পাতা:বিশ্বপরিচয়-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৩৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরমাণুলোক বোধশক্তিতে। আগুনে পোড়ালে লোহার পরমাণু কাপতে কাপতে এত বেশি অস্থির হয়ে ওঠে যে তার উত্তেজনা আর. লুকানো থাকে না । তখন কাপনের ঢেউ আমাদের শরীরের স্পশনাড়ীকে ঘা মেরে তার মধ্য দিয়ে যে খবরটা চালিয়ে দেয় তাকে বলি গরম । বস্তুত গরমটা আমাদের মারে । আলো মারে চোখে, গরম মারে গায়ে । ছেলেবেলায় যখন একদিন মাস্টারমশায় দেখিয়ে দিলেন লোহার টুকরো আগুনে তাতিয়ে প্রথমে হয় গরম, তার পরে হয় লাল টকটকে, তার পরে হয় সাদা জ্বলজ্বলে, বেশ মনে আছে তখন আমাকে এই কথা নিয়ে ভাবিয়েছিল যে, আগুন তো কোনো একটা দ্রব্য নয় যেটা লোহার সঙ্গে বাইরে থেকে মিশিয়ে লোহাকে দিয়ে এমনতরো চেহারা বদল করাতে পারে । তার পরে আজ শুনছি তারো তাপ দিলে এই লোহাটী গ্যাস হয়ে যাবে। এ সমস্তই জাতুকর তাপের কাণ্ড, সৃষ্টির আরম্ভ থেকে আজ পর্যন্ত চলেছে । সূর্যের অালো সাদা । এই সাদা রঙে মিলিয়ে অাছে সাতটা বিভিন্ন রঙের অালো । যেন সাত রঙের রশ্মির পেখম, গুটিয়ে ফেললে দেখায় সাদা, ছড়িয়ে ফেললে দেখায় সাতরঙ । সেকালে ছিল ঝাড়লণ্ঠন, বিজলিবাতির তাড়ায় তা’রা হয়েছে দেশছাড়া । এই ঝাড়ের গায়ে তুলত তিনপিঠওয়াল কাচের পরকল। এই রকম তিনপিঠ ওয়াল কাচের SS