পাতা:বিশ্বকোষ সপ্তদশ খণ্ড.djvu/২৯২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


লুধিয়ানা করিয়া থাকে। যাহার খৃষ্টধর্শ্বের জাশয় লাভ করিয়াছে, তাহারা চীনবাসীর অনুরূপ পরিচ্ছদ পরিধান করিতেছে। ইহাদের গাত্রবণ পাশ্ববর্তী অপরাপর জাতি হইতে অপেক্ষাकृङ क्लकद{। भांशीव्र पठांशद्र छैौमयांगैौग्न छांद्र मछ दिनोद्देब्र বড় চুল রাখে। যুদ্ধ কাৰ্য্যে তাহার সুনিপুণ। পার্শ্ববর্তী দেশবাসীদিগকে, বিশেষতঃ যুক্ৰমান জাতিকে নিরস্তুর উপদ্রবে ॐ९कईठ कब्रिrङ ठांशंब्र कांठब्र श्छ। न । बङ्ग छूब्रि, दक्लिश्री ७ शमूरु७ ऊांशश्द्र अरु मांज भढ। आगाम गैौगाढश्डि शमडी জাভিয় বাসভূমি হইতে তাহারা ঐ সকল অস্ত্রাদি লষ্টয়া যায়। চামরাজকে তাহার কোন কর দেয় না অথবা তাহার রাজশক্তির ৰণীকৃত ৰলিয়া স্বীকার করে না ; কিন্তু চীনরাজের আদেশ পাইলে তাহারা স্বেচ্ছায় লুণ্ঠনের লোতে যুদ্ধার্থ অগ্রসর হইয়া থাকে। তাহাদের মধ্যে প্রায় ১২ শত ফুৰ্ধৰ্ষ যোদ্ধা আছে। ভূতাদির তৃপ্তিসাধনার্থ তাহারা মুরগী বলি দিয়া থাকে। লুধিয়ান, পঞ্জাব প্রদেশের অন্তর্গত একটী জেলা। ছোট লাটের শাসনাধীন। ইহার উত্তরে শতক মী, পূৰ্ব্বে অম্বালা জেল, দক্ষিণে পাতিয়াল, ঝিনা, মাতা ও মালের কোটুলা সামন্তরাজ্য এবং পশ্চিমে ফিরোজপুর জেলা । অক্ষা” ৩e"৩৩ হইতে ৩১°১% উঃ এবং গ্রাবি ৭৫২৪ ৩•"হইতে ৭৬২৭ পূঃ মধ্য। ভূপরিমাণ ১৩৭৫ বর্গমাইল। সরমালা, লুধিয়ান ও জগরাও তহলীল লইয়া এই জেলা গঠিত। এই জেলার সর্বত্র সমতল। কোথাও একটা গওশৈল দৃষ্ট হয় না। নদী না থাকার জলকষ্ট বিশেষরূপে অনুভূত হয়। দক্ষিণসীমায় শতক্ৰ নদীর একট প্রাচীন খাত আছে, তাহার নিকটবর্তী স্থান অপেক্ষাকৃত উৰ্ব্বর। বৰ্ষাঋতুতে বিশেষতঃ বৃষ্টিপাতের পর এই খাত পূর্ণ হইয় উঠে। গ্রন্থের সময় জলাভাবে তাহা শুকাইয়া যায়। অম্বালা হইত্রে সরহিন্দ-খাল এই জেলার পূৰ্ব্বাংশে প্রবেশ করায় স্থানীয় জলাঙ্গাৰ কতকাংশ বিদূরিত হইয়াছে। ঐ খালের অপর দুইটী শাখা জেলায় পশ্চিম পরগণাসমূহে প্রসারিত থাকায় চাসবাসের বিশেষ সুবিধা ঘটিয়াছে। cबनाग्न अश्किश्न शमहे दोनूकमद्र भक्रनइन। मरश भरश वृखिकभूष कूमिं५० धावण नrज भब्रिदूल श्रेद्र शमैौछ cभाङ সম্পাদন করিড়েছে । এখানে বাসস্থল সেরূপ গভীর বনপ্রদেশ নাই। শতকর tथाईौन अंॐ जबैौनवउँ *८१६ पिछांत्र शर्डीउ ८अशांच्च जांग्न ०कोश७ झणक्ति, निशृणक, जष५ अहछि वफ़ नम्न श्रीश् দেখা যায় ল, কেবল প্রত্যেক গ্রামের গুজ্জস্ক্রিণীতটে এক একট अ*५७ य$ cनषिरङ भीeद्र शांछ। नोtइद्र जसष पूब कब्रियाब्र