পাতা:ব্যঙ্গকৌতুক - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


নূতন অবতার (? S ক’রে দেবে তা জানিস্ ! সবাই আমাকে ভক্তি ক’বৃচে আর তুই বেটা এতে বড়ে খৃষ্ঠান হ’য়েচিম যে, আমাকে দেখে প্রণাম করিস নে ! তোর পরকালের ভয় নেই ? বেরো আমার বাড়ি থেকে ! ছি বাবা উমেশ, তোমার এতে। বয়স হ’লো, তবু কার সঙ্গে কী রকম ব্যবহার করতে হয় শিখলে না ? যে ভগীরথ মর্ত্যে গঙ্গ। এনেছিলেন তার গল্প মহাভারতে প’ড়েচে তো ? ভুল ক’রূচো—ঐরাবত নয়, সে ভগীরথ । আমাকে সেই ভগীরথ ব’লে জেনো ! বুঝেচে ? মনে থাকবে তে ? ভগীরথ,—ঐরাবত নয়। সেই জায়গাট| মাষ্টারের কাছে প’ড়ে নিয়ে ! এসে বাব, তোমার মাথায় পায়ের ধূলো দিয়ে দিই ! কই! ভাত কই ! আমি আর সবুর করতে পারুচিনে—দেশদেশান্তর থেকে সব লোক আস্চে ! কী গে| গিন্নি, এতো রাগ কিসের ? হ’য়েচে কী ? খিড়কির পুকুরে লোকজনের ভিড় হ’য়েচে ? নাওয়া, কাপড় কাচ, বাসন মাজা, জলতোলা সমস্ত বন্ধ হ’য়েচে ? কী করবে। বলে ! আমি স্বয়ং ভগীরথ হ’য়ে গঙ্গা থেকে তো কাউকে বঞ্চিত করতে পারিনে। তা হ’লে আমি এতে তপিস্তে ক’রে এতে কষ্ট ক’রে গঙ্গা আনলুম কেন ? তোমাদের ময়লা কাপড় কাচবার জন্যে—বটে ! যখন ব্রাহ্মণের সঙ্গে মকদ্দম ক’বৃছিলুম তখন তোমরা সেই আশায় বসেছিলে, আসল কথাট। কেবল আমি জানতুম আর মা গঙ্গাই জানতেন। —কী ! এতো বড়ে আম্পৰ্দ্ধা—তুই বিশ্বাস করিস্নে ! জানিস্, তোকে বিয়ে ক’রে তোর চোদপুরুষকে আমি উদ্ধার ক’রেচি ! বাপের বাড়ি যাবে ! যাও না ! মরবার সময় আমার এই গঙ্গায় আসতে দেবে না! সেটা মনে রেখে ? ভাত আর আছে তো? নেই ? আমি যে তোমাকে বেশি ক’রে রাধতে ব’লে দিয়েছিলুম ! আমার প্রসাদ নিয়ে যাবে ব’লে যে দেশ বিদেশ থেকে লোক এসেচে ! যা রেধেচে, এর একট। একটা ভাত খুটে দিলেও যে কুলবে না ! রান্নাঘরে