পাতা:বৌ-ঠাকুরাণীর হাট-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১০১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বৌ-ঠাকুরাণীর হাট Ye Y অকুল পাথার দেখিতেছে । এ কয়দিন সে অনবরত স্বরমার কাছে বসিয়া আছে। একটি মলিন ছায়ার মতে। সে চুপ করিয়া স্বরমার সঙ্গে সঙ্কে ফেরে। এক একটা দিন যায, সন্ধ্যা আইসে, বিভ। ততই যেন ঘনিষ্ঠতর ভাবে সুরমাকে আলিঙ্গন করিয ধরিয় রাখিতে চায়। দিনগুলিকে কে যেন তাহার প্রাণপণ আকর্ষণ হইতে টানিয়া ছিড়িয়া লইয়া যাইতেছে। বিভার চারিদিকে অন্ধকব ! স্ববমার চক্ষেও সমস্তই শূন্ত। তাহার জার উত্তর দক্ষিণ পূৰ্ব্ব পশ্চিম নাই, সংসারে দিগ্‌বিদিক সমস্ত মিশাইয়া গেছে। সে উদয় দিত্যেব পায়েব কাছে পড়িয় থাকে, কোলেব উপর গুইয়া" থাকে, তাহার মুখের পীনে চুপ করিয়। চাহিয়৷ থাকে, আব কিছু করে ন। বিভাকে বলে “বিভা তোব কাছে আমার সমস্ত রাখিয়া গেলাম” বলিয়। দুষ্ট হাতে মুখ আচ্ছাদন করিয়৷ কাদিয়া ফেলে। অপরাহ্ল হইয়া আসিয়ছে , কাল প্রত্যুষে সুরমার বিদায়ের দিন । তাহার গার্হস্থ্যের যাহা কিছু সমস্ত একে একে বিভার হাতে সমর্পণ করিল। উদয়াদিত্য প্রশান্ত ও দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ভাবে বসির আছেন। তিনি স্থির করিয়াছেন, হয় স্বরমাকে রাজপুরীতে রাখিবেন, নয় তিনিও চলিয়া যাইবেন । যখন সন্ধ্যা হইল, তখন সুরমা আর দাড়াইতে পারিল না, তাহার প। কাপিতে লাগিল, মাথা ঘুরিতে লাগিল। সে শ্যনহে গিয়া শুইষা পড়িল, কহিল, “বিভ, বিভ, শীঘ্র একবার তাহাকে ডাক আর বিলম্ব নাই!” ήμα, উদয়াদিত্য স্বারের কাছে আসিতেই সুরমা বলিয়। উঠিল “এসো, এলো, আমন্ত্র প্রাণ কেমন করিতেছে!” বলিয়া দুই বাহু বাড়াইয়া দিল । উদয়াদিত্য কাছে আসিতেই তাহার পা দুটি জড়াইয়া ধরিল উদয়াদিত্য বসিলেন, তখন সুরমা বহু কষ্ট্রে নিশ্বাস লইতেছে, তাহার হাত পা শীতল श्हेच्च अग्निाटक्क । উদয়াদিত্য ভীত হইয়া ডাকিলেন, “জুরমা !" সুরম স্তুতি ধীরে মাথ চুলিয়া উদয়াদিত্যের মুখের পানে চাহিয়া’কহিল, "কী