পাতা:ব্যক্তিত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১২১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


আমাদের সংস্কৃত ভাষায় ‘পিতা’ শব্দটি জননীকে তার অন্তভুক্ত করেছে। প্রায়ই আমরা দ্বিবচনে শব্দটিকে ব্যবহার করি— ‘পিতরেী— তার অর্থ পিতা ও মাতা। মানুষ মায়ের কোলে জন্মায়। মেঘ থেকে যেমনভাবে বৃষ্টি আসে সেভাবে আমরা আসি নি । বড়ো তথ্য এই, আমার মাতা ও পিতার কোলে আমি এই জীবনে এসেছি। তার থেকে দেখা যায় যে ব্যক্তিত্বের ধারণা আগে থেকেই এখানে রয়েছে। এখানেই অনন্ত ব্যক্তির সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক আমরা খুজে পাই । আমরা জানি যে আমরা ভালোবাসা থেকে জন্মেছি— আমাদের সম্পর্ক ভালোবাসার সম্পর্ক । আমরা অনুভব করি যে অামাদের পিতা ও মাতা ঈশ্বরের সঙ্গে আমাদের চিরন্তন সম্পর্কের প্রতীক । প্রতি মুহুর্তে আমাকে এই সত্য উপলব্ধি করতে হয়। আমাকে জানতে হয় যে আমার ‘পিতা’র সঙ্গে অামার চিরন্তন সম্পর্ক রয়েছে। তখন আমি বস্তুর তুচ্ছতার উপরে উঠি এবং সমগ্র জগৎ আমার কাছে অর্থসমৃদ্ধ হয়ে ওঠে । সুতরাং প্রথম প্রার্থন হচ্ছে ঈশ্বরকে পিতারূপে উপলব্ধি । অসংখ্য নক্ষত্র ও জগতের অনন্ত বিশ্বকে তুমি স্থষ্টি করেছ। তুমি আমাকে উত্তীর্ণ হয়ে যাও, কিন্তু একটি কথা আমি অন্তরঙ্গভাবে জানি– তুমি আমার পিতা। শিশু তার মায়ের কাজকর্মের সাব-কিছু জানে না । কিন্তু শিশু জানে যে তিনি তার জননী । সেইভাবে ঈশ্বর সম্পর্কে অন্যান্য বিষয় আমি জানি না । কিন্তু আমি এ কথা জানি– তুমি আমার পিতা । আমার সমস্ত চেতনা এই ধারণায় আগুনের মতো জ্বলে উঠুক, – তুমি আমার পিতা। প্রতিদিন আমার সকল চিন্তার একমাত্র