পাতা:বিসর্জন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১০১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


তুচ্ছ করিতাম আমি ঐশ্বর্যের জ্যোতি, রাজার প্রতাপ । নক্ষত্র পড়িলে খসি তার চেয়ে শ্রেষ্ঠতর মাটির প্রদীপ । তাহারে খুঁজিয়া ফিরে পরিহারভরে খছোত ধূলির মাঝে, খুজিয়া না পায়। দীপ প্রতিদিন নেভে, প্রতিদিন জলে— বারেক নিভিলে তারা চির-অন্ধকার ! আমি সেই চিরদীপ্তিহীন ; সামান্য এ পরমায়ু দেবতার অতি ক্ষুদ্র দান, ভিক্ষণ মেগে লইয়াছি তারি দুটো দিন রাজদ্বারে নতজানু হয়ে । জয়সিংহ, সেই দুই দিন যেন ব্যর্থ নাহি হয় । সেই দুই দিন যেন আপন কলঙ্ক ঘুচায়ে মরিয়া যায়। কালামুখ তার রাজরক্তে রাঙা করে তবে যায় যেন । বৎস, কেন নিরুত্তর ? গুরুর আদেশ নাহি আর ; তবু তোরে করেছি পালন আশৈশব, কিছু নহে তার অনুরোধ ? নহি কি রে আমি তোর পিতার অধিক পিতৃবিহীনের পিতা ব’লে ? এই দুঃখ, এত করে স্মরণ করাতে হল ! কৃপাভিক্ষা সহ্য হয়, ভালোবাসা ভিক্ষা করে যে অভাগ্য, ভিক্ষুকের অধম ভিক্ষুক সে যে । বৎস, তবু নিরুত্তর ? জানু তবে ס\ o צ