পাতা:বেতালপঞ্চবিংশতি.pdf/৬৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
৫৭
৫৭
বেতালপঞ্চবিংশতি

লক্ষ্মী কহিলেন পূর্ব্ব দিকে যোজনান্তে এক দেবী আছেন। যদি কেহ ঐ দেবীর নিকটে আপন পুত্ত্রকে স্বহস্তে বলিদান দেয় তবে তিনি প্রসন্না হইয়া রাজার সমস্ত বিঘ্ন বিনাশ করিতে পারেন।

রাজলক্ষ্মীর এইরূপ বাক্য শুনিয়া বীরবর সত্বর গৃহাভিমুখে গমন করিল। রাজাও কৌতুকাবিষ্ট হইয়া পশ্চাৎ পশ্চাৎ চলিলেন। বীরবর গৃহে উপস্থিত হইয়া আপন পত্নীকে জাগরিত করিয়া সমস্ত জ্ঞাত করিলে সে তৎক্ষণাৎ পুত্ত্রের নিদ্রাভঙ্গ করিয়া কহিল বৎস তোমার মস্তক দিলে রাজার অচল রাজ্য হয়। তখন পুত্ত্র কহিল হে মাতঃ প্রথমতঃ আপনকার আজ্ঞা দ্বিতীয়তঃ স্বামিকার্য্য তৃতীয়তঃ পাঞ্চভৌতিক বিনশ্বর দেহ দেখসেবায় নিয়োজিত হইবেক। ইহা অপেক্ষা আমার প্রাণত্যাগের উত্তম সময় আর ঘটিবেক না। অতএব শুভ কর্ম্মে বিলম্ব করা কর্ত্তব্য নহে। আপনারা সত্বর হইয়া কার্য্য সম্পাদন করুন।

বীরবর পুত্ত্রের এইরূপ পরমাদ্ভুত বাক্য শ্রবণে বিস্ময়া পন্ন হইয়া অশ্রুমুখে সহধর্ম্মিণীকে কহিল যদি তুমি সচ্ছন্দ মনে পুত্ত্র প্রদান কর তবেই আমি দেবীর নিকট বলিদান দিয়া রাজকার্য্য নিষ্পাদন করি। এইরূপ স্বামিবাক্য শ্রবণানন্তর বীরবরের ভার্য্যা আবেদন করিল নাথ ধর্ম্মশাস্ত্রে কহে