পাতা:বৌ-ঠাকুরাণীর হাট-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


*ộe ८वी-ठे কুরাণীর হাট

  • একবার উদয়াদিত্যের কথা ভাবিল। বলিয়া উঠিল—“মাম, কী

হইয়াছে বলে ।” বমাপতি তাহার কথার কোনো উত্তর না দিয়া রামচন্দ্রকে কহিলেন "বIব, অনর্থক কলবিলম্ব হইতেছে । এই বেল। গোপনে পালাইবার উপায় দেখে ।" হঠাৎ বিভার মনে একট। দ রুণ অশুভ আশঙ্ক জাগিয়া উঠিল । গমনোন্তত মতুলেব পথবোধ কবিয ককিল, “ওগে। তোমাব দুটি পায়ে পড়ি, কী হইয়াছে বলিয। যা ও ” রমাপতি সভযে চারিদিকে চাহিয। কৃছিলেন,—“গোল কবিনে বিভা চুপ কব, আমি সমস্তই বলিতেছি।” “ow যখন রমাপতি একে একে সমস্তট। বলিলেন, তখন বিভা একেবাবে চীৎকার করিয়া উঠিবার উপক্রয় কবিল। রমাপতি তাড়াতাড়ি তাহাব মুখ চাপিয়া ধরিলেন—কছিলেন—“চপ, চুপ, সৰ্ব্বনাশ করিসনে!” বিভ রুদ্ধশ্বাসে অর্থ রুদ্ধস্ববে সেইপানে বসিয় পডিল । রামচন্দ্র রায় সকাতরে কহিলেন, “এপন আমি কী উপায় করিব ? পালাইবার কি পথ আছে, আমিতে কিছুই জানি ন৷ ” { রমাপতি কহিলেন—“আজ রাত্রে প্রহরীর চারিদিকে সতর্ক | আমি একবার চrবিদিকে দেপিয। আসি যদি কোথাও কো থাকে ৷” এই বলিয। তিনি প্রস্থানের, উপক্রম করিলেন । ৰিভ তাঙ্কাকে ধরিয়া কছিল, "মাম, তুমি কোথায যাও! তুমি থাই না,তুমি আমাদের কাছে থাকে |" রমাপতি কছিলেন, “বিভা, তুই পাগল হইয়াছিস্ ! আমি খাছে রাৰিলে কোনো উপকার দেখিবে না। ততক্ষণু আমি একবার চারিদিকেব ੋਂ দেখিয়া আসি ।”