পাতা:বিশ্বকোষ সপ্তদশ খণ্ড.djvu/৭০৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বসন্তয়োগ " _ भनिवनन्त पो जन-वनन्त (warieslla) ŵraffère twfew ehieken-pox wn i ইছা একট সক্রোক ওম্পর্শক্ৰামক ভোটৰ বাৰি। এই ৰাধি ৰখন কখন অধিক ৰাম ৰাপি উপৰিভ হয়। উক্ত রোগ একবার शश्न रिडैौद्र थांब्र शत्र मा ७श्क्र° नरकीब बा?, किरु कथन কখন এক ব্যক্তিয় ইবারও হইতে দেখা গিয়াছে। ইহা সচরাচর ৪ বৎসর বয়স্ক বালকদিগকে জাক্রমণ করিয়া থাকে ; কিন্তু সময় गभद्र भूषरू षाखि११ ७ पत्रक जैौष्णाकनिशारू जांझांख श्रेष्ठ দেখা যায়। কেচ্ছ কেছ বলেগ থে, ইহা একপ্রকায় বসন্ত রোগ ; किरु ननैौभग रुब्रिब्र ८नथिएल हैशाक्त वडङ्ग नैौफ़ बनिग्राहे अभूমান হয়। কারণ একৃত বসন্ত ও পান-বসন্তে মূলতঃ ধথেষ্ট । পার্থক্য। অণুবীক্ষণ দ্বারা বিশেষ পর্যবেক্ষণ করিয়া দেখা গিয়াছে ! যে, ইহার লসিকা বা পুরের মধ্যে এক প্রকায় হুঙ্ক উদ্ভিজ্জ | বিদ্যমান আছে। কোন কোন স্থলে ১০ হইতে ১৪ দিবস পর্য্যস্ত ইহা গুপ্তধস্থায় থাকে, তখন ইহাতে কোন বিশেষ লক্ষণ দেখা যায় না । আবার অনেক স্থলে কোন জরের লক্ষণ উপস্থিত না হইয়াই আগে কও, বহির্গত হইতে দেখা যায়। কিন্তু অপরাপর স্থলে কও বহির্গত হইবার ২৪ বা ৩৬ ঘণ্টা পূৰ্ব্বে শিরোবোন,জালস্ত ও সামান্ত জর উপস্থিত হয় এবং সামান্ত কাশি ও বায়ুনলীর প্রদাহের লক্ষণ সকল বর্তমান থাকে। প্রয়ের প্রথম বা দ্বিতীয় দিবসে স্ফোটক গুলি সহসা বহির্গত চয় । অগ্ৰে বক্ষঃস্থল ও স্বন্ধে দেখা দেয় ; পয়ে ৪৫ রাত্রি মধ্যে দলে দলে ক্রমশঃ হস্ত পদাদিতে ব্যাপ্ত হইতে থাকে এবং মুখমণ্ডল সামান্ত ভাবে আক্রান্ত হয়। কোন কোন গ্রন্থকারের মতে, প্রখম হইতেই পোটকগুলির মধ্যে কিঞ্চিৎ জলবৎ রস থাকে। কিন্তু অধিক স্থলে কিঞ্চিৎ উচ্চ ও উজ্জ্বল লালাবর্ণ দাগ বহির্গত হয় এবং ৫।৬ ঘণ্টার মধ্যে উহাকে রঙ্গগুটীতে পরিণত হইতে দেখা যায়। তখন গুটিগুলি দেখিলে বোধ হয় যেন উষ্ণ জল ছিটা দিয়া রোগীর গায়ে ফোঙ্কা উৎপন্ন করা হইয়াছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে ভেসিকেলের মধ্যস্থ রস কিঞ্চিৎ অস্বচ্ছ হয় এবং তৃতীয় দিবসে কতকগুলি থে । কার মত দেখায়। ভেসিকেল সমূহ দেখিতে গোল বা অণ্ডাকৃতি । *रु९ तनएखद्र सब्रि भङ । ॐशtनग्न नैौर्षजांभ अक्मड किश्य केशग्न | কোটর-বিভক্ত মছে ৷ ষিদ্ধ করিলে গুটিগুলি সম্পূর্ণরূপে সঙ্কুচিত হয় এবং এণ্ডিলী থাকে না। