পাতা:বিশ্বকোষ সপ্তম খণ্ড.djvu/৭৬৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তিপাগড় তিপাইমুখ নামে একখানি গ্রাম আছে। এই গ্রামে লুসাইদিগের সহিত ব্যবসা চলিয়া থাকে। লুসাইরা ভুল, পারিকাপড়, কুচুক (ভারতীয় রবার), হস্তিদন্ত, মোম প্রভৃতি বনজাত প্ৰব্য লইয়া আসিয়া লবণ, চাউল, nেীহযন্ত্রাদি, কাপড়, পুতিরমীলা ও তামাকুর সহিত বিনিময় করে। তিপাগড়, মধ্যভারতের একট প্রাচীন স্থান । ইহা চানাজেলায় অবস্থিত । এখানে তিপাগড় পৰ্ব্বতের উপর তিপাগড় নামে একটী কেল্লা আছে। সেই কেল্লার নিকট একটা সরোবর হইতে তিপাগড়ী নামে একটা নদীও উৎপন্ন হইয়াছে । এই প্রাচীন দুর্গ কানিংহাম সাহেবের মতে গোড়রাঞ্জাদিগের কীৰ্ত্তি। দুরারোহ পৰ্ব্বত, বাশবন ও গম্য পথ অভাবে এই দুর্গে সহজে যাওয়া যায় না । পথ এত দুর্গম যে এক তিপাগড়ী নদীই সাতবার পার হইতে হয়। এই দুর্গট তিপাগড় পৰ্ব্বতের একটী দুর্গম উপত্যকার উপর অবস্থিত। এই দুর্গের নিয়ে একটা বৃহৎ সরোবর আছে। ইহা পাৰ্ব্বতাহ্রদের স্তায় । এই দুর্গসরোবর প্রায় চতুৰ্দ্দিকে প্রাচীর বেষ্টিত, কেবল দক্ষিণপূর্বদিকে প্রাচীর নাই। প্রাচীর পৰ্ব্বতের অধিরোহ ও অবরোহ অনুসারে এক ক্রমে পাঁচটা শিখরকে ঘেরিয়া রাথিয়াছে। এই বেষ্টিত স্থানের মধ্যে অনেকট সমতল উপত্যক আছে। এই উপত্যকায় , fতপাগড়ী নদীর উপনদীগুলি প্রবাহিত । এই সকল উপনদীর জল প্রায় পাহাড়ের ঢালুস্থান দিয়া উৰ্ত্তীর্ণ ন হইয়া যেখান সেথান হইতে সমতল ভূমিতে পড়ায় ক্ষুদ্র বৃহৎ জলপ্রপাত উৎপন্ন হইয়াছে। দুর্গের সমস্ত অংশ নিকটবৰ্ত্তী হরলদনা গ্রামের লোকেরাও দেখে নাই এবং পাহাড়ের সে অংশে উঠিবার সুধিধা না থাকায় কেহ যাইতে ও পারে নাই । প্রাচীরট বৃহৎ বৃহৎ প্রস্তরখণ্ডে গঠিত, কিন্তু এখন কোথাও • ফিটের অধিক উচ্চ দেখা যায় না । পৰ্ব্বতের দক্ষিণপশ্চিম শিখরের নিকটে অনেকগুলি বাসগৃহের ভগ্নাবশেষ দেখা যায়। কথিত আছে, এখানে এক রাজবাটী ছিল । পৰ্ব্বতের গাত্রে একটী হনুমানের আকৃতি খোদিত আছে মাত্র; এখানে উৎকীর্ণ শিল্পের আর কিছুই কোথাও নাই । সরোবরটা চতুর্দিকে বৃহৎ প্রস্তর দিয়া বাধীন। চূণস্থরকা বা কোনরূপ মশলার ব্যবহার কোথাও নাই । ইহাঙ্কে সিঁড়ি ছিল। সরোবরের এক দিক্‌ ভাঙ্গিয়া গিয়াছে। এই ভাঙ্গার মুখ হইতেই তিপাগড়ী নদী উৎপন্ন হইয়াছে ৰলিয়া প্রবাদ আছে, কিন্তু এ ভাঙ্গ निग्नां * छल निर्शल ६ न दगि॥ अश्मान श्छ, अछ निद् श्रेष्ठ ठिशृशिफ़ौद्र [ १७० 1 फिक्र्रङ উৎপত্তির কারণ জলনালী আছে। সরোবরের”তুলদেশ छ्हे८ङ जणज फू१ अग्निब्रां छलtब्रां५ श्हे८ण७ ७थन७ हेहांब्र জল, অতি স্বচ্ছ, খাদ্ধ ও স্বাস্থ্যকর। সরোবরের মধ্য স্বলে প্রায় ৫•• ফিটু পরিমিত স্থানে কোন প্রকার তৃণ নাই এবং ८ष निष्कू ७षन७ गाथब्र #ाषान श्रांtइ, cन निरक७ नाहे । প্রবাদ এইরূপ যে এই দুর্গের শেষ রাণী একদিন গোবাহিত রথে নামিতে নামিতে হ্রদের মধ্যে রথসহ অদৃপ্ত হন, তদবধি ऐश् छऋश *ब्रि*ऊ श्हेम्नां८छ् । श्रीब्र ७कैौ ७थं वांछ श्रांtछ् যে, দ্রুপদরাজ এই দুর্গ নিৰ্ম্মাণ করেন ; তিনি ইরাগড়ে थांकिएउन । भांछिंद्र भषा लिग्नां शूज़क्र कब्रिग्न ङिनि ७थांप्न আসিতেন। এখানে তাহার আখড়া (মল্লভূমি ) ছিল। পাউনির রাজাও ভূগর্ভ দিয়া সুড়ঙ্গ দ্বারা এই আখড়ায় আসিতেন। দ্রুপদরাজ কিন্তু ইহাকে ধরিতে পারিতেন না। তিববত, হিমালয়ের উত্তরে একটা দেশ। তিব্বতীয় ভাষায় ইহার নাম পো’ । ইহার উত্তরে চীনতাতার, পূৰ্ব্বে চীন, দক্ষিণে হিমালয় পৰ্ব্বত, পশ্চিমে তুরাণ। ইহার পরিমাণ BB BAD BBBBS BBBBBS SAAAASAASAA AAAA S DDD দক্ষিণে যেমন হিমালয় উত্তরে ও সেইরূপ এক অতি বিস্তীর্ণ পৰ্ব্বত আছে, চীনের এই পৰ্ব্বতকে “কিয়ুনলন’ এবং হিন্দুর কৈলাস’ বলেন। পূৰ্ব্বে ও পশ্চিমে অনেকগুলি পৰ্ব্বত আছে । এই সকল পৰ্ব্বত হইতে এসিয়ায় অনেকানেক নদী উৎপন্ন হইয়াছে । এই দেশ অতিশয় উন্নত ও শীতপ্রধান । শীতের অতি প্রাচুর্ভাব বলিয়া অধিক উদ্ভিদ জন্মে না, এজন্য জালানি অতিশয় দুপ্রাপ্য । নানাপ্রকার পশু পক্ষী আছে । গো, মেষ, অশ্ব ও অশ্বতরই সাধারণ পশু । হিমালয়-পথে শকট বা গবাদি পশু চলিতে পারেন, • মেষ ও ছাগই সেজন্য ভারবহনের কার্য্য করে। চমরী নামে এক প্রকার গোজাতি আছে, তাহার পুচ্ছে চামর হয় । [ চমরী দেখ। ] কস্তরিকা মৃগও এদেশে বিস্তর। এই দেশীয় ছাগলোমে শাল হয় । [ অজ দেখ। ] এদেশীয় কুকুর অতি দীর্ঘাকার ও বলবান । [কুকুর দেখ } তিব্বতের আকরে স্বর্ণ, পারদ, লোহাগা ও লবণ পাওয়া, যায়। তিব্বতবাসীরা দেখিতে অনেকাংশে তাতারদিগের স্তায় । ইহারা অলস, শাস্ত, সন্তুষ্টচিত্ত। শাল ও লোমজ বস্ত্রবয়নই ইহাদের প্রধান শিল্প। চীনের সহিতই ইহাদের বাণিজ্য বেশী হয়। শবদtছ বা শবপ্রোথিতকরণ-প্রথা এদেশে নাই, ইহার পরিসীদিগের স্তায় শ্মশানে শৰ ফেলিয়া দিয়া আসে, কেবল যাজকের দেহ দাহ করে। মেঘমাংস প্রধান थांशु ? अप्नद्धक कराभमt२म छम* कCद्र ! हे एोब्र! नकट