পাতা:বিশ্বকোষ ষষ্ঠ খণ্ড.djvu/৪০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ঘোটক আমাৰওঁ থাকিলে অশ্বের যে গুণ হুইয়া থাকে, সেই সেই স্থানে শুক্তি থাকিলেই সেই সেই গুণ প্রকাশ পায় । অশ্বের দোষ —যে ঘোড়ার সকল শরীর শুভ্রবর্ণ, কিন্তু প। চারিখানির রঙ কাল, তাহাকে যমদূত বলে। ইহা পরি. ত্যাগ করা উচিত । অশ্বের চারিখানি পা চারিবর্ণের श्रे८ग डाशत्र नान मूषणैो, oरे जाउँौत्र अष ह३८ड कूगনাশ হয় । বাম কপালে একটা মাত্র আবৰ্ত্ত থাকিলে তাহাকে চৰ্ব্বণী বলে । এই জাতীয় অশ্ব পালকের অস্থিত. কারী । ৰামগ েগু মা বৰ্ত্ত থাকিলে ধনক্ষয়, কক্ষে থাকিলে মৃত্যু, জামুদেশে থাকিলে ক্লেশ অথবা প্রবাল এবং ত্রিবলীতে আবৰ্ত্ত থাকিলে ত্রিবর্গের বিনাশ হইয়া থাকে । যে ঘোড়ার মেঢ় দেশে আবৰ্ত্ত থাকে, সেই ঘোড় রাজগণের পক্ষে পরিত্যজ্য । পৃষ্ঠবংশে একটা মাত্র মাবৰ্ত্ত থাকিলে ঘোটককে ধুমকেতু ৰলে, ইহার পরিত্যাগ করা উচিত। গুহ, পুচ্ছ ও বলিস্থানে তিনটা আবৰ্ত্ত থাকিলে তাছার নাম কৃতাস্ত, এই জাতীয় ঘোড়াও পরিত্যাগ করিবে । ছানদন্ত, অধিকদন্ত, করালী, কৃষ্ণতালুক, মুম্বলী ও শৃঙ্গী এই ৬ প্রকার ঘোড়াকে ঘাতক বলে । অশ্বের দস্ত সংখ্যা কম হইলে হীনদন্ত ও অধিক হইলে অধিক দন্ত ৰলে। যাহার তিনটা পা শ্বেত ও অপরটার রঙ কাল অথবা তিনখানি কৃষ্ণবর্ণ এবং অপরখানি শুভ্র, তাহার নাম মুষল । যে ঘোড়ার দস্তগুলি দেখিতে অতিশয় ভীষণ ও উন্নতাবনত তাহার নাম কৱালী। তালুদেশের রোমগুলি কৃষ্ণবর্ণ হইলে তাহাকে কৃষ্ণতালুক বলে । যদি কর্ণ ও কণমূলের অস্বভাগে শৃঙ্গের ন্যায় চিহ্ন দেখিতে পাওয়া যায়, তাহা শৃঙ্গী নামে অভিহিত । অশ্ব-তাড়ন করিবার নিয়ম।—রক্তস্থলী, মুখ, ওষ্ঠ, গলদেশ ও পুচ্ছ এই কয়টা স্থানে তাড়ন করা উচিত । কিন্তু কোন কারণে অশ্ব ভীত হইলে বক্ষঃস্থলে, উন্মাৰ্গগামী হইলে মুখে, কুপিত হইলে পুচ্ছসংস্থানে এবং ভ্রান্ত হইলে উভয় জামুতে আঘাত করা উচিত । অস্থানে আঘাত করিলে অনেক দোষ ঘটিবার সম্ভাবনা, এই কারণে ভালরূপে দেখিয় আঘাত করিবে । যে ঘোড়। ১৬ মাত্রাকালে একশত ধনু পরিমিত পথ অতিক্রম করিতে পারে, তাহাকে উত্তম, বিংশতি ধন্থ যাইতে পারিলে মধ্যম, ইহার নুনি হইলে সেই ঘোড়াকে অধম জানিবে । ভাদ্র অশ্বিনমাসে অশ্বের পিত্ত অধিক বৰ্দ্ধিত হয়, সেই জন্য অধিক চালনা করা উচিত নহে। কাৰ্ত্তিক