পাতা:বিশ্বপরিচয়-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বিশ্বপরিচয় আবার নেগেটিভের ভিড়-বাহুল্যওয়ালা রেশমে টান পড়ল কাচের দিকে। কাচ বা রেশমে সাধারণতন্ত্র যখন অক্ষুন্ন ছিল তখন আপনাতে আপনি ছিল সহজ, ছিল শান্ত । শান্ত অবস্থায় এদের মধ্যে বৈদ্যুতের অস্তিত্ব জানাই যায়নি। বাইরে বৈদ্যুতিক গৃহবিপ্লবের খবর তখনি বেরিয়ে পড়ল যেমনি ভাগাভাগির আসমানতায় ক্ষোভ জন্মিয়ে দিলে । কাচ কিংবা অন্য কিছুর থেকে ঘষাঘষির দ্বারা সামান্য পরিমাণ ইলেকট্রন সরিয়ে নেবার কথা বলেছি । পরিমাণটা কত যদি বিজ্ঞানীকে জিজ্ঞাসা করা যায় তিনি সামান্য একটু ঘাড় নেড়ে বলবেন, ঘষড়ানির মাত্রা অনুসারে চল্লিশ পঞ্চাশ ষাট কোটি হোতে পারে। বিজলি বাতির সলতে-তারের ভিতর দিয়ে ইলেকট্রনের ঠেসাঠেসি ভিড় চলতে থাকে তবেই সে জ্বলে । তারে এ-প্রান্ত থেকে ও-প্রান্তে যতগুলি ইলেকট্রন একসঙ্গে যাত্রা করে আমাদের গণিতশাস্ত্রে সেই সংখ্যার কী নাম আছে আমি তা তো জানিনে । যাহোক এটা দেখা গেল যে, অতিপরমাণুদের দুরন্ত চাঞ্চল্য পজিটিভ নেগেটিভে সন্ধি করে সংযত হয়ে অাছে তাই বিশ্বে আছে শান্তি । ভালুকওয়ালা বাজায় ডুগডুগি, তারি তালে ভালুক নাচে, আর নানা খেলা দেখায়। ডুগডুগি ওয়ালা না যদি থাকে পোষমান ভালুক যদি শিকলি কেটে স্বধৰ্ম পায় তাহলে २७