পাতা:ব্যক্তিত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৪১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মনের এই ধরণের চলিষ্ণুতা ব্যাপক পরিবর্তন ঘটায়। সে কারণেই তিনি র্তার একটি কবিতায় বলেছেন— আমি শুনেছি যে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে যে আমি নাকি প্রতিষ্ঠানগুলি ধ্বংস করতে চেযেছি ; কিন্তু সত্যি আমি এদের না পক্ষে, না বিপক্ষে ; এদের সঙ্গে আমার কিসেই ব| মিল আছে ?— আর এদের ধ্বংসের সঙ্গে আমার কি যোগ আছে ?— আমি কেবল মানহাট্টা ও এই-সব রাষ্ট্রের প্রতি নগরীতে, দেশের অভ্যন্তরে ও সমুদ্রতটে, এবং শস্যক্ষেত্র ও অরণ্যভূমিতে, ছোটো ও বড়ে জলজাহাজের উপরে, অট্টালিকা, আইন-কানুন, অছি বা কোনো যুক্তি ছাড়াই এই সহকর্মীদের ভালোবাসার প্রতিষ্ঠান স্থাপন করব। যেসব প্রতিষ্ঠান দৃঢ়ভাবে নির্মিত হয়েছে, খুব নিরেট ও স্থল হয়েছে, কবির জগতে তা বাম্পেব মতো উবে যায়। এ যেন রঞ্জনরশ্মির জগৎ যেখানে জগতের নিরেট বস্তুর কোনো অস্তিত্বই নেই। অপরপক্ষে, বন্ধুদের ভালোবাসা সাধারণ জগতে যা তরল পদার্থ, যা মেঘের মতো আকাশে ভেসে বেড়ায় ও পথের কোনো চিহ্ন না রেখেই চলে যায়, তা কবির জগতে সকল প্রতিষ্ঠান অপেক্ষা বেশি স্থায়ী। এখানে তিনি এমন এক কালে বস্তুনিচয়কে দেখেন যেখানে পর্বতমালা ছায়ার মতো চলে যায়, কিন্তু আপাতক্ষণভঙ্গুরতা সত্ত্বেও বর্ষার মেঘমালা চিরন্তন রূপে বিরাজ করে। তিনি তার জগতে অনুভব করেন যে, বন্ধুদের ভালোবাসা কঠিনভিত্তিহীন মেঘমালার মতো নিরেট ও সত্য, এবং তা কোনো প্রাসাদ, আইন, অছি বা যুক্তি ছাড়াই স্থাপিত হতে পারে। 8X