ইহাদের প্রধান আহার । সকলেই কিছু মৎস্ত ও মাংসভক্ত। ভেড়া, হরিণ, খরগোস, ঘুঘু, মুরগী প্রভৃতি পক্ষীমাংস খাইতেও আপত্তি নাই । আশ্বিন মাসে “মার নবমী” ( দুর্গাপুজার মহানবমী) তিথি এই জাতির মহাপর্কের দিন। এই দিবসে অনেকেই ভবানীদেবীর পূজার্থ ভেড়া বলি দিয়া থাকে ও মহাসমাদরে মার প্রসাদী মাংস খাইয় পরিভৃপ্ত इब्र। श्रांश्नि भाएन नदनांक अर्षी९गशांगग्रा श्हेएउ मशमदमैौ পৰ্য্যন্ত মহাধুমধাম হয়। শিবরাত্রে ও প্রতি একাদশীতে ইহার দোকানপাট বন্ধ করিয়া রাখে। ভাত্র মাসের গণেশ