পাতা:বিশ্বকোষ ষষ্ঠ খণ্ড.djvu/৪৩০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


* 體 : নিষ্কাৰ হুইল চলির গেলেন। নবীপ আঁধার হইল। শচী দেবী মূৰ্ছিত হইবা জড়ের স্থার খারদেশে পড়িয়া থাকিলেন । সয়ল বিষ্ণুপ্রিয়ার কালমিত্র তখনও ভাঙ্গে নাই। গদাধর ও হরিদাস মাথায় হাত দিয়া বিষ্ণুধগুপের ধারে বসিয়া কঁদিতে | লাগিলেন । বাড়ী হইতে বাহির হইয়াই গৌরের হৃদয়ে যত প্রেম, যত ভাৰ, যত অনিল ভবিষ্যৎ জীবনের জ্যোতির্ময় জাভাস একেবারে জাগিয়া উঠিল। পথে যাইতে বাইতে তিনি | ঘর বাড়ী, মাতা, ভাৰ্য্যা ও বন্ধুগণ এ সকলের চিন্তা ভুলিয়া গিয়া আনন্দসাগরে মগ্ন হইলেন। গাহিতে গাহিতে, নাচিতে নাচিতে, হাসিতে হাসিতে, পড়িতে পড়িতে, দুলিতে দুলিতে | কাটোয়ার পথে মন্থর গতিতে যাইতে লাগিলেন । দিন হইল, ক্রমে গৌরের গৃহত্যাগের সংবাদ ভক্তমণ্ডলীর মধ্যে । রাই হইল, “সকলেই প্রভূর বিচ্ছেদযন্ত্রণায় অধীর হইয়া উঠিলেন । বিষ্ণুপ্রিয় জাগিয়া পতিকে শয্যায় না দেখিয়া ছুটিয়া শচীর নিকটে জাপিলেন এবং শোকে অধীর হইয়া কাদিতে লাগিলেন। নিত্যাননী, গদাধর, মুকুন্দ, চন্দ্রশেখরাচার্য্য এবং ব্রহ্মানন্দ এই পাঁচজন গৌরের নিষেধ না মানিয়া ক্রতপদে তাহার অনুসরণ করিয়া তাহার সহিত পথে মিলিত হন । সমস্ত দিন অতিবাহিত হইল, গৌরচন্দ্র সন্ধ্যার প্রাক্কালে বন্ধুগণের সহিত কেশব ভারতীর কুটারবারে উপনীত হইলেন । চৈতন্যভাগবত ও চৈতন্যমঙ্গলের মত লইয়া উপরোক্ত ঘটনা লিখিত হইল, কিন্তু কবিকর্ণপুর স্বরচিত চৈতন্যচন্দ্রোদয় গ্রন্থে সন্ন্যাসযাত্রার বৃত্তান্তট অন্তরূপ লিথিয়াছেন । তাহার মতে গৌরচন্দ্র সন্ন্যাসগ্রহণের কথা কাহারও নিকট প্রকাশ করেন নাই । কেবল শচীকে ঈঙ্গিতে বলিয়ছিলেন যে কোন প্রয়োজনে গৃহ ছাড়িয়া কিছুদিনের জন্য তীর্থ গমন করিবেন, শচী যেন তাহাতে উদ্বিগ্ন না হন । যে রাত্রিতে গৌরাঙ্গ চলিয়া যান, তাহার পরে শচী গৌরাঙ্গকে ঘরে না দেখিয়া মনে করিলেন যে বিশ্বম্ভর স্ত্রীবাসগৃহে কীৰ্ত্তন করিতেছেন । শ্ৰীবাসাদি ভক্তগণ মনে করিলেন যে প্রভু নিজ ভবনে গমন করিয়াছেন । বাস্তবিক রাত্রির কীর্তন সমাধা করিয়া ভক্তগণ স্ব স্ব ভবনে গমন করিলে গোঁর গৃহে যাইবার ব্যপদেশে বাছির হন । র্তাহার সঙ্গে কেৰল আচার্য্যরত্ন ছিলেন। একটু প্রয়োজন আছে বলিয়া তাহাকে সঙ্গে লইয়া গঙ্গাতীরাভিমুখে চলিতে লাগিলেন। পথিমধ্যে নিত্যানন্দের সাক্ষাৎ পাইয় তাহাকেও সঙ্গে লইয়াছিলেন । ইহার তিন জনে গঙ্গাপার হইয়া কাটোয়াভিমুখে চলিতে লাগিলেন। शिव चवणांटन उब्रजैौद्र कूद्रैौबषांरब्र ॐश्ङि इन । अङ्काट्ष ৪২৭ j ੋਨਾਂ 尊 cश्रीब्र मबचैौरभ महेि अनङ्गब रहेग, नईौ ७ उरुग्ण१८कशहै किडू जानिएक *ांद्रिएशन ब ।। फूडीौञ्च श्रेिटन श्रtsार्यrब्रङ्ग कॅीtüाग्रा হইতে ফিরিঙ্ক আসিলে রহস্ত প্রকাশিত হইজ { शथन टौरशोब्रांत्र ८कशयडांब्रउँौब्र कूणै८ब्रञ्च चांtब्र छै*श्ठि হইলেন, তখন প্রদোষ সময়। সন্ধার ক্ষীণলোকে গৌরচন্দ্র দেখিতে পাইলেন যেন স্বপ্নের সেই ছবি সেইস্থানে বেড়াইতেছে, তাহার হৃদয় অমনি গ্রেমে পুলকিত হইল। ভারতী । গোসাই মনুষ্ণের পদ শব্দ পাইয়া বাহিরে অসিয়া সঙ্গীগণ সঙ্গে নিমাই পণ্ডিতকে দেখিয়া প্রেম পুলকিত অস্তরে আলিঙ্গন করিলেন । গৌরাঙ্গ যথারীতি ভারতীর পদবনানা করিয়া গুরুদেব বলিয়া সম্বোধন করিলেন এবং পর দিন তাহাকে সন্ন্যাসদীক্ষা করিতে হইবে তাহাও জানাইলেন। কেশবভারতী প্রথমে তাহাকে সন্ন্যাসদীক্ষণ দিতে সক্ষত হন নাই। একে তাহার নবীন বয়স, তাহাতে জাবার গৃহে বালিকা পত্নী ও বৃদ্ধ জননী ইত্যাদি ভাবিয়া সন্ন্যাসী কেশবের চকু দিয়া দর দর ধারে জল পড়িতে লাগিল । তিনি বলিলেন, “নিমাই ! সত্য সত্যই তোমাকে সন্ন্যাসী করিতে জামার হৃদয় কপিতেছে!’ গৌরাঙ্গ ও প্রেমে বিহবল হইয়া করজোড়ে সন্ন্যাসধৰ্ম্মে দীক্ষিত হইবার জন্য অনুরোধ করিতে লাগিলেন । কিছু কাল পরে আবেগে হরি বলিয়া মৃত্য করিতে আরম্ভ করিলেন । সময় বুঝিয়া মুকুন্দ সুমধুর স্বরে সংকীৰ্ত্তন জুড়িয়া দিলেন, গৌরের নয়ন দিয়া অবিরল প্রেমাত্ৰ পড়িতে লাগিল, তিনি মহাভাবে বিভোর হইয়া উঠিলেন । কীৰ্ত্তনের কোলাহলে চারিদিক হইতে লোকসমাগম হইতে লাগিল । মনোহর গৌরমূৰ্ত্তি দেখিয়া সকলেই অবাক হইয়া গেল। কেশবভারতী গৌরের এইরূপ অবস্থা কখন দেখেন নাই, তাই তিনি বালকের বৈরাগ্য অসম্ভব ভাবিয়া অস্বীকার করেন। এখন গৌরের মহাভাব প্রত্যক্ষ করিয়া তাহাকে ৰলিলেন, “নিমাই তুমি স্বয়ং ঈশ্বর । আমি তোমার কথায় অমত প্রকাশ করিয়া অপরাধী হইয়াছি, তুমি যাহা বল আমি তাহাই করিব।” গৌরচন্দ্র এই আশ্বাস বাক্যে সন্তুষ্ট হইয়া বলিলেন, “গুরুদেব ! আমি স্বপ্নে যে মন্ত্রট পাইয়াছি দেখুন, দেখি সে মন্ত্রট সিদ্ধ কি না ।” এই বলিয়া ভারতীর কাণে সেই মন্ত্ৰটী বলিলেন । ভারতী শুনিয়া বিস্মিত হইলেন। সে রাত্রি কাহারও নিত্রণ হইল না । প্রভাতে নিমাইয়ের কথানুসারে আচাৰ্য্যয়ন্ত্র দীক্ষার উপযোগী সমস্ত আয়োজন করিলেন । গৌরচন্দ্রও প্রাণ শুরিয়া কীৰ্ত্তন করিতে আরম্ভ করিলেন। ইতিপূৰ্ব্বেই গৌরচঙ্গের সন্ন্যাসের কথা নগর মধ্যে রাষ্ট্র হইয়াছিল, তাই পীর সরলমতি নয় নারীগণ দধি, দুগ্ধ, স্থত, চিনি, তামুল ও বস্ত্র প্রভৃতি