পাতা:বিসর্জন - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


জয়সিংহ । অগাধ সাগরজলে, নির্মল আকাশে— হত্যা জীৰিকার তরে, হত্যা খেলাচ্ছলে, হত্যা অকারণে, হত্যা অনিচ্ছার বশে— চলেছে নিখিল বিশ্ব হত্যার তাড়নে উধ্ব শ্বাসে প্রাণপণে, ব্যাভ্রের আক্রমে মৃগসম, মুহূর্ত দাড়াতে নাহি পারে। মহাকালী কালস্বরূপিণী, রয়েছেন দাড়াইয়া তৃষাতীক্ষু লোলজিহবা মেলি— ৰিশ্বের চৌদিক বেয়ে চির রক্তধারা ফেটে পড়িতেছে, নিম্পেষিত দ্রাক্ষা হতে রসের মতন, অনন্ত খপরে তার— থামো, থামো, থামো !— মায়াবিনী, পিশাচিনী, মাতৃহীন এ সংসারে এসেছিস তুই মা’র ছদ্মবেশ ধরে রক্তপানলোভে । ক্ষুধিত বিহঙ্গশিশু অরক্ষিত নীড়ে চেয়ে থাকে মা’র প্রত্যাশায়, কাছে আসে লুব্ধ কাক, ব্যগ্রকণ্ঠে অন্ধ শাবকেরা মা মনে করিয়া তারে করে ডাকাডাকি, হারায় কোমল প্রাণ হিংস্রচঞ্চুঘাতে— তেমনি কি তোর ব্যবসায় ? প্রেম মিথ্যা, স্নেহ মিথ্যা, দয়া মিথ্যা, মিথ্যা আর সব, সত্য শুধু অনাদি অনন্ত হিংসা ! তবে কেন মেঘ হতে ঝরে আশীর্বাদসম & 8