পাতা:বিশ্বকোষ সপ্তম খণ্ড.djvu/৩১৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


छब्र [ లి:\ ] खुम्न দাহ এবং হঠাৎ বমি হইতে থাকে। প্রস্রাব অতিশয় অল্প ও পীতবর্ণ হয়। রোগী প্রায় অনবরত অতিশয় দীর্ঘ শ্বাস গরিত্যাগ করে। রোগ কঠিন হইলে রোগীর শ্বাসে অল্প গন্ধ নিঃস্থত, জ্ঞানের অতিশয় বিশৃঙ্খলা, রোগীর তন্দ্রা ও প্রলাপ আরম্ভ হয়। কখন কখন সুক্ষরক্ত চিহ্ন, ও প্রিয়জুবৎ রসগুটিক দেখা যায়। এই অবস্থা দুইদিন হইতে সাতদিন পর্য্যন্ত বর্তমান থাকে। পরে মুখশ্ৰী অতিশয় সঙ্কুচিত, চক্ষুর পূর্ণ দৃষ্টি নষ্ট, গাত্রে কৃষ্ণ চিহ্ন, জিহবা উজ্জল রক্তবর্ণ, পিপাসা অতিশয় বৰ্দ্ধিত ও তীক্ষ এবং কৃষ্ণ শ্লেষ্মাবৎ পদার্থ বমন হয়। মৃত্যুকাল নিকটবর্তী হইলে রোগী অতিশয় অবসন্ন হইয় পড়ে, তাহার নিঃশ্বাস ঘন ঘন এবং শ্বাস প্রশ্বাসকালে একপ্রকার শব হইতে থাকে, শরীর শীতল, আঠাল ও ঘৰ্ম্মবিশিষ্ট হইয় পড়ে। মৃত্যুকালে কোন কোন রোগীর অতিশয় বেদনা ও আক্ষেপ উপস্থিত হয়, আবার কোন কোন রোগী অতর্কিতভাবে মৃত্যুমুখে পতিত হয়। এই রোগের সকল লক্ষণই সৰ্ব্বদা প্রকাশিত হয় না। সাধারণতঃ পীতজর তিন প্রকার-১ প্রদাহিক, ২ আবসাদিক ও ৩ সাজ ।তিক । বহুমেদ ব্যক্তিগণ প্রদাহিক {{nflamatory) sq: {{{si 41f5:18 RT4Hf + (Adynamic) পীতজরে আক্রাস্ত হয় । প্রদ হিকে অত্যধিক উদ্দীপনা ও রোগ শীঘ্রই সাজঘাতিক হইয়া দাড়ায় । অধিসাদিকে নাড়ীর গতি ধীর, গাত্র শীতল ও আঠাল, ৪৫ দিনেই রোগী অবসন্ন হইয়া পড়ে । সাজঘাতিকে রোগী প্রথম হইতেই মৃত্যুগ্রস্ত বলিয়া বোধ হয় । এই অবস্থা হইতে প্লোগী প্রায় রক্ষা পায় ন, অনেকেই ইহার আক্রমণের ২৪ ঘন্টার মধ্যে মৃত্যুমুখে পতিত হয়। পীতজরে আক্রান্ত রোগীদিগের মধ্যে অনেকেই প্রাণ ত্যাগ করে । এই রোগ যখন প্রথম আরম্ভ হয়, তখন যত রোগী মরে, কিছুদিন স্থায়ী হইলে আর তত রোগীর প্রাণবিয়োগ হয় না। এই রোগে মৃতদিগের মধ্যে যুবক ও বলিষ্ঠ লোকদিগের সংখ্যাই অধিক । ৪০° উত্তর এবং ২•• দক্ষিণ অক্ষাংশের মধ্যস্থিত প্রদেশ এই রোগের লীলাক্ষেত্র । অধিক নাতিশীতোষ্ণ প্রদেশ এই জরের আক্রমণ-বহির্ভূত নহে । চিকিৎসা | পীতজর চিকিৎসা সম্বন্ধে সকলে এক মত নহে। প্রধানত: প্রদাহনাশক ও উত্তেজক এই দুই প্রকার উপায় অবলম্বিত হইয়া থাকে। অবস্থা বিবেচনা করিয়া হয় প্রদাছনাশক নতুবা উত্তেজক ঔষধ প্রয়োগ করা কর্তব্য। প্রদাছনাশক ঔষধের মধ্যে রক্তমোক্ষণের বিধি পূৰ্ব্বে প্রচলিত ছিল। আজকাল সাধারণতঃ পারদ ব্যবহার | করা হয় । প্রদাছ লক্ষণের প্রাবল্য থাকিলে রক্ৰমেীক্ষণ করা | হইয়া থাকে। এতদ্ব্যতীত বিরেচক, বমনকারক ও শীতল ঔষধাদি প্রয়োগ করিবে । এই জরে স্বল্পবিরাম জরের गकन cमषिरण कूहेनाहेन वादशtब्र डेनकाब्र श्य । शनि ঔষধ উঠিয়া না *fC#, V5U# saline medicine 2!t#fc$ị উপকার হইতে পারে । অনেকে বলেন, জৈবিক ও ঔদ্ভেদিক পদার্থ পচিয়া যে বিষাক্ত বাষ্প উৎপন্ন হয়, তাহা মনুষ্য শরীরে প্রবিষ্ট হইয়া পীতজর উৎপাদন করে । এই জর সংক্রামক । রোগীর শরীর হইতে বিষাক্ত বাষ্প অন্ত শরীরে প্রবেশ করিয়া তাহাকে পীড়িত করে । লোহিত বা আরক্ত জর (scarlet fever) । এই জর চৰ্ম্মপুম্পিক রোগের অন্তর্গত। গলক্ষত এই জরের একটী প্রধান লক্ষণ । জর প্রকাশের দ্বিতীয় দিবসে রোগীর গাত্রে রক্তবর্ণ পিত্ত উঠে, ষষ্ঠ অথবা ৭ম দিবসে বাহাত্বক্ খসিয়া পড়ে । অধিকাংশ চিকিৎসকগণ এই রোগকে ৩ শ্রেণীতে বিভক্ত

