পাতা:বৌ-ঠাকুরাণীর হাট-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/১২৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বৌ-ঠাকুরাণীর হাট δ Φ Φ সীতারাম আরো গৰ্ব্বিত হইয়া উঠিল। কয়দিন ধরিয়া ক্রমিক পরামর্শ চলিতে লাগিল । পরামর্শ করিয়া যাহা স্থির হইল, তাহা এই, একটা জাল দরখাস্ত লিখিতে হইবে, যেন যুবরাজ প্রতাপাদিত্যের নামে সম্রাট-বিদ্রোহিতার অভিযোগ করিয়া নিজে রাজ্য পাইবার জন্য দরখাস্ত করিতেছেন। তাহাতে যুবরাজের শীল-মোহর মূদ্রিত থাকিবে । রুক্মিণী যে আংটিটি লইয়া আসিয়াছে, তাহাতে যুবরাজের নাম মুদ্রাঙ্কিত শীল আছে, অতএব কাজ অনেকটা অগ্রসর হইয়া আছে । * , পরামর্শমত কাজ হইল। একখানা জাল দরখাস্ত লেখা হইল, তাহাতে যুবরাজের নাম মুদ্রিত রহিল। নিৰ্ব্বোধ সীতারামের উপর • নির্ভর করা যায় না, অতএব স্থির হইল, ভাগবত নিজে দরখাস্ত লইয়া দিল্লীশ্বরের হস্তে সমর্পণ করিবে । ভাগবত সেই দরখাস্তখানি লইয়া দিল্লীব দিকে না গিয়া প্রতাপ আদিত্যের কাছে গেল। মহারাজকে কহিল, “উদয়াদিত্যের এক ভূত্য এই ਜੋ লক্ট্রয় দিল্লীর দিকে যাইতেছিল, আমি কোনো স্বত্রে জানিতে পারি। তুটি পলাইয়া গেছে, দরখাস্তটি লইয়া আমি মহারাজার নিকট আদিতেছি।” ভাগবত সীতারামের নাম করে নাই। দরখাস্ত পাঠ করিয়ী প্রতাপাদিত্যের কী অবস্থা হইল তাহা আর বলিবার আবশ্বক করে না। ভাগবতের পুনর্বার রাজবাড়িতে চাকরী হইল। . ব্রেয়োবিংশ পরিচ্ছেদ বিভার প্রাণের মধ্যে অণধার করিয়া আসিয়াছে। ভবিষ্যতে কী যেন একটা মৰ্ম্মভেদী দুঃখ, একটা মরুময়ী নিরাশা, জীবনের সমস্ত মুখের জন্মৰলি, তাহার জন্য অপেক্ষা করিয়া আছে, প্রতি মুহূর্ভে তাহার কাছে কাছে সরিয়া আসিতেছে। সেই যে জীবনশূন্তকারী চরাচরগ্রাসী শুষ্ক