পাতা:বিশ্বকোষ সপ্তম খণ্ড.djvu/৩১২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ጙ፪ t == কৃষ্ণরূপ ধারণ করে। ২/৩ দিবসের মধ্যে পিঙ্গলবর্ণ বিশিষ্ট হইয়৷ জ্বকের সহিত মিশিয়া যায়। ইহাতে রোগীর দেহ কৃষ্ণবর্ণ দেখায় ও ভয়াবহ লক্ষণ সকল প্রকাশিত হইতে থাকে। নাড়ীর দ্রুতগতি, কুৰ্ব্বলতা, প্ৰলাপ, অচৈতষ্ঠ, হস্তপদাদির কম্পন, শয্যাম্বেষণ, পাটলবর্ণ জিহবা, উদর নীতি, কাস, হিঙ্কা ইত্যাদি লক্ষণসমূহ সম্পূর্ণরূপে উপস্থিত হইলে রোগীর । মৃত্যু নিকটবৰ্ত্তী হয় ; কিন্তু উক্ত লক্ষণগুলি ক্রমশঃ হ্রাস হইতে থাকিলে রোগীর জীবনে আশা করা যাইতে পারে । মস্তিষ্ক জর আন্ত্রিক জরের স্তায় দীর্ঘকাল স্থায়ী হয় না। সচরাচর রোগী ১৪ হইতে ২১ দিবসের মধ্যে আরোগ্য লাভ করে অথবা মৃত্যুমুখে পতিত হয়। মস্তিষ্ক জর মস্থরিক ও আরক্ত জ্বরের (Scarlet fever) স্তায় বিষাক্ত দ্রব্য বিশেষ দ্বারা উৎপন্ন ও সঞ্চারিত হয় । যে কারণেই ইহার উৎপত্তি হউক না কেন, এই পীড়া প্রকাশিত হইবামাত্র গৃহস্থগণের স্বাস্থ্যোপযোগী নিয়মসমূহের প্রতি দৃষ্টি করা বিশেষ কর্তব্য । যাহাতে রোগীর গৃহে বিশুদ্ধ বায়ু সঞ্চালিত হয়, শয্যা পরিষ্কার থাকে ও গৃহে লোকের জনতা না হয়, তদ্বিষয়ে বিশেষ সতকতা অবলম্বন করা বিধেয়। রোগীর গৃহে কোনরূপ দুৰ্গন্ধ অথবা অপরিস্কৃত দ্রব্যাদি রাখিবে না। দুর্গন্ধ দূর করিবার জন্ত হরিতন (Chlorine } অথবা অন্তবিধ সংক্রমাপহু দ্রব্য ব্যবহার করিবে । রোগীর সন্নিকটে কাহারও অবস্থান করা উচিত নয়। রোগীর শুশ্রীযার জন্য বিশেষ নিয়ম অবলম্বনপূৰ্ব্বক ঔষধাদি সেবন করাইবে। জররোগীর পথ্যের প্রতি বিশেষ দৃষ্টি রাখা আবশুক । লঘু অথচ বলকারক পথ্যই প্রশস্ত। আরারুট, মাংস (অভাবে মৎস্তের কাথ) ও দুগ্ধ ব্যবন্থেয়। উদরাময় থাকিলে দুগ্ধ ব্যবস্থা করিবে না। রোগী অতিশয় দুৰ্ব্বল হইলে সাগু, আরারুট বা কাথের সহিত অল্প পরিমাণে ১নং Exshaw brandy মিশ্রিত করিয়া পান করিতে দিবে। এক সময়ে অধিক আহার দেওয়া কৰ্ত্তব্য নহে ; অল্প অল্প করিয়া পুনঃ পুনঃ পথ্য দেওয়া উচিত। কোন প্রকার কঠিন দ্রব্য আহার করিতে দিবে না ; কারণ তাহাতে অস্ত্র ফুট হইবার সম্ভাবনা । এই রোগীর বল রক্ষা করিতে পারিলে তাহার জীবনেও আশা করা যাইতে পারে ; এই জন্ত রোগীকে বিশেষরূপে পথ্য দেওয়া আবশুক । রোগী নিদ্রিত থাকিলেও তাঁহাকে জাগরিত করিয়া আহার করাইবে । भष्ठिरु छख्न वाणकप्किन्न श्रृंएक ७७ जकड्नेछनक नप्ठ् । ডাক্তার অলিসন (Dr. Alison) এই রোগে মৃত্যুসংখ্যার নিম্নলিখিতরূপ তালিকা দিয়াছেন— [ •రిe ) , জ্বর दग्नश्च वiपलक्षणं भृङ्गा ১৫ বৎসরের নুন yరీ { 를 > * o 82 t یا حساسی-R) ن: e ఫిలి # Not ) سیست که این ৫০ বৎসরের উদ্ধ S q * বয়সের আধিক্যের সহিত এই জ্বরের আক্রমণ ভীষণতর হয় । স্ত্রীলোক অপেক্ষ পুরুষদিগের পক্ষে এই রোগের আক্রমণ অধিকতর সাজঘাতিক ; কিন্তু গর্ভবতী স্ত্রীলোকগণ এই রোগাক্রান্ত হইলে প্রায়ই তাহাদিগের গর্ভস্রাব হইয়া থাকে । মানসিক রোগাক্রান্ত ব্যক্তিগণ এই রোগে আক্রান্ত হইলে সহজে মুক্তিলাভ করিতে পারে না। যে সকল ব্যক্তি সৰ্ব্বদ প্রফুল্ল ও যাহারা তামাকু সেবন করে, তাহারা প্রায়ই এই জরে আক্রাস্ত হয় না, ক্ষয়কাসরোগীকেও এই রোগে আক্রমণ করিতে পারে না। কোন ব্যক্তি একবার এই রোগে আক্রান্ত হইলে তাহার আর পুনরাক্রমণের আশঙ্কা থাকে না । বিশেষ সতর্কতা অবলম্বনপূর্বক মস্তিষ্কজর চিকিৎসা করা কর্তব্য । ঔষধ প্রয়োগে এই জরের তত উপশম দেখা যায় না। যাহাতে শরীরের আভ্যন্তরিক যন্ত্রগুলি নষ্ট না হয়, প্রথমে তদ্বিষয়ে যত্নবান হইবে। যাহার এই রোগে অধিকদিন ভুগিয়া প্রাণত্যাগ করে, তাহদের হৃৎপিণ্ডের, কোষ্ঠের ও মস্তিষ্কাবরণ-চৰ্ম্মের মধ্যে অতি পাতলা রক্তাম্বুস্রাবী পদার্থ অধিক পরিমাণে একত্র হয় । কোন কোন ব্যক্তির মস্তিষ্কাবরণে ক্ষত জন্মে। ডাক্তার হিলডেনব্রাও বলেন, এই জরে স্নায়বিক সংষ্ঠাস হেতু রোগী প্রাণত্যাগ করে। আন্ত্রিক জর (Typhoid fever)–এই জর কাহাকেও হঠাৎ আক্রমণ করে না । রোগী প্রথমে মস্তক-বেদনা, হস্তপদাদির কামড়ানি, অগ্নিমান্দ্য ও অল্প অল্প শীত অনুভব করে । এই পীড়ার প্রথমাবস্থায় পেটের পীড়া হয়। ক্রমে রোগীর নাড়ী ক্ষীণ, গাত্র উষ্ণ এবং জিহবা শুষ্ক ও রক্তবর্ণ হইয় আসে। বেলা দুই প্রহরের সময় জরের প্রকোপ এবং পর দিন তাহার কিঞ্চিৎ হ্রাস লক্ষিত হয়। রোগী প্রথমে রাত্রিকালে দুই একটা করিয়া মৃদু প্ৰলাপ বকিতে আরম্ভ করে ; ক্রমে রোগী দিবারাত্র উভয় সময়েই অনবরত প্ৰলাপ উচ্চারণ করিতে থাকে। জিহবা ক্রমে উজ্জল রক্তবর্ণ ও ফাট ফাট এবং দস্তে শৈবালবৎ পদার্থ দৃষ্ট হয় ; ওষ্ঠ কাটিয়া রক্তস্রাব হইতে থাকে। শরীরের অত্যন্ত উত্তাপ ও অতিসার এই পীড়র প্রধান লক্ষণ । জয়ের বেগ সন্ধ্যার প্রাক্কালে ও রাত্রিতে অধিক এবং প্রাতে অল্প হয় । অতিসার উপস্থিত হইয়া সামান্ত পীড়ায়