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে উক্ত গুটিসমূহ ঈষৎ গাঢ় ও অস্বচ্ছ হইয়া পড়ে। চতুর্থ ও পঞ্চম দিবসে কও শুদ্ধ হয় ও পাতলা কছু নিৰ্ম্মাণ করে ; পরে তাছা ক্রমশঃ চ"াবে খলিত হইয় পড়ে। কছু পতিত হইলে কিয়দিবসের [ سیاه ۹ ] --- -- জন্য গাত্রে সামান্ত লাল দাগ থাকে ; স্থলবিশেষে দাগগুলি গতীয় দেখা যায়। সাধারণ লক্ষণের মধ্যে সামান্ত জয়, সঙ্গি ও চৰ্ম্মে কওখন বর্তমান থাকে এবং গাত্র হইতে এক প্রকার গন্ধ বহির্গত হয় । নির্ণয়তৰ—টীকা দিবার পর বসন্ত রোগ হইলে কখন কখন জল-বসন্তু বলিয়া ভ্রম হইতে পারে। বসন্তের গুটি বহির্গত হইবার পূর্বে কটশে ফুেনা, বমন ও শিরোবেদনা প্রভৃতি কয়েকটি বিশেষ লক্ষণ বর্তমান থাকে ; কিন্তু এই পীড়ায় তাহ দেখা যায় না। জল-বসন্তের আবরণ বসন্তের মত দৃঢ় মহে। ভেসিকেল অবস্থায় পরিণত হইলে তলদেশ বসন্তের গুটির মত উচ্চ বা কঠিন হয় না। হুচিকা দ্বারা বিন্ধ করিলে চিকেন্দ্ৰ-পঙ্ক, সম্পূর্ণরূপে সমুচিত হয়। কিন্তু বসন্তু তক্রপ হয় না। ভাবিফল—সৰ্ব্বদা শুভ এক্সং সহজে আরোগ্য হয় ; কিন্তু রোগারোগ্য হইবার পর রোগী কিয়দিন পর্য্যন্ত দুৰ্ব্বল থাকে। চিকিৎসা-সচরাচর কোন ঔষধ প্রয়োগের আবখ্যক নাই। কোষ্ঠ পরিষ্কার রাখিয়া লঘু আহার দিবে। জর ও কাশি থাকিলে তরিবারগার্থ উপযুক্ত ঔষধ সকল ব্যবহার করিবে । সাধারণতঃ গৃহস্থের পান বসন্ত হইলে কুড়বাই, পেয়াজ প্রভৃতি , যোগে একপ্রকার পাচন খাইতে দেয়, উছাকে বসন্তের জাড়ি" বলে। বেশের দোকানে বসন্তের জাড়ি চাহিলেই পরিমাণু মত মিলিত জাড়ি কিনিতে পাওয়া যায়। বসন্ত ঋতুতে আমাদের দেশে বসত্তরোগের প্রাচুর্ভাব হয় । এই রোগের উপদ্রবশাস্তির জন্ত আমাদের দেশে শীতলার পূজা ও স্তৰকবচাদি পাঠ এবং শান্তি স্বস্ত্যয়নের রীতি আছে ; মা শীতলাই বসন্তরোগের অধিষ্ঠাত্রী দেবী,আরাকুর তাহার সহকারী। মলয়ামিল সঞ্চালিত ভারতে এই রোগের প্রাবল্য বহুকাল হইতে শুনা যায়। অথৰ্ব্ববেদে ( ১২৪১ ) “তক্ষনৃ" শব্দে শীতলা রোগের উল্লেখ আছে । দাক্ষিণাত্য প্রভৃতি নানা স্থানে আজিও বসন্তের পরিবর্তে শীতলা নামেই এই রোগ কথিত হইয়া থাকে। পিচ্ছিলাতন্ত্রে শীতলাদেবী বিস্ফোটকের উগ্রতাপনাশিনী এবং স্কলাপুরাণে তিনি বিস্ফোটকবিশীর্ণের অমৃতষধিনী ও গলগণ্ডাদি দারুণ গ্রহরোগবিনাশিনী বলিয়া উক্ত হইয়াছেন। এই কারণে ব্ৰণজক্ষত বসন্তরোগের তিনিই অধিষ্ঠাত্রী। হিন্দুমতে, একমাত্র শীতলাবেৰীয় সেবাইত ব্ৰাহ্মণ বা ডোম পণ্ডিতগণ বসত্তরোগ চিকিৎসীয় একমাত্র অধিকারী। র্তাহারা যে প্রণালীতে চিকিৎসা করিয়া থাকেন তাহ সংক্ষেপে নিয়ে বিবৃত হইল। রোগীর গায় বলপ্ত দেখা দিলে, তদণ্ডেই তাহাকে স্বতন্ত্র গৃহে ও পবিত্রভাবে রাখিবে । রাত্রিবাসের পর খালি কাপড়ে বা মলত্যাগাদি জন্তু জগুচি কত্রে ঐ রোগীর ঘরে প্রবেশ কজিম্বে না।