পাতা:ব্যক্তিত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১০৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


গ্রহণ করেছিল। আর এই উদ্দেশ্য এখনো স্থষ্টির সকল রূপের মধ্যে, ভালোবাসার মানবিক সম্পর্কের মধ্যে অনন্তের অন্বেষণে আমাদের প্ররোচিত করে। যে বাতাসে আমরা নিঃশ্বাস নিই, যে আলোকে চোখ মেলি, যে জলে স্বান করি, যে পৃথিবীতে আমরা বাচি ও মরি, সেখানেই আমরা অনন্তকে উপলব্ধি করার প্রয়াস করি। সুতরাং আমি জানি— আর তা আমি নিজ অভিজ্ঞতায় জানি— যে, এই আশ্রমে ছাত্র ও শিক্ষক -রূপে র্যারা এসেছেন, র্তারা প্রতিদিন অনন্তের চেতনায় মনের মুক্তির পথে চলেছেন। এই মুক্তি কোনো শিক্ষাপদ্ধতি বা বাইরের শাসনের মধ্য দিয়ে আসবে না। তার আগমন ঘটবে আকাঙ্ক্ষার এক অদৃশ্ব পরিবেশে। এই পরিবেশ ঈশ্বরের সঙ্গে অন্তরঙ্গ মিলনের মাঝে যে ভক্ত আত্মা বাস করেছে, তার ক্ষেত্র ও স্মৃতিকে ঘিরে অাছে। আমি আশা করি, যে সচেতন উদ্দেশ্য -প্রণোদিত হয়ে আমি আশ্রমে বিদ্যালয় স্থাপন করেছিলাম, তা কী ভাবে ক্রমশ তার স্বাতন্ত্র্য হারালো ও এই স্থানের উদ্দেশ্যের সঙ্গে মিশে গেল, তা আমি ব্যাখ্যা করতে সমর্থ হয়েছি । এক কথায় আমার কাজ আশ্রমের জীবনীশক্তির মধ্যে তার আত্মাকে খুজে পেয়েছে। কিন্তু সন্দেহ নেই এই আত্মার বাহ্যিক রূপ আছে— তা হল বিদ্যালয়ের দিক। আর এই বিদ্যালয়ের শিক্ষাপদ্ধতির মধ্যে আমি এত বছর ধরে আমার শিক্ষাতত্ত্ব চালাবার চেষ্টা করেছি। এই তত্ত্বের ভিত্তি শিশুমন সম্পর্কে আমার অভিজ্ঞতা । আমি পূর্বে যে কথা ইঙ্গিত করেছি, সে-অনুযায়ী অামি বিশ্বাস করি শিশুদের সচেতন বুদ্ধি অপেক্ষ তাদের অর্ধচেতন মন বেশি পরিমাণে সক্রিয়। আমাদের পাঠ্যবিষয়ের একটা বড়ো গুরুত্বপূর্ণ অংশই আমরা এর মাধ্যমে শিখেছি। সংখ্যাহীন প্রজন্মের অভিজ্ঞতা > S 8