পাতা:বিশ্বকোষ ষষ্ঠ খণ্ড.djvu/৩৫৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


छैन । ( లీఁ• ] প্রথম স্থই বংশের রাজত্বকালে কোন বিশেষ ঘটনা ঘটে মাই। দ্বিতীয়বংশীয় টেভূ সম্রাটের রাজত্বকালে রাজগুবনে অকস্মাৎ এক প্রকাও উতকৃক্ষ উৎপন্ন হইয়াছিল। সম্রাটু ধৰ্ম্মপথাবলম্বী হইলে ঐ বৃক্ষ শুকাইয়া যায় । চিউ বংশীয় ত্রয়োবিংশ সম্রাটু লেং বংশৃপত্তির রাজত্বকালে ৫৫০ পুঃ খৃষ্টাব্দে শাল্টং প্রদেশের কায়াকু নগরে মহাদার্শনিক, বিশ্ববিখ্যাত কনফুচি জন্মগ্রহণ করেন। ইনি তাৎকালিক ভ্রমসঙ্কুল চীনের ধৰ্ম্মমত সকল খণ্ডন করিয়া নিজ বিশুদ্ধ ধৰ্ম্মমত ও রাজনীতি সকল প্রবর্তিত করিলেন । কনফুচি, পূৰ্ব্বতম চীন মনীষী ফোছি, ভেং ভাং প্রভৃতি প্রণীত ধৰ্ম্মগ্রন্থ সকলের বিশুদ্ধ টীকাসহ সঙ্কলন এবং অনেক নুতন গ্রন্থ রচনা করেন। ঠিক এই সময়েই প্রসিদ্ধ গ্রীক পণ্ডিত পিথাগোরস্ পশ্চিম দেশে যশোলাভ করিতেছিলেন । [ কনফুচি দেখ। ] এই বংশীয় পরবর্তী সম্রাটগণের রাজত্বকালে চীন বহুসংখ্যক ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র রাজ্যে বিভক্ত হইয়া যায়। এই সকল রাজ্যের নৃপতিগণ পরম্পর যুদ্ধ বিগ্ৰহাদিতে সৰ্ব্বদা ব্যাপৃত থাকায় রাজ্য অতিশয় হীনবল হইয়াছিল । এই বংশের দ্বাত্রিংশ সম্রাট হীনভ্যাং যখন চীনে রাজত্ব করেন, তখন ৩২৭ পুঃ খৃঃ অন্ধে আলেকজণ্ডার ভারতবর্ষ আক্রমণ করেন। ছিন্‌ নামক চতুর্থবংশীয় সম্রাটগণের মধ্যে সিহোয়াংটি বা চিং নামক চতুর্থ সম্রাটই সৰ্ব্বাপেক্ষ অধিক বিখ্যাত। ২১৩ পূ: খৃঃ অব্দে তিনি ভিন্ন ভিন্ন প্রদেশ জয় করিয়া সমস্ত চীনদেশের একাধিপতি হন । উত্তরভাগে তাতারদিগের দৌরাত্ম্য নিবারণার্থ ইনিই বিখ্যাত চীনের প্রাচীর নিৰ্ম্মাণ করেন। ( *ई थtझेौद्र शृशिशैब्र नाङ जाणकरईjब्र भ८षा अकहैि । ) পরিশেষে দিগ্বিজয়ে মহা গৰ্ব্বিত হইয়া তিনিই চীনের প্রখমধীশ্বর, পরবর্তী লোকদিগের এই বিশ্বাস জন্মাইবার নিমিত্ত कौन ठिनि कृत्रेि ७ भित्रदिवब्रक दाएँौछ चक्रछांछ नगरक अंहॉमेिं एक शैफूठ कब्रियांत्र अन्नमष्ठि cबन, थष९ ठां९कणिक चानक नसिcङब्र थांशबष रू८ब्रन ।। ७३ छञ्चहे छैौ८मग्न ७थांछैौन शैष्ठिशन नभरड खांमां दांश्च नांदे । * - शंम् नामक अक्षयक्श्जेत्र अडेनश्व जमाहे क्लाद्रि निको ৮৮ খৃ: জৰে পাৰ্থীয়গণ কোন কার্ধ্যোপলক্ষে দূত প্রেরণ कब्रिवृश्नि । ५ाहे वश्लैौद्र बफ़ विश्ल गडाई cशं*ौब्र ब्रांजफ्কালে তাহার নিকট বাণিজ্যকরণার্থ ১৬৬ খৃঃ অঙ্গে রোম রাজ্যের ৬ষ্ঠ সম্রাটু মার্কাস অবিলিয়স কতিপয় রোমীয় সম্রাস্ত পুরুষকে প্রেরণ করেন। সেই অবধি চীনের সহিত রোমের বাণিজ্য আরম্ভ হয়। ষষ্ঠ, সপ্তম ও অষ্টমবংশীয় সম্রাটগণের রাজ্যকালে সমস্ত চীনদেশ যুদ্ধ বিগ্রহে ছিন্ন ভিন্ন হইয়াছিল। ৪১৬ খৃঃ অব্দে চীনরাজ্য উত্তর ও দক্ষিণ দুইভাগে বিভক্ত হইয়া যায়। হোনান নগর উত্তরভাগের এবং নাস্কিন নগর দক্ষিণভাগের রাজধানী হইয়াছিল । ৪৮৯ খৃঃ অঙ্গে নবমবংশীয় ২য় সম্রাটু ভূটর রাজত্বকালে ফালিন্‌ নামক একজন নাস্তিক দার্শনিক চীনে জন্মগ্রহণ করেন । দশমবংশীয় সম্রাটগণের রাজত্বকালে সংগ্রামাদি স্বারা চীনের ব্যতিব্যস্ত হইয়া পড়ে। একাদশবংশীয় সম্রাটগণের রাজত্বকালে চীনদেশে মুখ শাস্তির উদয় হয়। ইহার সাতিশয় বিস্তোৎসাহী ও প্রজারঞ্জক ছিলেন । এই বংশোদ্ভব ২য় সম্রাটু ভিটি নিয়ম করেন যে, রজনীযোগে কোন ব্যক্তি অকারণ রাজপথে ভ্রমণ করিতে পারিবে না । এই নিমিত্ত অসংখ্য প্রহরী এক ঘটিক রাত্রি হইলে ভেরী বাজাইয়া লোক সাধারণকে সতক করিয়া দেয়। এই নিয়ম অস্থাপিও চলিয়া আসিতেছে । ত্রয়োদশবংশীয় ২য় সম্রাটু টেছং চীন দেশে বিভার সমধিক উন্নতি করেন। তিনি রাজভবনেই এক উৎকৃষ্ট বিদ্যালয় স্থাপন করিয়া প্রায় আটহাজার ছাত্রকে শিক্ষা প্রদান করেন । ইহার মহিষীও বিদুষী ছিলেন । তিনি অন্তঃপুরবাসিনী স্ত্রীলোকদিগের কর্তব্য বিষয়ে একখানি সুন্দর পুস্তক রচনা করিয়া যান। এই টেছং সম্রাটের রাজত্বকালেই নোষ্টোরিয়ান্‌ খ্ৰীষ্টানগণ চীনে আগমন করেন। সম্রাটু তাহাদিগকে ধৰ্ম্মপ্রচার করিবার অনুমতি ও গির্জা নিৰ্ম্মাণ জন্য ভূমি দান করেন । ইহার পর চীনরাজ্য বায় বার তাতারদিগের দ্বারা আক্রাস্ত হইয়া লগুভগু হইয়া যায় এবং নানা বংশের হস্তগত হইলে অবশেষে ১১১৭ খৃঃ অশ্বে কিনতাতারগণ চীনের উত্তরভাগে রাজ্য স্থাপন করে । এই বংশের রাজশ্বকালে ১২১২ খৃঃ অলে ছুর্দাস্ত মোগল সেনাপতি জঙ্গিস খাঁ চীন আক্রমণ করেন ।