পাতা:বৈকালী-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১১৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাঠবৈচিত্র্য : নিদর্শন বলা আবশ্বক যে, বর্তমান সংকলনে ৪০ ও ৪১ সংখ্যা দিয়া নির্দিষ্ট দুইটি কেবল কবিতা ; পরে (ভাদ্র ১৩৩৯ ) পরিশেষ কাব্যে অভীপিত পরিবর্তনে ও শিরোনামযোগে গৃহীত— আশ্রমবালিকা : আশ্রমের হে বালিকা দিনাবসান : বাশি যখন থামবে ঘরে পরিবর্তন সম্পর্কে ৯ ও ১০ -সংখ্যক পাদটীকায় বলা হইয়াছে। দ্বিতীয়টির সাময়িক প্রচার (বহুবার ) সম্পর্কে জানা যাইবে দ্বিতীয় স্থচীপত্রের একোনশেষ উল্লেখে । २. দুইটি সংকলন মূলতঃ কবিতা হইলেও গানে পরিণতি লাভ করে ; তন্মধ্যে একটির (বর্তমান সংকলনে পঞ্চম : চপল তব নবীন আঁখি দুটি) প্রথম স্তবকে ভাষার কোনো পরিবর্তন না করিয়াই স্বর দেওয়া হয় কিন্তু অপরটি হইতে বিচিত্রভাবে দুইটি গানের ( অধিকন্তু একটি স্বাক্ষর-কবিতার ) উদ্ভব হয় কিভাবে, তাহ কৌতুহলজনক। গান-দুইটি প্রচল গীতবিতান হইতে উদ্ভূত করা যাইতেছে — বর্তমান সংকলনে ৩৯ সংখ্যায় নিদিষ্ট পরবাসী চলে এসে ঘরে পরবাসী, চলে এসো ঘরে > অনুকূল সমীরণভরে। ૨ ওই দেখো কতবার হল খেয়া-পারাপার Wう সারিগান উঠিল অম্বরে। আকাশে আকাশে আয়োজন, বাতাসে বাতাসে আমন্ত্রণ । মন যে দিল না সাড়া, তাই তুমি গৃহছাড়া নির্বাসিত বাহিরে অস্তরে ॥ יל কবিতার ছত্র ১ ও ২, গানেও সেইরূপ। কবিতার তৃতীয় স্তবকের শেষ ৩ ছত্র, গানে ছত্র ৩-৪ রূপে সাজানো হইয়াছে। কবিতার দ্বিতীয় স্তবকের ছত্র ১-২, গানে ছত্র ৫-৬ । কবিতার চতুর্থ স্তবকের ছত্র ৩-৪, গানে ছত্র ৭ এবং ওই স্তবকের শেষ ছত্রে ‘পরবাসী যখন ‘নির্বাসিত রূপ ধরিল সেটি এই গানের শেষ ছত্র । } ow? .