পাতা:বৌ-ঠাকুরাণীর হাট-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.djvu/৭৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Cবৗ-ঠাকুরাণীর হাট ዓፃ এমনি গোলমাল করিয়া একটা কী ভাষায় তাহার কানের কাছে কথা কহিতেছে, তিনি কিছুই বুঝিতে পারিতেছেন না। এমন সমযে উদয়াদিত্যের সাড়া পাইলেও তাহার মনট একটু স্থির হয়। থাকিয়৷ থাকিয়া তিনি সকাতরে উদয়াদিত্যের হাত ধরিয়া কহিলেন, "দাদা, আমার জন্যই কি এ সমস্ত হইল ?” তাহার বার বার মনে হইতেছে তাহাকে বিনাশ করিতে না পারাতেই এই সমস্ত ঘটিয়াছে। উদয়াদিত্যের তখন অধিক কথা কহিবাব মতে ভাব নহে। তিনি কোমল স্বরে কহিলেন, “না দাদামহাশয় ।” অনেকক্ষণ ঘর নিস্তব্ধ হইয়া রহিল। থাকিয়। থাকিয়া বসন্তরায় আবার বলিযা উঠিলেন, “বিভা, দিদি আমার, তুই কথা কহিতেছিল না কেন ?” বলিয়া বসন্তব্য বিভার কাছে গিয়া বসিলেন। কিছুক্ষণ পরে বসন্তরায় আবার বলিয় উঠিলেন, “স্বরম, ও স্বরম ! সুরমা মুখ তুলিয়া চাহিল, আর কিছু বলিল না। বুদ্ধ বসিয়া বসিয়া মাথায় হাত বুলাইতে লাগিলেন। একট। অনিদ্দেশ্য বিপদের প্রতীক্ষা করিয়া রছিলেন। স্বরম। তখন স্থিবভাবে বসিয়া বিভার কপালে হাত বুলাইতেছিল, কিন্তু সুরমার হৃদয়ে যাহা হইতেছিল, তাহা অস্তুযামীক্ট দেখিতেছিলেন। স্কুরম। সেই অন্ধকারে একবার উদয়াদিত্যের মুখের দিকে চাহিল। তখন উদয়াদিত্য দেওয়ালে মাথা রাখিয়। এক মনে কী ভাবিতেছিলেন। সুরমার দুই চৰ্ক বহিয়া অঙ্গ-জল পডিতে লাগিল। মান্তে আস্তে মুছিয়া ফেলিল, পাছে বিভা জানিতে পায়। যখন চারিদিক আলো হইয়া আসিল তখন বসন্তরায় নিশ্বাস ফেলিয়া বঁচিলেন। তখন তাহার মন হইতে একট। অনির্দেশু আশঙ্কার ভাব দূর হইল। তখন স্থির চিত্তে সমস্ত ঘটনা একবার আলোচনা করিয়া দেখিলেন। তিনি বিভার ঘর হইতে উঠিয়া গেলেন। অন্তঃপুরের দ্বারে হাত পা বাধা সীতারামের কাছে গিয়া উপস্থিত হইলেন। তাহাকে কহিলেন, “দেখ সীতারাম, তোকে যখন প্রতাপ জিজ্ঞাসা করিবে, কে