জন্ত এখন স্বাস্তায় উত্তৰ পাৰে বড় জাতীয় স্থলযুৎ রোপিত [موسیه ] লুধিয়ান হইতেছে। এখানে স্থানবিশেষে মৃত্তিক হইতে কাকর উত্তোলিত হয়। উহ্য রাস্তায় ছড়াইয়া দেওয়া হয়। কঁকির পোড়াইয়া চুণ প্রস্তুত হয়, তাহ বিক্রীত হইয়া থাকে। বর্তমান লুধিয়ান নগর খৃষ্টীয় পঞ্চদশ শতাদের অধিক পূৰ্ব্বে গঠিত হয় নাই, কিন্তু এই জেলার অন্তান্ত স্থানে অনেক প্রাচীন নগরের ধ্বংসাবশেষ দেখিয়া মনে হয়,ঐসকল নগর বহুকাল পূৰ্ব্বে প্রসিদ্ধ ছিল। কালসহকারে ও দৈবস্থাপিাকে তাহ ধ্বংসমুখে নিপতিত হইছে। বর্তমান লুধিয়ানা নগরের সন্নিকটে স্বনেত নামক স্থানে একটা মুদূর বিস্তৃত ও ইষ্টকনিৰ্ম্মিত অট্টালিকাদিপূর্ণ প্রাচীন নগরের ধ্বংসাবশেষ দৃষ্ট হয়। ঐ ধ্বন্ত স্তু পরাশি আজিও তাহার প্রাচীন সমৃদ্ধির পরিচয় দিতেছে। ভারতে মুসলমান সমাগমের পূর্কে ঐ জনপদের গৌরব ও কীৰ্ত্তিকলাপাদি ধীরে ধীরে অন্তর্ধিত হইয়াছিল। তদপেক্ষা পূৰ্ব্বতন হিন্দুরাজধানী মৎস্তবাট নগরীর পূৰ্ব্বসৌদর্যের নিদর্শন মাত্র পরি লক্ষিত না হইলেও মহাভারতে তাহার সমৃদ্ধির পরিচয় আছে। মুসলমান অধিকারে এই স্থানের রাজকোটের রাজপুত রায়বংশ প্রবল ছিলেন। পরে ইসলামৃদ্ধৰ্ম্মে দীক্ষিত হইয়া রাজামুগ্ৰহভাজন হন। ১৪৪৫ খৃষ্টাব্দে এই রাজবংশ দিল্লীর সৈয়দ রাজবংশের নিকট হইতে এই প্রদেশ জায়গীর স্বরূপ প্রাপ্ত হন। ১৪৮ খৃষ্টালে দিল্লীর লোদীবাশীয় রাজগণের উদ্যোগে লুধিয়ানা নগর স্থাপিত হয়, পূৰ্ব্বোক্ত মুনেত নগরীর ইষ্টকাদি লইয়া মুসলমানগণ এই নগর পত্তন করিয়াছিলেন, অনেক অট্টালিকায় আজিও জি-আজুলিচিহ্নযুক্ত মুনেত নগরীর প্রাচীন ইষ্টক দেখিতে পাওয়া যায়। সম্রাট, বাবর শাহ কর্তৃক লোদীবংশের অধঃপতন সাধিত হইলে, এই নগর মোগলরাজবংশের অধিকৃত হয়। তদবধি ১৭৬০ খৃষ্টাব্দ পর্য্যন্ত উহা মোগলবাদশাহগণের শাসনাধীনে থাকে। তৎপরে রাজকোটের রায়বংশ পুনরায় উক্ত নগরের শাসনাধিকারী হইয়াছিলেন। * মোগল অধিকারে এই স্থান দিল্লী হবার সরহিঙ্গ, সরকারের অন্তভুক্ত ছিল। রাজকোটের রায়বংশ তৎকালে এই জেলার পশ্চিমাংশের ইজারাদার ছিলেন। মোগলসাম্রাজ্যের অধঃপতনে cभोश्रृंलग्नखेखि श्डक्ण cदिङ्ग प्रांङ्ग ब्रस्त्रण चांशैञङ अरुलषम करब्रन । छैॉशंब्र uहे cछलांब्र यर्कमांम अशिङ्गछ बिऊर्ण ७ क्रिद्रांजशूद्रग्न कङकांरचं लहेब ५कैौ चष्ठज ब्रांछा झांनन করিয়াছিলেন । ४१७७ शुडेरक नियंत्रण जब्रश्चि, जब काङ्गन। उ९कष्ण কএকজন সূত্র ক্ষুদ্র শিখসর্বারের হতে এই জেলার পশ্চিমাংশ নিপতিত হইয়াছিল। খৃষ্টীর ১৮শ শতাদের শেষভাগে স্নায়কোট