মাসে [ ৩৮ ] ঘোটক মহৎকার্য্যে এবং ছেমস্ত, শিশির ও বলস্ত ঋতুতে ইচ্ছাছুসারে চালনা বা কাৰ্য্যে নিযুক্ত করিৰে । অশ্বশাবক, বৃদ্ধ, কৃশ, রুগ্ন, দত্তস্নেহ, বৃহৎ বলিযুক্ত ও পূর্ণ বা অতিরিক্ত কোষ্ঠযুক্ত ঘোটক এবং গর্ভিণী ঘোটক কোন কর্ষে নিয়োজিত করিতে নাই। " ঘোটকের শরীরের রক্ত দূষিত হইয়। তাছাদের জীবন নাশ করে । এই কারণে শরীয় হইতে দুষিত রক্তমোক্ষণ করিতে হয় । প্রাচীন অখচিকিৎসকগণের মতে ঘোড়ার শরীরে সর্বসমেত বাহাত্তর হাজার নাড়ী আছে । উহার প্রত্যেকটতেই রক্ত থাকে । কণ্ঠ, কক্ষ, লোচনযুগল, আংল, মুখ, অশুদ্ধঃ, পা ও পাশ্ব এই কটা রকমোক্ষণের স্থান । অাবার কোন চিকিৎসক বলেন, গুলফ, গলদেশ, মেঢ়, কক্ষান্ত, পত্রক, গুদস্থান, পুচ্ছ, বস্তি, জঙ্ঘ, সন্ধিস্থান, জিহবা, অধর, ওষ্ঠ, নেত্রযুগল, কণমূল, মণিবন্ধ ও গও এই সতরট রক্ত মোক্ষণের স্থান । মুশ্রতের মতে, মুখ হইতে একশত পল পরিমিত রক্ত মোক্ষণ করা উচিত । এহ রূপ কক্ষ হইতে এক পল, নয়ন ও মেঢ় হইতে ৫০ পল, গও ও অও হইতে ২৫ পল এবং গুদস্থান হইতে ১২ পল রক্ত নিঃস্থত করিবে । পৈত্তিক হইলে কালি ক, বাতিক হইলে ফেনাযুক্ত ও পিচ্ছিল এবং শ্লৈষ্মিক হইলে পাণ্ডুবর্ণ ও কষায় জলের ন্যায় হইয় থাকে । ঋতুচৰ্য্যা –বর্ষাকালে অশ্বের অতিশয় চালনা করা উচিত নহে, করিলে দশমাস মধ্যে মারা পড়ে। এই কালে কুপোদক, কটুভৈল, ও বাতশূন্য গৃহে রাখা প্রশস্ত, একদিন পরে পরে অৰ্দ্ধপল লবণ দেওয়া উচিত । ইহার অন্যথা করিলে স্বাস্থ্য ও বীর্যহানি হয় । দিন দিন বল কমিয়া যায় ও আয়ু ক্ষয় হইয়া থাকে শরৎকালে গুড়, ঘৃত, আট পল পরিমিত চিনি, স্বচ্ছ ও মধুর রস যুক্ত সরোবরের জল, স্থতযুক্ত কুঁড় এই সকল দ্রব্য ঘোটকের পক্ষে হিতকর । হেমন্ত ঋতুতে ঘৃত, তৈল, মাষকড়াই, বায়ুশূন্ত গৃহে বাস, দুগ্ধ ও ধীরে ধীরে চালনা করা উচিত। যব সিদ্ধ করিয়া থাইতে দিতে হয় । শীতকালে সপ্তাহ পৰ্য্যস্ত প্রতিদিন আটপল করিয়া ভৈল পান করাইবে । পরে প্রমতে যব থাইতে দিবে । বসন্তকালে ইচ্ছাছুসারে ঘোটকের চালনা করিবে। এই কালে ঘৃত, তৈল ও লবণ মিশ্রিত জল পান করিতে দেওয়া উচিত । বসন্তু সময়ে ঘোড়াকে ভ্রমণ ন করাইয়। সৰ্ব্বদা একস্থানে বাধিয়া রাখিলে অল্পদিন भ८५) हे छे९जांश् दिशैन इझे मृ! vi८फ़ ७ अगनङां ॐ°हिष्ठ হয় । গ্রীষ্মকালে রক্তমোক্ষণ, ঘৰ্ম্ম-নিবারণ, ছায়ায় বন্ধন,