পাতা:বিসর্জন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১০৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রঘুপতি । অপর্ণা । নিজে অামি করি নিবেদন – রাজরক্ত চাই তোর, দয়াময়ী, জগৎপালিনী মাতা ? নহিলে কিছুতে তোর মিটিবে না তৃষা ! আমি রাজপুত, পূর্বপিতামহ ছিল রাজা, এখনো রাজত্ব করে মোর মাতামহ বংশ— রাজরক্ত আছে দেহে । এই রক্ত দিব । এই যেন শেষ রক্ত হয় মাতা, এই রক্তে শেষ মিটে যেন অনন্ত পিপাসা তোর, রক্তত্ষাতুরা ! বক্ষে ছুরি বিন্ধন জয়সিংহ ! জয়সিংহ! নির্দয় ! নিষ্ঠুর ! এ কী সর্বনাশ করিলি রে ! জয়সিংহ, অকৃতজ্ঞ গুরুদ্রোহী, পিতৃমর্মঘাতী, স্বেচ্ছাচারী ! জয়সিংহ, কুলিশকঠিন! ওরে জয়সিংহ, মোর একমাত্র প্রাণ, প্রাণাধিক, জীবন-মন্থন-করা ধন ! জয়সিংহ, বৎস মোর, হে গুরুবৎসল ! ফিরে আয়, ফিরে আয়, তোরে ছাড়া আর কিছু নাহি চাহি ! অহংকার অভিমান দেবতা ব্রাহ্মণ সব যাক ! তুই আয় ! অপর্ণার প্রবেশ পাগল করিবে মোরে । জয়সিংহ, কোথা জয়সিংহ ! >)●