পাতা:ব্যক্তিত্ব - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৯১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


মহাকাব্যের জন্য, কিন্তু তাকে তথ্য ও তারিখের তালিকা সরবরাহ করা হয়। শিশু মানবজগতে জন্মায়,_কিন্তু_তাকে_জীবন্ত গ্রামোফোনের জগতে নির্বাসিত_করা_হয় D এই নির্বাসন হল অজ্ঞতার জগতে জন্মগ্রহণরূপ আদিম পাপের প্রায়শ্চিত্ত । শিশুর প্রকৃতি এই শোচনীয় দুর্ঘটনার বিরুদ্ধে তার সমস্ত যন্ত্রণার শক্তি দিয়ে প্রতিবাদ করে ; শেষ পর্যন্ত তা শাস্তির পীড়নে নীরব হয়ে যায় ) আমরা সবাই জানি, শিশুরা ধুলো ভালোবাসে ; তাদের সমস্ত শরীর ও মন সূর্যালোক ও বাতাসের তৃষ্ণায় ফুলের মতোই কাতর হয়। বিশ্বজগৎ থেকে তাদের ইন্দ্রিয়গ্রামের কাছে প্রত্যক্ষ সংযোগ স্থাপনের জন্য যে নিরন্তর আমন্ত্রণ এসে পেচচ্ছে, শিশুর কখনোই তাকে প্রত্যাখ্যান করে না । १ किख শিশুদের তুর্ভাগ্যক্রমে তাদের মাতাপিতারা বৃত্তির অনুসরণে সামাজিক প্রথানুযায়ী তাদের অভ্যাসের বিশেষ জগতে বাস করে । এই জগতের বেশির ভাগের সঙ্গেই কোনো সহযোগিতা করা যায় না । কারণ পরিবেশের তাড়নায় ও সামাজিক সমতার প্রয়োজনে মানুষকে কোনো একটা বিষয়ে বিশেষ পারদর্শী হতে হয় ) কিন্তু আমাদের শৈশব হচ্ছে সেই সময় যখন আমাদের আরো বেশি স্বাধীনতা থাকে বা থাকা উচিত । সে স্বাধীনতা হচ্ছে— সামাজিক ও বৃত্তিগত প্রথাবদ্ধতার সংকীর্ণ সীমায় বিশেষ জ্ঞানার্জনের প্রয়োজন থেকে মুক্তি । আমার বেশ মনে পড়ছে কড়া শাসনকারী বলে খ্যাতিমান এক অভিজ্ঞ প্রধান শিক্ষক মশায় কী রকম বিস্মিত ও বিরক্ত হয়েছিলেন যখন তিনি দেখলেন, আমার বিদ্যালয়ের একটি ছেলে -ა®