পাতা:বিসর্জন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সকলে । জয় মা ! গণেশ । আর ভয় নেই। কানু। ওরে, সেই দক্ষিণদ’র মানুষগুলো এখন গেল কোথায় ? গণেশ । মায়ের ঐশ্বর্য বেটাদের সইল না। তারা ভেগেছে । হারু । কেবল মায়ের ঐশ্বর্য নয়, আমি তাদের এমনি শাসিয়ে দিয়েছি, তারা আর এমুখো হবে না। বুঝলে অক্রুরদা, আমার মামাতো ভাই দফাদারের নাম করবামাত্র তাদের মুখ চুন হয়ে গেল । অক্ৰুর। আমাদের নিতাই সেদিন তাদের খুব কড়া কড়া দুটো কথা শুনিয়ে দিয়েছিল। ঐ যার সেই চু চোপান মুখ সেই বেটা তেড়ে উত্তর দিতে এসেছিল ; আমাদের নিতাই বললে, "ওরে, তোরা দক্ষিণদেশে থাকিস, তোরা উত্তরের কী জানিস ? উত্তর দিতে এসেছিস, উত্তরের জানিস কী ? শুনে আমরা হেসে কে কার গায়ে পড়ি । গণেশ । ইদিকে ঐ ভালোমানুষটি, কিন্তু নিতাইয়ের সঙ্গে কথায় তাটবার জো নেই। হারু । নিতাই আমার পিসে হয় । কানু ! শোনো একবার কথা শোনে। নিতাই আবার তোর পিসে হল কবে ? হারু | তোমরা আমার সকল কথাই ধরতে আরম্ভ করেছ। আচ্ছা, পিসে নয় তো পিসে নয়। তাতে তোমার সুখটা কী হল ? আমার হল না ব’লে কি তোমারই পিসে হল । রঘুপতি ও জয়সিংহের প্রবেশ রঘুপতি। শুনলুম সৈন্য আসছে। জয়সিংহ, অস্ত্র নিয়ে তুমি এইখানে দাড়াও ! তোরা আয়, তোরা এইখানে দাড়া। মন্দিরের দ্বার আগলাতে 8 ○