পাতা:বিশ্বপরিচয়-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরমাণুলোক উদ্ভাবন হচ্ছে ঠিক সেই সময়টাতেই বিশ্বের সূক্ষ্মতম পদার্থের অলক্ষ্যতম মর্ম বিদীর্ণ করবার জন্যে বিরাট বৈদ্যুত-বর্ষণীর কারখানা বসল । পূর্বেই বলেছি আলফা-কণা স্বরূপ হারিয়ে হয়ে যায় হেলিয়ম গ্যাস । এটা কাজে লেগেছে পৃথিবীর বয়স প্রমাণ করতে । কোনো পাহাড়ের একখানা পাথরের মধ্যে যদি বিশেষ পরিমাণ হেলিয়ম গ্যাস দেখা যায়, তাহলে এই গ্যাসের পরিণতির নির্দিষ্ট সময় হিসাব করে ঐ পাহাড়ের জন্মকুষ্টি তৈরি করা যায় । এই প্রণালীর ভিতর দিয়ে পৃথিবীর বয়স বিচার করা হয়েছে । ওজনের গুরুত্বে হাইড্রোজেন-গ্যাসের ঠিক উপরের কোঠাতেই পড়ে যে গ্যাস তারই নাম দেওয়া হয়েছে হেলিয়ম । এই গ্যাস বিজ্ঞানীমহলে নূতন-জান । এই গ্যাস প্রথম ধরা পড়েছিল সূর্যগ্রহণের সময়ে । সূর্য আপন চক্রসীমাটুকু ছাড়িয়ে বহুলক্ষ ক্রোশ দূর পর্যন্ত জলদ্‌বাম্পের অতি সূক্ষ্ম উত্তরীয় উড়িয়ে থাকে ; ঝরন। যেমন জলকণায় কুয়াশা ছড়ায় আপনার চারিদিকে । গ্রহণের সময় সেই তার চারদিকের আগ্নেয় গ্যাসের বিস্তার দেখতে পাওয়া যায় তুরবীনে । এই দূরবিক্ষিপ্ত গ্যাসের দীপ্তিকে যুরোপীয় ভাষায় বলে করোনা, বাংলায় একে বলা যেতে পারে কিরীটিকা । কিছুকাল অাগে ১৯৩৭ খ্রীস্টাব্দের সূর্যগ্রহণের সুযোগে এই \LL