  1. t-TR qofi, o Pizzi (S. Simple) s sorps (S. anginosa) s o rifeqffsą (S. maligna).

প্রথম প্রকার জরে পিত্ত লক্ষিত হয়, কিন্তু প্রায় গলক্ষত হয় না, দ্বিতীয় প্রকারে পিত্ত ও গলক্ষত উভয়ই বিদ্যমান থাকে ; তৃতীয় প্রকার জরের আক্রমণে সমস্ত যন্ত্র অবসন্ন হুইয়। পড়ে এবং রোগীর জীবনীশক্তির হ্রাস ও অত্যধিক দৌৰ্ব্বল্য প্রকাশ হয় । জরের পূৰ্ব্বক্ষণে কম্প, আলস্ত, মাথা ধরা, নাড়ীর গতি দ্রুত, মুখ রক্তবর্ণ, তৃষ্ণা, ক্ষুধার হানি এবং জিহবালেপ লক্ষিত হয় । জর প্রকাশিত হইলেই রোগী গণদেশে প্রদাহ অনুভব করে এবং সেই স্থান রক্তবর্ণ ও কিঞ্চিৎ স্ফীত দেখায় । ক্রমে মুখের মধ্যভাগ ও জিহবা আরক্ত হইয়া উঠে । ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র রক্তবর্ণ পিত্ত উঠিতে আরম্ভ কবে, শীঘ্রই ইহাদের সংখ্যা এত অধিক হয় যে, সমস্ত শরীর আরক্ত দেখায় । এই উদ্ভেদগুলি প্রথমে গ্রীব, মুখ ও বক্ষঃদেশে দৃষ্ট হয়, পরে ক্রমে ক্রমে সমস্ত শরীরে ব্যাপ্ত হইয়া পড়ে। এই উদ্ভেদগুলি অতি মন্থণ, অঙ্গুলি দ্বারা চাপ দিলে কিছু কালের জন্য ইহাদের রক্তবর্ণত অদৃপ্ত হয়। সেই পিত্তের ধারে সময় সময় ঘামাচি দৃষ্ট হয়। উদ্ভেদগুলি ৩/৪ দিন পৰ্য্যন্ত সমানভাবেই থাকে ; পরে ক্রমে অদৃশ্ব হইতে আরম্ভ করে । ৭ দিনের পর আর একটাও দেখা যায় না। পরে বাহাত্বক্ খুসকির স্তায় অথবা বিভিন্ন আকারে পড়িয়া ষাইতে থাকে । জর পর প্রায় দুই সপ্তাহের মধ্যে চৰ্ম্মশ্বলন ব্যাপার শেষ হয়। পিত্ত উঠিবার পরই জয়ের হ্রাস হয় না । সন্ধ্যাকালে রোগের বৃদ্ধি হয়। এইকালে